২৫ ডিসেম্বর, ২০২১ ০৩:৪০ পিএম

দগ্ধদের চিকিৎসায় যুক্ত সাত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক

দগ্ধদের চিকিৎসায় যুক্ত সাত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক
আজ শনিবার (২৫ ডিসেম্বর) সকাল থেকে দগ্ধ রোগীদের চিকিৎসা সেবা শুরু করেন তাঁরা।

মেডিভয়েস রিপোর্ট: ঝালকাঠিতে লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধদের চিকিৎসায় বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে যোগদান করেছেন ঢাকার ৭ জন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক। শুক্রবার (২৪ ডিসেম্বর) রাতে তারা বরিশাল এসে পৌঁছেন।

আজ শনিবার (২৫ ডিসেম্বর) সকাল থেকে দগ্ধ রোগীদের চিকিৎসা সেবা শুরু করেন তারা। এই দলের নেতৃত্বে রয়েছেন শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের সহকারী অধ্যাপক ডা. নুরুল আলম। সহযোগী হিসেবে রয়েছেন একই ইনস্টিটিউটের সহকারী অধ্যাপক ডা. মাসরুর উর রহমান, রেজিস্ট্রার ডা. মোরশেদ কামাল, ফেস-‘বি’র রেসিডেন্ট ডা. মৃদুল কান্তি সরকার, ডা. শাওন বিন রহমান এবং ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. আল মোনতাসির বিল্লাহ ও ডা. ইসতিয়াক সুলতান।

হাসপাতালের পরিচালক কার্যালয় সূত্র জানায়, গত শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে শনিবার সকাল ১০টা পর্যন্ত লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধ ৮১ জনকে এ ঘটনায় শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর মধ্যে গুরুতর ১৯ জনকে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়, যার মথ্যে পথিমধ্যে একজন শিশু মারা যায়। গত ২৪ ঘণ্টায় চিকিৎসায় কিছুটা সুস্থ হয়ে ১৬ জন রোগী বাড়ি ফিরে গেছেন। সকাল পর্যন্ত শেবাচিমে চিকিৎসাধীন ছিল ৪৬ জন দগ্ধ রোগী। তাদের মধ্যে আশঙ্কাজনক ৩ জন আইসিইউতে, হাত-পা ভেঙে যাওয়া ৫ জন অর্থপেডিক্স বিভাগে, ৫ জন শিশুসহ ৩৮ জন সার্জারি বিভাগের অধীনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ঢাকা থেকে আগত চিকিৎসক দলের প্রধান সহকারী অধ্যাপক ডা. নুরুল আলম চিকিৎসাধীন রোগীদের পর্যবেক্ষণ শেষে বলেন, ‌‌‘যাদের প্রয়োজন তাদের আজই অপারেশন করার উদ্যোগ নেওয়া হবে। অপারেশন থিয়েটার প্রস্তুত রাখতে হবে। এখানে প্লাস্টিক সার্জারিও করা সম্ভব। যাদের অপারেশন এখানে সম্ভব না, তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করা হবে।’

হাসপাতালে পরিচালক ডা. এইচএম সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘লঞ্চে অগ্নিদগ্ধদের চিকিৎসায় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নির্দেশে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট থেকে ৫ জন এবং ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে ২ জন চিকিৎসক বরিশাল এসেছেন। তারা চিকিৎসা সেবা শুরু করেছেন। তাদের সব ধরনের সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা আসায় দগ্ধ রোগীদের উন্নত মানের চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব হচ্ছে।’

এদিকে ওই অগ্নিকাণ্ডে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪১-এ পৌঁছেছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সিনিয়র সচিব লোকমান হোসেন মিয়া।

সকালে ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা শেষে পরিচয়হীন ২৭ জনের মরদেহ বরগুনার পোটকাখালী গণকবরে দাফন করা হয়। এ ছাড়া পরিচয় শনাক্ত হওয়া ১০ জনের মরদেহ নিজ নিজ স্বজনরা নিয়ে বাড়িতে দাফন করেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন বরগুনার জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান।

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি