২৬ নভেম্বর, ২০১৬ ১০:২১ এএম

নতুন পোশাকে আপত্তি নার্সদের

নতুন পোশাকে আপত্তি নার্সদের

আপনিই বলেন, চল্লিশ বছর বয়সী নার্সদেরকে কি শার্ট-প্যান্ট পড়ে শত শত রোগীর সামনে ঘুরে বেড়ানো শোভা পাবে? উঠতি বয়সের নার্সরা শার্ট-প্যান্ট পড়ে কি সাবলিলভাবে রোগীর সেবা দিতে পারবে? আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে এর উত্তর অবশ্যই না। 

রাজধানীর একটি বৃহৎ সরকারি হাসপাতালের কয়েকজন নারী নার্স নতুন পোশাক সম্পর্কে আপত্তি তুলে ক্ষুব্দ কন্ঠে এভাবেই প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছিলেন। সালোয়ার কামিজের বদলে শুধু শার্ট প্যান্ট নয়, জলপাই রংয়ের পোশাক নির্বাচন  নিয়েও তারা খুবই অখুশি। 

শুক্রবার সকালে জাগো নিউজের এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে একাধিক নার্স বলেন, জলপাই রংয়ের যে পোশাকটি তাদের জন্য নির্বাচন করা হয়েছে তা আনসার বাহিনীর পোশাকের সঙ্গে মিলে গেছে। তাছাড়া সাদা পোশাকে নার্সদের যেভাবে মানাতো জলপাই রংয়ের পোশাকে সেভাবে মানাবে না। 

নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদফতরের প্রস্তাবনা অনুযায়ী গত ২১ নভেম্বর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক প্রশাসনিক আদেশে নার্সদের ইউনিফর্মে এ পরিবর্তন আনা হয়। একইসঙ্গে সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে শিগগিরই নতুন পোশাক (ইউনিফর্ম) চালু করতে বলা হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নার্সদের জলপাই রংয়ের পোশাক ও ছেলে মেয়ে উভয় (পদপদবিভেদে শাড়িও রয়েছে) নার্সের শার্ট প্যান্ট নিয়ে আপত্তি তুলে সমালোচনার ঝড় বইছে। প্রকাশ্যে এখনও কিছু না বললেও সরকারি বিভিন্ন হাসপাতালে নতুন পোশাক নিয়ে চাপ ক্ষোভ বিরাজ করছে। 

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একাধিক দায়িত্বশীল নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে নার্সদের আধুনিক করে গড়ে তুলতে নতুন পোশাক বিশেষ করে শার্ট ও প্যান্টের প্রচলন করা হচ্ছে। 


নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, শাড়ি পড়ে নার্সদের ডিউটি করতে অনেক সমস্যা হতো। অনেকে শাড়িও ঠিকমতো পড়তে পারতো না। শাড়ির সঙ্গে স্ক্যার্ফসহ অন্যান্য বাড়তি পোশাক পড়তে সময়ও বেশি লাগে। এ সব ঝামেলা থেকে তাদের রেহাই দেয়ার পাশাপাশি চলনে বলনে স্মার্ট করে তুলতে এ পোশাক প্রবর্তন করা হচ্ছে। 

জলপাই রংয়ের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সাদা কাপড় দ্রুত ময়লা হয়। অনেকে ঠিকমতো সাদা পোশাক পরিস্কার না করায় সমস্যা হতো। এ কারণে অপেক্ষাকৃত ময়লা কম হয় এমন পোশাক দেয়া হয়েছে। 

বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালের একাধিক নার্স জানান, নার্সেস ঐক্য পরিষদ এ পোশাক বাছাইয়ের আগে বেশ কিছু নতুন পোশাকের নমুনা জমা দিলেও সেগুলো আমলে নেয়া হয়নি।

নার্সিং অ্যান্ড মিডওয়াইফারি অধিদফতরের মহাপরিচালক ডা. কাজী মোস্তফা সারওয়ারের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি আগামী রোববার যোগাযোগের পরামর্শ দিয়ে বলেন, কাগজপত্র দেখে পোশাক পরিবর্তন কেন করা হয়েছে তা বলতে পারবেন। 

সৌজন্যে: জাগো নিউজ 

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত