২৭ নভেম্বর, ২০১৬ ০২:১৪ পিএম

ডায়াথার্মি

ডায়াথার্মি

যে কোন বড় অপারেশনের ওটি টেবিলে অপরিহার্য একটি উপাদান ডায়াথার্মি। এর দ্বারা অনেক বড় বড় সার্জারীও সবচেয়ে কম রক্তপাত এর মাধ্যমে করা সম্ভব হচ্ছে। '

ডায়াথার্মি' শব্দের অর্থ 'বৈদ্যুতিকভাবে উৎপন্ন তাপ'। অর্থাৎ এটি উচ্চতাপ সৃষ্টি করার মাধ্যমে প্রয়োজনীয় কাজ সম্পাদন করে।

এই অসাধারণ যন্ত্রটির সাথে পৃথিবীকে প্রথম পরিচয় করিয়ে দেন স্প্যানিশ চিকিৎসক সেলেডোনিও ক্যালাটাইউড।

তিনি গাইনোকলজির একটি অপারেশনে যন্ত্রটি প্রথম ব্যবহার করেন ১৯১০ সালে।

অবশ্য তখন এর আকৃতি ছিল অনেক বড় এবং ব্যবহারও ছিল বেশ জটিল। ১৯৩৩ সালের দিকে ডায়াথার্মির বেশ উন্নতি সাধিত হয়। ব্যবহারও হয় অনেকটা সহজসাধ্য। ফলে হু হু করে বাড়তে থাকে এর জনপ্রিয়তা। 

সার্জারিতে একে ইলেকট্রোকটারিও বলা হয়ে থাকে। উচ্চ কম্পাঙ্কের বিদ্যুতের মাধ্যমে ডায়াথার্মি দুটি কাজ করে থাকে। অপারেশনের সময় শরীরের কোন অংশ কাটা, এবং ছোট ছোট রক্তনালীর রক্তপাত বন্ধ করা।

 

দুই ধরনের ডায়াথার্মি রয়েছেঃ  ১. মনোপোলার ২. বাইপোলার

মনোপোলার ডায়াথার্মিঃ এক্ষেত্রে তড়িৎবর্তনীর একটি অংশ সার্জনের হাতে থাকে এবং অন্য একটি তার রোগীর দেহের নির্দিষ্ট স্থানে যুক্ত থাকে। এখানে রোগীর দেহ বর্তনীর একটি অংশ হিসেবে কাজ করে।

বাইপোলার ডায়াথার্মিঃ নাম থেকেই বোঝা যাচ্ছে এখানে দুটি ইলেকট্রোডই সার্জনের হাতে থাকবে। এখানে বর্তনী পূর্ণ করতে রোগীর দেহে কোন তারের সংযোগের প্রয়োজন হয় না। তুলনামূলক জটিল ও সূক্ষè সার্জারিগুলোতে এই পদ্ধতি ব্যবহৃত হয়।

ফিজিওথেরাপিতেও ডায়াথার্মির ব্যবহার আছে। কিন্তু এখানে যন্ত্রের ধরণ কিছুটা ভিন্ন। তিন ধরণের ডায়াথার্মি এখানে ব্যবহৃত হয়।

১. শর্ট ওয়েভ ডায়াথার্মি

২. মাইক্রোওয়েভ ডায়াথার্মি

৩. আল্ট্রাসাউন্ড ডায়াথার্মি

 

এদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় মাইক্রোওয়েভ ডায়াথার্মি।

কারণ এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সবচেয়ে কম, শরীরের প্রায় সব জায়গায় ব্যবহার করা যায় এবং ব্যবহারও তুলনামূলক সহজ।

আল্ট্রাসাউন্ড ডায়াথার্মির ক্ষেত্রে দৃশ্যপট সম্পূর্ণ বিপরীত। শর্টওয়েভ ডায়াথার্মির ব্যবহার তুলনামূলক সীমিত।

ফিজিওথেরাপিতে এর ব্যবহারের মাধ্যমে করে শরীরের নির্দিষ্ট জায়গায় রক্ত প্রবাহ বৃদ্ধি, পরিপাক বৃদ্ধি ও কোষের মধ্যে আয়ন আদান প্রদান বাড়ানো যায়।

এছাড়াও মাংস পেশীর জড়তা ও অস্থিসন্ধির অনমনীয়তার চিকিৎসায় ডায়াথার্মি অসাধারণ কাজ করে।

এছাড়াও হাইপারথার্মিয়া বা উচ্চ তাপ এর মাধ্যমে প্রচলিত রেডিওথেরাপির সাথে ব্যবহার করে অনেক টিউমারের চিকিৎসা করা হচ্ছে।

বর্তমানে ফিজিক্যাল মেডিসিন ও স্পোর্টস ট্রমাটোলোজিতে পেইন রিলিভার বা ব্যাথানাশক হিসেবে ডায়াথার্মির ব্যবহার প্রচুর।

 

কিছু সতর্কতা:

যেহেতু ডায়াথার্মি একটি উচ্চ তড়িৎ বিভব সম্পন্ন যন্ত্র। তাই এটি ব্যবহারে খুব সতর্ক থাকা উচিত।

না হলে মাংসপেশি, রক্তনালী, স্নায়ুর বড় রকমের ক্ষতি হবার ঝুঁকি থাকে। ডায়াথার্মি থেকে উৎপন্ন ধোঁয়া সার্জন এবং ওটি স্টাফদের জন্য ক্ষতিকর ।

 

লেখক : মাহফুজুর রহমান : (ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ)

 

(প্রকাশিত :  সংখ্যা : ৪; বর্ষ ২; জানুয়ারী-ফেব্রুয়ারী ২০১৫) 

 

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত