১৫ জুন, ২০২২ ১১:৪৬ পিএম

চলে গেলেন ৩৯তম বিসিএস’র ডা. জাহিদ হাসান 

চলে গেলেন ৩৯তম বিসিএস’র ডা. জাহিদ হাসান 
ডা. জাহিদ হাসানের মৃত্যুতে মেডিভয়েস শোকাহত।

মেডিভয়েস রিপোর্ট: ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৩৯তম বিশেষ বিসিএস’র ডা. জাহিদ হাসান। আজ বুধবার (১৫ জুন) রাতে বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। ইন্না লিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন।

ডা. জাহিদ হাসান দীর্ঘদিন ধরে ব্লাড ক্যান্সার, নিউমোনিয়া এবং সেপসিসে ভুগছিলেন৷ কিছু দিন আগে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। এর পর থেকে গত এক সপ্তাহ ধরে ওই হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি।

ডা. জাহিদ হাসান ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) থেকে এমবিবিএস সম্পন্ন করেন। তিনি ছিলেন কে-৬৯ ব্যাচের শিক্ষার্থী।

তিনি বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের কার্ডিওলজি বিভাগের সহকারী রেজিস্ট্রার হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

চিকিৎসক মহলে শোকের ছায়া

ডা. জাহিদ হাসানের মৃত্যুতে চিকিৎসক মহলে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। মেধাবী এ চিকিৎসকের মৃত্যুতে শোক জানানোর পাশাপাশি তাঁর আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করেছেন বন্ধু, স্বজন, সহকর্মীরা।

ডা. জাহিদের স্মৃতিচারণ করে তার সহকর্মী ডা. বাপ্পা আজিজুল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এক পোস্টে বলেন, ‘প্রিয় সহকর্মী ডা. জাহিদ হাসান আর নেই! ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। ঢামেকের মেধাবী ছাত্র ডা. জাহিদকে ৩৯তম বিসিএসে কলিগ হিসেবে পেয়েছিলাম। কোভিডের মধ্যে হুট করে একদিন জানতে পারি সে AML এ আক্রান্ত, ট্রিটমেন্ট নিচ্ছে, এখন ভালোর পথে। এভাবেই দুই বছর তার সাথে পার করে দিলাম। অসম্ভব মিশুক, অমায়িক, ডিসেন্ট একটা ছেলে। দারুণ স্মার্ট আর মাল্টি ট্যালেন্টেড। এর মধ্যে উপজেলায় থেকে হালকা-পাতলা পড়াশোনা করে এফসিপিএস পার্ট-১ করে ফেলল এবং শজিমেকে কার্ডিওলজি বিভাগে ট্রেনিং শুরু করলো। আজ সন্ধ্যায় শুনলাম আইসিইউতে। আর এইমাত্র জানলাম আর নেই! আল্লাহ তায়ালা তাকে ক্ষমা করে দিন। জান্নাত নসিব করুন। তার বাবা-মাকে শোক সইবার শক্তি দিন। সবর করার তৌফিক দিন। আমিন।’

ডা. জাহিদ হাসানের মৃত্যুতে মেডিভয়েস পরিবার শোকাহত। তাঁর আত্মার মাগফিরাত কামনার পাশাপাশি শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছে মেডিভয়েস।

এর আগে ভোর ৫টায় খাদ্যে বিষক্রিয়ায় মারা যান কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের ২৭তম ব্যাচের শিক্ষার্থী ফারহানা ইয়াসমিন পিনন। তিনি চট্টগ্রামের একটি বেসরকারি মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। ইন্না লিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিঊন।

চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার মেয়ে ফারহানা ইয়াসমিন মেডিকেলের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী। 

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি