৩০ অক্টোবর, ২০২১ ০৬:৩০ পিএম

চমেকে সংঘর্ষ: ক্যাম্পাস ও হোস্টেল বন্ধসহ পাঁচ সিদ্ধান্ত

চমেকে সংঘর্ষ: ক্যাম্পাস ও হোস্টেল বন্ধসহ পাঁচ সিদ্ধান্ত
মেডিকেল কলেজের একাডেমিক কাউন্সিলের জরুরি সভায় সর্বসম্মতিতে কলেজ বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ফাইল ছবি

মেডিভয়েস রিপোর্ট: চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের (চমেক) ছাত্রাবাসে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের জেরে সকল শিক্ষা কার্যক্রম ও হোস্টেল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। মেডিকেল কলেজের একাডেমিক কাউন্সিলের জরুরি সভায় সর্বসম্মতিক্রমে ক্যাম্পাস বন্ধসহ মোট পাঁচটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

আজ শনিবার (৩০ অক্টোবর) চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. সাহেনা আক্তার স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জনানো হয়েছে। 

এতে বলা হয়, ‘২৯ অক্টোবর দিবাগত রাত, আনুমানিক রাত সাড়ে ১২টায় প্রধান পুরুষ ছাত্রাবাসে কলেজের ২টি ছাত্র সংগঠনের মধ্যে সংঘর্ষের পরিপ্রেক্ষিতে কলেজ ও হোস্টেল ক্যাম্পাসে চরম উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এ প্রেক্ষিতে তাক্ষণিকভাবে একাডেমিক কাউন্সিলের এক জরুরি সভা, অধ্যাপক ডা. সাহেনা আক্তারের সভাপতিত্বে চমেকের নতুন একাডেমিক ভবনের সেমিনার হলে অনুষ্ঠিত হয়।’ 

এতে আরও বলা হয়, সভায় ছাত্রাবাসে সংঘটিত ঘটনাসমূহ আলোচনা ও পৰ্যালোচনা করা হয়। বর্তমানে নিউরোসার্জারি বিভাগে ভর্তিরত তিন জন শিক্ষার্থীর মধ্যে চিকিৎসারত একজন ছাত্রের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় এবং কলেজ ক্যাম্পাস ও ছাত্রাবাসের পরিস্থিতি অনুকূলে না থাকায় উপস্থিত সম্মানিত সদস্য-সদস্যাবৃন্দ সর্বসম্মতিক্রমে বিজ্ঞপ্তিতে লিখিত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন।

সিদ্ধান্তসমূহ হলো

১. পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত হাসপাতালের ওয়ার্ড ডিউটিসহ (এমবিবিএস ও বিডিএস কোর্সের ছাত্র-ছাত্রীদের) কলেজ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হলো। 

২. ৩০ অক্টোবর বিকাল ৫টার মধ্যে সকল ছাত্রাবাস-ছাত্রীনিবাসে অবস্থানরত ছাত্র-ছাত্রীদেরকে হোস্টেল সিট ত্যাগ করার নির্দেশ দেওয়া হলো। শুধুমাত্র বিদেশী ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ স্ব স্ব পরিচয়পত্র সঙ্গে রেখে তাহাদের নির্দিষ্ট ব্লকে অবস্থান করতে পারবে।

৩. বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকোত্তর চলমান সকল পেশাগত পরীক্ষা আপাতত স্থগিত করা হলো। পুনর্নির্ধারিত পরীক্ষার তারিখ ও সময় যথাসময়ে শিক্ষার্থীদের জানানো হবে। 

৪. কলেজ না খোলা পর্যন্ত সাধারণ শিক্ষার্থীরা অযথা কলেজ ও হাসপাতাল ক্যাম্পাসে অবস্থান করতে পারবে না। অন্যথায় এর দায়-দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট ছাত্র-ছাত্রীকে গ্রহণ করতে হবে। 

৫. পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত ক্যাম্পাসে পুলিশ প্রশাসনের উপর দায়িত্ব প্রদান করা হলো। পরিস্থিতি অনুকুলে আনার জন্য পুলিশ প্রয়োজনে যে কোন সময়, যেকোন ছাত্রকে বা তার কক্ষ তল্লাশি করতে পারবে। এর জন্য কর্তৃপক্ষের পূর্বানুমতির প্রয়োজন হবে না। 

►বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে ক্লিক করুন

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি