মির্জা মুফলিহুল হক

মির্জা মুফলিহুল হক

শিক্ষার্থী, রংপুর মেডিকেল কলেজ


০৭ মার্চ, ২০১৭ ১০:৪২ এএম

জনগণ ও রাস্ট্রের কাছে সবচেয়ে বেশি জিম্মি ডাক্তাররা

জনগণ ও রাস্ট্রের কাছে সবচেয়ে বেশি জিম্মি ডাক্তাররা

সারাদেশে ইন্টার্ন ধর্মঘটকে কেন্দ্র করে খুব জোর গলায় চিৎকার করলো মিডিয়া। ডাক্তাররা নাকি রোগীদের জিম্মি করে আন্দোলন করেছে। আসলে এই দেশে সবচেয়ে বেশি জিম্মি তো ডাক্তাররাই। জনগণ ও রাস্ট্র সবচেয়ে বেশি জিম্মি করে রেখেছে ডাক্তারদের।

কিভাবে??

৬ থেকে সাড়ে ছয় বছরে সবচেয়ে কঠিন সিলেবাসের পড়া শেষ করে যখন আমি রেজিস্টার্ড MBBS, আপনারা বলেন সিম্পল এম বি বি এস। গায়ে একটু জ্বর আসলেও টাকা থাকলে প্রফেসর না থাকলে ফার্মেসি। কিন্ত আমি যে যত্ন আর সময় নিয়ে মানব সেবার মহান আশা কচি মনটাতে বেঁধে বসে আছি চিকিৎসা দেবো বলে, সেদিক নজর নেই কারো।

আমায় বাধ্য করলে নামের পাশে ডিগ্রি নেবার প্রতিযোগিতায় নামতে। আমার ক্লাসের সেকেন্ডবয় যখন চাকরি, বউ-বাচ্চা নিয়ে সুখের সংসারে ব্যাস্ত আমি তখন জিম্মি সেন্ট্রাল লাইব্রেরী/বইয়ের সাগরে। ৩/৫% সিটে অনেক কস্টে যদিওবা আমি চান্স পেলাম পোস্টগ্রাজুয়েশনে, তখন হলাম কলুর বলদ। ১২ /১৪ ঘন্টা বিনামূল্যে চিকিৎসা দিতে হবে, তা নাহলে ডিগ্রির মুলোটা মিলবে না( যা একমাত্র বাংলাদেশেই সম্ভব,পাশের দেশেও ৫০থেকে ৭৫ হাজার রুপি পায় ডাক্তাররা)

প্রতিবছর গড়ে ২/৩ শত ডাক্তারের মধ্যে যখন আমি একজন বিসিএস ডক্টর, আমায় জিম্মি করে আটকে রাখলে এমন উপজেলায় যেখানে আমার থাকার জায়গা নেই, নিরাপত্তা নেই। যে ভাঙা বিল্ডিং এর জন্য বেতন থেকে কেটে নেওয়া হলো বিশাল একটা অংশ, সেখানে নেই ভাল পানির ব্যাবস্থা বা স্বাস্থ্যকর পরিবেশ। মাঝ রাতে ঘুম ভেঙে যায় ভাঙা প্লাস্টার খসে পড়ার শব্দে। আর আমি সহজ-সরল সেবার মন নিয়ে পড়ে থাকি গন্ড মূর্খ মেম্বারদের শাসানি শুনতে।

আর এমন কোন পেশাজীবী আছে কি যাকে বাধ্যতামূলক ২ বছর নিরাপত্তাবিহীন গ্রামে থাকতেই হয় ?

যদি সত্যিই জনগনকে জিম্মি করি, সত্যিই সকল ডাক্তার একসংগে ধর্মঘটে যায় তবে ২ দিনেই যা খুশি আদায় সম্ভব। কিন্তু এতে হাজার হাজার রুগীর জীবন চলে যাবে। শুধুমাত্র এই মানবতার খাতিরে চুপ থাকা ডাক্তার সম্প্রদায়কে জিম্মি করে রাখা হলো যুগের পর যুগ।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত