ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯, ৮ কার্তিক ১৪২৬,    আপডেট ৬ ঘন্টা আগে
ডা. মোবাশ্বের আহমেদ নোমান

ডা. মোবাশ্বের আহমেদ নোমান

অ্যাসিস্টেন্ট রেজিস্ট্রার, সার্জারি, 

রংপুর আর্মি মেডিকেল কলেজ। 


২৩ নভেম্বর, ২০১৬ ১৮:১৬

খা বাংগালী ঔষধ খা

খা বাংগালী ঔষধ খা

গতকাল পাশের বাড়ির একজন খুউব জরুরি করে ডাকল।

ভাবলাম বেচারা এই সাত সকালে নিশ্চয়ই খুউব বড় কোন সমস্যায় পড়েছে।

তাড়াতাড়ি লুংগী পড়েই দৌড় দিলাম 

যাওয়ার পর বলল ডাক্তার দেখিয়ে আসলাম একটু প্রেসক্রিপশন টা দেখে দিবেন ঠিক আছে কিনা ? 

একটু ইজি হলাম যাক তাহলে বড় কোন সমস্যা নয়।

বললাম আচ্ছা আনেন।

উনি প্রেসক্রিপশন এবং সাথে প্রায় বড় পলি ব্যাগের এক ব্যাগ ঔষধ নিয়ে হাজির হলেন।

মুখে হাসি হাসি ভাব। জানেন গতকাল এক ডোজ খেয়েই সমস্যা অনেক কমে গেছে।

আলহামদুলিল্লাহ বলে প্রেসক্রিপশন হাতে নিলাম। দেখি প্রত্যেক ঔষধের পাশে সিরিয়াল দেয়া সর্বমোট ১২ ধরনের ঔষধ!

আবার দেখি এর মধ্যে তিনটি কম্বাইন্ড ড্রাগ! মানে একের ভিতর দুই।

সংগে সংগে প্রেসক্রিপশন এর ডান কোনায় তাকালাম।

দেখলাম লিখা ডা:........ প্যারামেডিকেল অভিজ্ঞ ইন মা শিশু সহ প্রায় সর্বরোগের 

আমার অবাক হওয়া ভাব দেখে উনি বেশ মজা পেয়েছেন।

ডাক্তারের গুণগান গাচ্ছেন। জানেন এক ডোজেই অর্ধেক কমে......

বললাম হুম। প্রেসক্রিপশন অনেক ভালো। এই প্রেসক্রিপশন যত্ন করে রেখে দিবেন।

আর আপনার পরিবারের যে কারো কোন সমস্যা হলেই এই প্রেসক্রিপশন এর ঔষধ খাওয়াবেন দেখবেন ভালো হয়ে গেছে 

বলল বলেন কি?

হ্যাঁ। আপনাকে এক নম্বরে দিছে মন্টিলুকাস্ট সুতরাং কাশি থাকলে ভালো হবে।

বলল হ্যাঁ চেম্বারে দুই একবার হঠাৎ কাশি এসেছিল কিন্তু এটা তো সমস্যা নয়। আর কখনো কাশি আসেনি।

বললাম আপনার সমস্যা কোনটা আর কোনটা নয়- এটা আপনার ডাক্তারের চেয়ে বেশি বুঝবেন না! ওকে?

দুই নম্বরে দিছে ন্যাপরোক্সেন আর ইসমোপ্রাজলের কম্বিনেশন।

সুতরাং যে ব্যথাই হোক আর যার ব্যাথাই হোক এই স্ট্রং পেইনকিলারে যাবে না এটা হতেই পারে না !

তবে এটার একটা ছোট সমস্যা আছে !

বলল কি?

বললাম অযৌক্তিক ব্যবহারে কিডনী নষ্ট হয়। তবে এটা তো বড় সমস্যা নয়।

কিডনী নষ্ট হলে আপনার বড় ভাইয়ে মত ডায়ালাইসিস করবেন। এটা কি আর বড় সমস্যা বলেন?

তিন নম্বরে দিছে ক্যালসিয়াম ট্যাবলেট।

আপনার হাড় কেন পরিবারের সবাই খেলে সবার হাড়ই শক্ত করবে।

এটার সাথে আবার ভিটামিন ডি থ্রি কম্বাইন্ড করা আছে।

সুতরাং এটা ভালো তবে পায়খানা টাইট হতে পারে আর কি!

বলল আমার তো এমনি পায়খানা টাইট। রক্ত বেরোয় চাপ দিলে।

বললাম সেটা কি আর আপনার ডাক্তার বুঝেনা !

দেখেন না ৪ নম্বরেই দিছে ডমপিরিডন। এটা আপনার পায়খানা নরম করবেই কোন টেনশন নাই!

কি বলেন ? একটা শক্ত করবে আর একটা নরম !

গম্ভীর গলায় বললাম হুম !

৫ নম্বর টা দেখেন স্টেরয়েড।

বিশ্বাস করেন আর না করেন-- এটা আইয়ুর্বেদিক সালসার প্রচারনার মত সর্বরোগের ঔষধ।

ব্যাথাতে তো তুলনাই নাই।

বেচারার আগ্রহ একটু কমে গেছে। তবুও বলল ওটার দাম খুউব কম তাই বেশী করে আনছি।

বললাম খুউব ভালো তবে একটা সমস্যা আছে।

প্রথমে একটা ট্যাবলেট-এ বললাম না- কিডনী নষ্ট করে । ওটার চেয়েও কয়েকগুন বেশি কিডনি নষ্ট করে এটা।

আর দুইটা একত্রে হলে তো সোনায় সোহাগা। তবে এক ডোজেই ব্যাথা অর্ধেক কমবে নিশ্চিত....

আর ছয় নম্বরে.....

থামেন থামেন আর না।

ওনার বৌ ইতিমধ্যে এসে গেছে।

বলল একটু ঔষধগুলো চেক করে দেখেন তো আর কোনটা কখন ? 

ভদ্রলোক তাড়াতাড়ি বলে উঠল থাক থাক....

বললাম আরে না। দিন দেখি।

এম্নিতেই প্রত্যেকটা ঔষধ সার্চ দিয়ে দিয়ে দেখেছি।

কারন প্রেসক্রিপশন এর প্রায় কোনটাই চিনি না।

কোনটা টেকনো কোম্পানীর। কোনটা আবার শরীফ কোম্পানির। কোনটা কেমিস্ট ফার্মা। আরো হাবিজাবি ..... চিনি না।

একটা চিনছিলাম আদ দ্বীনের......

ঔষধের বাক্সটা নিয়ে বললাম- এটা খাওয়ার আগে তিনবেলা এটা খাওয়ার পরে দুই বেলা।

এটা খাওয়ার আগে এটা পরে

এটা পরে এটা আগে

এটা আগে বা পরে যে ক্যন সময় তিনবেলা

এটা দুইবেলা- এটা তিনবেলা

এটা রাতে ঘুমানোর আগে

এটা ঘুম থেকে উঠার পরে.....

সব এক নিঃশ্বাসে বলার পরে যখন উঠে আসছিলাম.. তখন দেখি বেচারা হাঁ করে বসে আছে।

বললাম এখন সকাল বেলা। সকাল বেলার ছয়টা মনে আছে তো ?

আর দেরী করলাম না।

মনে মনে ববললাম। চালের দাম অনেক বেশী। এখন ভাতের বদলে আলু নয়--  বেশী করে ঔষধ খান !

খা বাংগালী ঔষধ খা

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত