১৫ ডিসেম্বর, ২০২১ ০৫:২১ পিএম

করোনা আক্রান্ত ৭৯ ভাগ মায়ের অপরিণত সন্তান প্রসব: নিপসমের গবেষণা

করোনা আক্রান্ত ৭৯ ভাগ মায়ের অপরিণত সন্তান প্রসব: নিপসমের গবেষণা
করোনায় আক্রান্ত প্রায় ৭৯ শতাংশ মা অপরিণত সন্তান প্রসব করেছেন। ছবি: সংগৃহীত

মেডিভয়েস রিপোর্ট: করোনায় আক্রান্ত ৭৮ দশমিক ৭৯ শতাংশ মা অপরিণত সন্তান প্রসব করেছেন। করোনায় আক্রান্ত হননি এমন গর্ভবতী নারীর তুলনায় এই ভাইরাসে আক্রান্ত গর্ভবতী নারীদের প্রায় অর্ধেকের মাতৃত্বজনিত বিভিন্ন প্রতিক্রিয়া দেখা গিয়েছে। 

মঙ্গলবার ( ১৪ ডিসেম্বর) জাতীয় প্রতিষেধক ও সামাজিক চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান (নিপসম) অডিটোরিয়ামে ‘বাংলাদেশে মহামারিকালে গর্ভধারণকারী নারীদের মাতৃত্ব এবং প্রসূত শিশুর পরিণতির সঙ্গে কোভিড-১৯ রোগের সম্পর্ক’ শীর্ষক গবেষণার ফলাফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে এ তথ্য দেওয়া হয়।

ফলাফল উপস্থাপনা করেন জাতীয় প্রতিষেধক ও সামাজিক চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান (নিপসম‌‍'র) পরিচালক অধ্যাপক ডা. বায়েজীদ খুরশীদ রিয়াজ। 

চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত ৮৯০ জন নারীকে নিয়ে পরিচালিত ঢাকার চারটি সরকারি ও একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হওয়া গর্ভবতী নারীদের অতীত রেকর্ড এবং তাদের সঙ্গে ফোনে কথা বলে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে এ ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে।

অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ৫৪ শতাংশের বয় ২৫ থেকে ৩৪ বছর। সাত শতাংশের বয়স ৩৫ থেকে ৪৫ বছর। ৩৯ শতাংশের বয়স ১৫ থেকে ২৪ বছর।

অধ্যাপক ডা. বায়েজীদ খুরশীদ রিয়াজ জানান, এ গবেষণায় দেখা গেছে গর্ভকালীন সময়ে করোনায় যারা আক্রান্ত হয়েছেন তাদের ৫৪ শতাংশের স্বাভাবিকভাবে সন্তান প্রসব হয়েছে। বাকি ৪৬ শতাংশের নানা ধরনের বিরূপ প্রতিক্রিয়া হয়েছে। আর এই বিরূপ প্রতিক্রিয়ার মধ্যে রয়েছে প্রিটার্ম ডেলিভারি অর্থাৎ ৩৭ সপ্তাহের আগে সন্তান প্রসব হয়েছে ৭৮ দশমিক ৭৯ শতাংশ, গর্ভে থাকা অবস্থায় সন্তানের মৃত্যু ১৫ দশমিক ১৫ শতাংশ আর জরায়ুর বাইরে গর্ভধারণ হয়েছে চার দশমিক চার শতাংশের।

গবেষণার ফলাফলে আরও পাওয়া গেছে, করোনায় আক্রান্ত হওয়া গর্ভবতীদের ৮৩ শতাংশের প্রসব সম্পন্ন হয়েছে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে। আর করোনাতে আক্রান্ত হননি তাদের তুলনায় আক্রান্তদের ঝুঁকি ছিল এক দশমিক দুই শতাংশ। নন কোভিড গর্ভবতী নারীদের অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে প্রসব হয়েছে ৬৮ শতাংশের। গবেষণাতে আরও পাওয়া গেছে, করোনায় আক্রান্ত গর্ভবতীদের প্রসবজনিত জটিলতা অন্যদের তুলনায় ছিল এক দশমিক পাঁচ গুণ। সেইসঙ্গে করোনায় আক্রান্ত গর্ভবতীদের শূন্য দশমিক পাঁচ শতাংশের মৃত্যু হয়েছে।

গবেষণার ফলাফলে বলা হয়, আক্রান্ত নারীদের ৯১ দশমিক দুই শতাংশের করোনার লক্ষণ উপসর্গ ছিল, বাকি আট দশমিক চার শতাংশের কোনও লক্ষণ বা উপসর্গ ছিল না।

অধ্যাপক ডা. বায়েজীদ খুরশীদ রিয়াজ আরো জানান, এই গবেষণা দলে তিনি ছিলেন প্রধান গবেষক। তার সঙ্গে ছিলেন প্রতিষ্ঠানের রোগতত্ত্ব বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. ফাহমিদা আক্তার, পাবলিক হেলথ অ্যান্ড হসপিটাল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন বিভাগের ডা. মোহাম্মদ আশরাফুল আলম, কমিউনিটি মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ রাশিদুল আলম, নবজাতক ডা. উম্মুল খায়ের আলম, পাবলিক হেলথ অ্যান্ড হসপিটাল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন বিভাগের ডা. কামরুন্নাহার এবং ডা. আজমেরি শারমিন।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সিনিয়র সচিব লোকমান হোসেন মিঞা, স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক ( প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবীর, ওজিএসবি-(অবস্ট্রেটিক্যাল অ্যান্ড গাইনোকোলজিক্যাল সোসাইটি অব বাংলাদেশ হাসপাতাল) এর সাবেক দুই সভাপতি অধ্যাপক ডা. রওশন আরা ও অধ্যাপক ডা. সামিনা চৌধুরী।


 

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে