০১ জানুয়ারী, ২০২২ ১১:১৯ এএম

কোর্সআউট প্রথা বাতিল দাবিতে বিএসএমএমইউ ভিসির কাছে খোলা চিঠি

কোর্সআউট প্রথা বাতিল দাবিতে বিএসএমএমইউ ভিসির কাছে খোলা চিঠি
বিএসএমএমইউ ভিসি অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদের কাছে লেখা এক খোলা চিঠিতে এ আহ্বান জানান তারা।

মেডিভয়েস রিপোর্ট: কোর্সআউট প্রথা বাতিল ও কোর্সের নীতিমালা সংস্কার করে ছিটকেপড়া শিক্ষার্থীদের পুনরায় অধ্যয়নের সুযোগ প্রদানের আহ্বান জানিয়েছে চিকিৎসকদের সংগঠন বাংলাদেশ ডক্টরস’ ফাউন্ডেশন (বিডিএফ) ও শিক্ষার্থীরা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ভাইস-চ্যান্সেলর (ভিসি) অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদের কাছে লেখা এক খোলা চিঠিতে এ আহ্বান জানান তারা।

মেডিভয়েস পাঠকদের জন্য চিঠিটি হুবহু তুলে ধরা হলো।

জনাব,

আমরা নিম্নস্বাক্ষরকারী শিক্ষার্থীবৃন্দ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) অধীনে বিভিন্ন ইনস্টিটিউটে বিভিন্ন শিক্ষাবর্ষে স্নাতকোত্তর কোর্সে ভর্তি হই। ভর্তির পরবর্তী আমরা নিয়মিত পড়াশোনা চালিয়ে যাই এবং পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করি। কেউ কেউ ৩ বছর, ৬ বছর, ৮ বছর কিছু কোর্সে অধ্যায়ন করি এবং সঙ্গে ৩/৪ বছর বিষয়ভিত্তিক ট্রেনিং সম্পন্ন করি। এভাবে একটি কোর্সের জন্য জীবনের অনেকগুলো বছর অতিবাহিত করার পর শেষবার পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে কিছু মার্কেট ব্যবধানে লিখিত/মৌখিক পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়ে কোর্সআউট হয়ে যাই। এতে করে আমাদের জীবনে অন্ধকার নেমে আসে। ব্যক্তি, পারিবারিক ও সামাজিক জীবনে নেমে এসেছে হতাশা। 

এ সময়ে মান্যবর আপনাকে পেয়ে আমাদের বুকে আশার আলো উদিত হয়েছে। আপনি এরইমধ্যে কোর্সআউট হওয়া শিক্ষার্থীদের একবার পুনরায় পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দিয়েছেন। আপনার মতো শিক্ষার্থীবান্ধব ভাইস চ্যান্সেলর পেয়ে আমরা আমাদের সৌভাগ্যবান মনে করছি। 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে একটি কোর্সে চান্স পাওয়া কতটা কঠিন, আপনি সেটা অবগত। একটা কোর্স একজন শিক্ষার্থীর জীবন ও মরণ। কোর্সআউট হওয়া সরকারি চিকিৎসকদের ক্লিনিক্যাল প্রমোশন চিরদিনের জন্য বন্ধ হয়ে যায়। সরকারি অর্থ ও সময়ের অপব্যয় হয়। উপজেলা হাসপাতালগুলোতে বিষয়ভিত্তিক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের তীব্র সংকট সাথে সরকারি মেডিকেলে রয়েছে শিক্ষক সংকট। এছাড়াও সরকারি দায়িত্ব পালন বা শারীরিক অসুস্থতার জন্য অনেকে পরীক্ষায় বসতে পারেন না, কিন্তু নিয়মে যাঁতাকলে পড়ে তাদের কোর্সআউট হতে হয়, যা অমানবিক ও অগ্রহণযোগ্য। 

দীর্ঘ সময় একটি করছে অধ্যায়নের পর অনাকাঙ্ক্ষিত যেকোনো কারণে কোর্স থেকে আউট হয়ে গেলে সেই চিকিৎসকের জীবনে নেমে আসে বিভীষিকা। এই বিভীষিকাময় জীবন থেকে উত্তরণের জন্য আপনি একমাত্র ভরসার প্রতীক।

অতএব, মহোদয়ের নিকট বিনীত প্রার্থনা এই যে, মানবিক দিক বিবেচনা করে শত শত শিক্ষার্থীর জীবন রক্ষার্থে স্নাতকোত্তর কোর্সআউট প্রথা বাতিল এবং কোর্সের নীতিমালার সংস্কারপূর্বক আউট হওয়া শিক্ষার্থীদের কোর্সে ফিরিয়ে দিয়ে পুনরায় অধ্যায়নের সুযোগ প্রদানের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের আকুল আহ্বান জানাচ্ছি। 

বিনীত নিবেদক

আপনার অনুগত 

বাংলাদেশ ডক্টরস’ ফাউন্ডেশন ও শিক্ষার্থীবৃন্দ। 

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত