০৫ ডিসেম্বর, ২০২১ ০৯:৫৩ পিএম

স্বল্পতম সময়ে স্বাস্থ্যখাতে ৪১ জনবল নিয়োগ

স্বল্পতম সময়ে স্বাস্থ্যখাতে ৪১ জনবল নিয়োগ
স্বল্পতম সময়ে স্বাস্থ্যখাতে জনবল নিয়োগের দৃষ্টান্ত স্থাপন। ছবি: সংগৃহীত

মেডিভয়েস রিপোর্ট: করোনা মহামারী মোকাবিলায় স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের মাধ্যমে দ্রুততম সময়ে দুই ধাপে মোট ৪১ জনকে নিয়োগ দিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। ১১, ১২, ১৩, ১৬ ও ২০তম গ্রেডের বিভিন্ন পদে এসব নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে।

আজ রোববার (৫ ডিসেম্বর) স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ তথ্য কর্মকর্তা মাইদুল ইসলাম প্রধান স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জনানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, করোনাভাইরাস মহামারীর চলমান অবস্থায় স্বল্পতম সময়ে লিখিত, ব্যবহারিক ও মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণ ও চূড়ান্ত ফলাফল প্রদান করার মাধ্যমে দুই ধাপে ১১, ১২, ১৩, ১৬ ও ২০তম গ্রেডের বিভিন্ন পদে ৪১ জন লোক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এমন নিয়োগে পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকগণ সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। 

নিয়োগের বিস্তারিত তুলে ধরে বলা হয়, গত ২৮ জানুয়ারি দেশের দুইটি শীর্ষ পত্রিকায় বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে মোট ৪১টি পদের বিপরীতে নিয়োগ সংক্রান্ত বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়। সেখানে মোট ২২ হাজার ৪৩২ জন প্রার্থী আবেদন করেন। এর মধ্যে গত ১৯ নভেম্বর প্রথম ধাপে লিখিত পরীক্ষায় দুই হাজর ১৪৯ জন প্রার্থী অংশ নেয়। এরপর ২৪ নভেম্বর লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের ব্যবহারিক ও একই দিনে ভাইভা পরীক্ষা নেওয়া হয়। গত ২৪ নভেম্বর সব পরীক্ষা গ্রহণ শেষে একই দিনে মোট ২০ জনকে চূড়ান্ত করে উপস্থিত প্রার্থী ও অভিভাবকদের সামনেই চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা করা হয়।

অপরদিকে দ্বিতীয় ধাপে, গত ৩ ডিসেম্বর একই নিয়োগের ২০তম গ্রেডের আরও ৩ হাজার ২৪৮ জন প্রার্থী লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেন। একই দিনে লিখিত পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করা হয়। এরপর ৪ ডিসেম্বর লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণ শেষে একই দিনে মোট ২১ জন প্রার্থীকে চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত করা হয়। 

এ সময় সেখানে উপস্থিত প্রার্থীগণ করতালির মাধ্যমে এই নিয়োগের প্রশংসা করেন। একই সঙ্গে স্বল্প সময়ে এই নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ায় পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকগণ সন্তোষ প্রকাশ করেছেন বলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে। 

স্বল্পতম সময়ে এই নিয়োগ কার্যক্রম সফলভাবে সম্পন্ন করায় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের প্রশংসা করে এই নিয়োগ কার্যক্রমকে একটি দৃষ্টান্ত হিসেবে উল্লেখ করেন স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সিনিয়র সচিব লোকমান হোসেন মিয়া।

তিনি বলেন, ‘এত অল্প সময়ে এবং কোভিড মহামারী চলাকালীন এ রকম একটি নিয়োগ দেওয়া ছিল একটি বিরাট চ্যালেঞ্জ। এই কার্যক্রমকে আমাদের জন্য একটি দৃষ্টান্ত হিসেবে মনে রাখতে হবে।’ 

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি