ডা. শাহারিয়ার মাহমুদ

ডা. শাহারিয়ার মাহমুদ

এমবিবিএস, এমএইচ শমরিতা মেডিকেল কলেজ। 


১৮ এপ্রিল, ২০১৭ ০৭:০২ এএম

বিলাসী চিকিৎসাশাস্ত্র

বিলাসী চিকিৎসাশাস্ত্র

মেডিকেলে পড়াশুনা করা কিংবা এই লাইনে ক্যারিয়ার করাটা এক ধরনের বিলাসিতা, এবং এটা কোন ছোটখাটো বিলাসিতা না, এটা হচ্ছে মাত্রাতিরিক্ত বিলাসিতা। যারা এই বিলাসিতা কে আপন করে নিতে পারে, শেষ পর্যন্ত লেগে থাকতে পারে, তারাই আলটিমেট গোলে পৌছুতে পারে।

কেন বিলাসিতা বলছি?

প্রথমত, এই টা হচ্ছে একমাত্র সেক্টর যেখানে ক্যারিয়ার ডেভেলপ কর কঠিন এবং সবচাইতে সময়সাপেক্ষ। এবং এখানে রাতারাতি কেউ লাখ টাকার মালিক হতে পারে না। এবং সেই লাখ টাকার মালিক হতে হতে কারো অর্ধেক চুল কিংবা কারো পুরোটা পেকে যায় এবং যৌবন পার হয়ে মধ্যবয়সে উপনীত হয়, যখন গিয়ে দেখা যায়, অনেক চাওয়াই অপূর্ন রয়েছে।

প্রথমে আসি, এমবিবিএস শেষ করা পর্যন্ত সময়খানি তে। ধরি, এখানে যদি সিস্টেম লস নাও হয়; মানে ফেল ছাড়া তারপরও আপনার ছয় বছর লেগে যাবে ইন্টার্ন শেষ করা পর্যন্ত। আর যদি কোন কারণে ফেইল হয়ে যায়, তখন সময়ের সাথে সাথে হতাশাও দীর্ঘতম হয়। অার কষ্টকর ব্যাপার হচ্ছে, একই ব্যাচের অন্য বন্ধুরা যখন পাশ করে বের হয়ে ভালো বেতনের জব করে, সংসার চালায়, তখন ঠিকই মনে হয়, অামি এখনও পড়ছি। ঠিক এ জায়গাতে ধের্য্য ধরতে হয়, মেডিকেল এ ক্যারিয়ার করা একদল মানুষকে।

আপনি এমবিবিএস শেষ করলেন, তখন শুরু হবে পরিবারের আশা, চাওয়া পাওয়ার হিসেব। আপনি যদি নিম্নবিত্ত কিংবা নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের হয়ে থাকেন, তাহলে আপনি অলরেডী জানেন, প্রত্যাশার চাপ কতখানি।

যখন অাপনার পোস্ট গ্রাজুয়েশন এর প্রিপারেশন নেয়া উচিত, তখন হয়ত আপনাকে চিন্তা করতে হচ্ছে, পুরো পরিবার নিয়ে, তাদের খরচ নিয়ে। প্রচণ্ড ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও আপনি পোস্ট গ্রাজুয়েশন এর প্রিপারেশনই শুরু করতে পারছেন না। শেক্সপ্রিয়ার বলেছিলেন, " অভাব যখন দরজায় কড়া নাড়ে, ভালোবাসা তখন জানালা দিয়ে পালায়।

এটা কে মেডিকেল সেক্টর এর জন্য এভাবে বলা যায়, " পরিবারের প্রত্যাশার চাপ যখন অাকাশসম, পোস্ট গ্রাজুয়েশন এর চিন্তা তখন আলোর বেগ এ পালায়"

ঠিক এদিক দিয়ে ফ্যামিলি সাপোর্ট টা খুব গুরুত্বপূর্ন। পরিবার যদি মাথায় হাত দিয়ে বলে, তুমি পড়ো; পরিবার এর চিন্তা তোমাকে করতে হবে না। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্যি আমাদের দেশের প্রেক্ষাপট এ এটা প্রায় অসম্ভব, এবং অনেকের এ কারণ এই পোস্ট গ্রাজুয়েশন এর স্বপ্ন অধরাই থেকে যায়।

মেডিকেল এ ঢুকার অাগে, অবশ্যই মাথায় রাখা উচিত, ফ্যামিলি সাপোর্ট করতে পারবে কি না? ধৈর্য্য রাখতে পারবে কি না? জায়গা টা ভালোবাসতে পারবে কি না? অার এ জায়গাটা বিলাসী, কারন যে বিলাসী তার অার কোন চিন্তার দরকার পড়ে না, কিন্তু যখন ই বাস্তববাদী হতে যাবেন, তখন ই আপনাকে প্রত্যাশার চাপ মেটাবার দায়িত্ব নিতে হবে, ক্যারিয়ার ডেভেলপ এর চিন্তাকে হয়ত মাটি চাপা দিতে হবে।

 

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা
পিতাকে নিয়ে ছেলে সাদি আব্দুল্লাহ’র আবেগঘন লেখা

তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না
জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের সিসিউতে ভয়ানক কয়েক ঘন্টা

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না