অধ্যাপক ডা. তাজুল ইসলাম

অধ্যাপক ডা. তাজুল ইসলাম

মনোরোগবিদ্যা বিভাগ,

জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউট ও হাসপাতাল,

শেরেবাংলা নগর, ঢাকা। 


১৬ এপ্রিল, ২০১৭ ১০:২৬ এএম
সাইকলজিক্যাল টিপস

মানুষের শ্রেষ্ঠ সম্পদ তার আত্ম মর্যাদাবোধ

মানুষের শ্রেষ্ঠ সম্পদ তার আত্ম মর্যাদাবোধ

 

  •  আপনি কি সর্বদা অন্যদের খুশী করতে নিজকে তাদের পা- পোষ হিসেবে ব্যবহ্রুত হতে দেন?(you constantly try to make others happy, essentially becoming their door- mate?)

আমরা যখন নিজেরা সুখে থাকি কেবল মাত্র তখনই অন্যদের সুখী করতে পারি।নিজেদের দিকে ফোকাস করে আমরা নিজেদের ভিতর সবচেয়ে বেশী পরিবর্তন আনতে পারি।মহাত্মা গান্ধী বলেছেন" যে পরিবর্তন পৃথিবীতে চাচ্ছেনন,সে পরিবর্তন আগে নিজের ভিতর আনুন"। কিন্তু যদি অন্যকে খুশী রাখতে গিয়ে নিজের স্বাধীন সত্বা বিকিয়ে দেন,তারা যেমন খুশী আপনাকে পায়ে মাড়িয়ে যেতে পারে,আপনি তাদের হাতের ক্রীড়নক হিসেবে কাজ করেন,তাহলে নিজকে বিকশিত করা,নিজের উত্তরন ঘটানো কি সম্ভব? সে ক্ষেত্রে আপনি কি সুখী হতে পারেন? নিজে সুখী না হলে তাদের সুখী করবেন কিভাবে? অথচ আপনি জান- প্রান দিয়ে চাচ্ছেন তাদের সুখী করতে,খুশী করতে।অন্যের পা- পোষ হয়ে তাদের দাসত্ব করা যায়,নিজকে সম্মানিত বা শ্রদ্ধা করা যায় না।

  •  অন্যদের প্রয়োজন / চাহিদার নীচে নিজের চাহিদাকে চেপে রাখেন? 

নিজের বিশ্রাম,আরাম ও যত্ন বাদ দিয়ে অন্যকে ফেবার করতে যাবেন না।আমরা যখন নিজের যত্ন ভালোভাবে নেই তখন আমরা ভালো ভাবে কাজ করতে পারি,অধিক উপার্জনক্ষম থাকি এবং আবেগগত ভাবে সুস্হির থাকি।তাই নিজের প্রয়োজন, চাহিদাকে অগ্রাধিকার দিন,নিজকে শ্রদ্ধার আসনে বসান।

  •  আপনি কি বদ সঙ্গ ত্যাগ করতে পারছেন না?

আমরা নিজেদের প্রকৃত সত্বাকে বিকশিত করতে পারবো না যদি না যারা আমাদের সঙ্গ দেন তারা আমাদের সত্যিকার সত্বাকে উন্নত করতে সহায়তা না করেন।সময় নিন ও খুজে বের করুন " সম- মনা" লোকদের যারা আপনি যে রকম তেমনটি মেনে নেয় ও আপনাকে সমর্থন করেন( তবে সাময়িক সুবিধা নেওয়ার জন্য যারা তোষামোদি করে সেটিকে সৎ সঙ্গ মনে করবেন না)। অন্যদের ভালোবাসা ও সমর্থন না পেলে নিজকে শ্রদ্ধা করা কঠিন।তাই তেমন উত্তম সঙ্গ বেছে নিন যারা আপনার গুনগ্রাহী,আপনার সত্যিকার সমর্থক।

  •  মিথ্যে "ভাবমূর্তি" তৈরীর অপচেষ্টা করবেন না:

মনে রাখবেন অন্যরা আমাদের বাস্তব সত্য সম্বন্ধে জানে এবং বিশেষ পরিস্হিতিতে কি ভূমিকা নেই তা ও জানে।তাই ভান করে,মেকি উচ্চ ভাবমূর্তি তৈরীর চেষ্টা নিজকে লজ্জায় ফেলবে,নিজের অবস্হান প্রশ্নবিদ্ধ হবে।কখনো ভুল থেকে শিখে নিয়ে বা ভুলকে সংশোধন করে নিজের একটি স্পস্ট, উজ্জ্বল ও প্রকৃত ভাবমূর্তি তৈরী করুন এবং নিজের সে ইমেজকে নিজে সম্মান করুন,পছন্দ করুন।এটি হচ্ছে প্রকৃত আত্ম শ্রদ্ধার লক্ষন।
মনে রাখবেন আমরা কেউ নিজকে অশ্রদ্ধা করতে চাই না।কিন্তু আমাদের কিছু স্বয়ংক্রিয় আচরন নিজকে অসম্মান, অশ্রদ্ধা করার পর্যায়ে নিয়ে যায়( ৩ পর্বে যেগুলো উল্লেখ করেছি)। একটু সচেতন হয়ে সেগুলো চিন্হিত করে ও সংশোধন করে আমরা আত্ম শ্রদ্ধা বাড়াতে পারি,যা অন্যদের কাছে আমাদের সম্মান, মর্যাদা বৃদ্ধি করবে।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে