০৬ ডিসেম্বর, ২০১৬ ০১:২২ পিএম

পাবনা মেডিকেল কলেজের ছাত্র নিখোঁজ

পাবনা মেডিকেল কলেজের ছাত্র নিখোঁজ

পাবনা মেডিকেল কলেজের ৪র্থ বর্ষের মেধাবী ছাত্র তানভির আহমেদ তনয় (২২) ৩ দিন ধরে নিখোঁজ রয়েছেন। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনও বন্ধ।

তিনি কি স্বেচ্ছায় নিখোঁজ রয়েছেন নাকি কোন চক্রের খপ্পরে পড়েছেন তা নিয়ে পুলিশও গোলক ধাঁধায়। 
  
এ ব্যাপারে পাবনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ পাবনা থানায় জিডি করেছেন। এদিকে একমাত্র ছেলের এই নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় ভেঙে পড়েছেন তনয়ের মা-বাবা। 
  

পাবনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. রিয়াজুল হক জানান, পাবনা মেডিকেল কলেজের ৬ নম্বর ব্যাচের ৪র্থ বর্ষের ছাত্র তানভির আহমেদ তনয়।

তার রোল নম্বর ৩৩। সে গত ৩০ নভেম্বর বিকাল আনুমানিক ৪টার দিকে মেডিকেল কলেজের ১ নম্বর হোষ্টেল থেকে পাবনা শহরের উদ্দেশ্যে হোস্টেল ত্যাগ করে।

এরপর থেকে তার কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। 
  
একই দিন সন্ধ্যা সাড়ে ৫টা থেকে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটিও বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। পরিবারের সাথে যোগাযোগ করলে তারা জানান, তনয় বাড়িতে যাননি। 
  
এদিকে একমাত্র ছেলের এই নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় ভেঙে পড়েছেন তনয়ের বাবা-মাতাসহ আত্মীয়-স্বজনরা।

খবর পেয়ে শুক্রবার পাবনায় ছুটে আসেন তনয়ের বাবা নুরুল আমিন সরকার। 
  

তনয়ের বাবা জানান, দুই ভাইবোনের মধ্যে তনয় বড়। তাকে নিয়ে সবার বুকভরা আশা। তার নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় সবাই এখন দিশেহারা। 
  
বাংলাদেশ মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইন্সটিটিউটের দিনাজপুর কার্যালয়ে কর্মরত নুরুল আমিন সরকার জানান, গত ৩০ নভেম্বর তনয় তার কাছে ফোনে ২০০ টাকা চায়।

এরপর পর তিনি ছেলেকে বিকাশে ৩০০ টাকা পাঠিয়ে দেন। এরপর সন্ধ্যা থেকে তার মোবাইল ফোনটিও বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। 
  
  
তিনি জানান, তাদের গ্রামের বাড়ি রংপুর শহরের শালবন মিস্ত্রি পাড়ায়। ছেলের নিখোঁজ হওয়ার খবর পেয়ে তিনি পাবনায় আসেন। 
  
পাবনা থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক জানান, মাঝে মধ্যে তনয়ের ফোনটি খোলা পাওয়া যাচ্ছে। কিন্ত ফোন করলে রিসিভ না করে সেটি বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে।

তাকে উদ্ধারের জন্য পুলিশ ব্যাপক তৎপরতা চালাচ্ছে। 
  
ওসি আরও জানান, তনয় নিজে থেকেই নিখোঁজ রয়েছেন, নাকি এর পেছনে অন্য কোনো ঘটনা আছে, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

 

সৌজন্যে : যুগান্তর। 

 

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি