ঢাকা      বৃহস্পতিবার ২২, অগাস্ট ২০১৯ - ৭, ভাদ্র, ১৪২৬ - হিজরী

দুনিয়া কাঁপানো এক মেডিকেল স্টুডেন্ট

একজন মেডিকেল স্টুডেন্ট কিভাবে সাড়া দুনিয়া কাঁপিয়ে দিতে পারে, সেটার একটা উদাহরণ দিচ্ছি।

জার্মানীর বার্লিন শহরের এক মেডিকেল স্টুডেন্ট এর কথা বলছি।

থার্ড ইয়ারে প্যাথলজি ক্লাশ শেষে যখন সবাই বাসায় ফিরে গেছে, তখন একটা ছেলেই শুধু প্যাথলজি ল্যাবে ১ ঘন্টা করে বেশী থেকে যায়।

বিভিন্ন স্লাইড নিয়ে Microscope এর নিচে কি কি যেন খুঁজে বেড়ায়।

 

একদিন সকাল বেলা সে একটা স্লাইড দেখছিল। কি যেন একটা নতুন জিনিস পেয়েছে সেই স্লাইডে।

তাই তাই বার বার ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে দেখছে।

এভাবে অনক গুলো স্লাইড দেখে, সে ঘোষনা দিল - "Pancreas এর cell গুলোর মাঝে মাঝে এমন কিছু কোষ গুচ্ছ আছে, যা সাধারন কোষ গুলো থেকে আলাদা"।

পরবর্তীতে শুরু হয় গবেষনা। সত্যি হয় ওই মেডিকেল স্টুডেন্ট এর ধারনা।

মাত্র ২২ বছর বয়সে মেডিকেল স্টুডেন্ট থাকা অবস্থায় Pancreas এর মাইক্রোস্ট্রাকচার বর্ননা করেন।

 

মাত্র ৪০ বছরের জীবনে পৃথিবীর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার করে গেছেন এই বস মেডিকেল স্টুডেন্ট।

সেই মেডিকেল স্টুডেন্ট এর নাম "পল ল্যাংগারহ্যান্স"।

তার নামানুসারেই pancreas এর বিটা সেল এরিয়াকে "Ilets of Langerhans" বলা হয়ে থাকে।

 

মজার বিষয় হলো - প্যানক্রিয়াসের এই জায়গা থেকে যে ইনসুলিন বের হয়, সেটা আবিষ্কার করেন ল্যাংগারহ্যান্স এর ছেলে Archibalt। ইনসুলিন শব্দ আসে ইনসুলা শব্দ থেকে।

ইনসুলা আসে Island বা দ্বীপ থেকে। কারন বিটা সেল দ্বীপের মতই থাকে।

 

ল্যাংগারহ্যান্স এর গবেষনার হাত ধরেই মিনস্কি আবিষ্কার করেন ইনসুলিনের "গ্লুকোজ কন্ট্রোল রুল"।

ল্যাংগারহ্যান্স এর গবেষনার হাত ধরেই অপি আবিষ্কার করেন ডায়াবেটিস রোগ হয় ইনসুলিনের অভাবে।
 

#ল্যাংগারহ্যান্স খুঁজে পায় সেল, আর আমরা খুঁজে পাই কোন স্লাইডের কোনা ভাঙা, কোনটার মধ্যে দাগ কাটা, কোনটায় নীল রং ছিটানো। ইত্যাদি ইত্যাদি।

পার্থক্য তো গোড়াতেই।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


আরো সংবাদ
























জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর