০৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০২:৫১ পিএম

২০১৯ সেশনের নন-রেসিডেন্টদের ভাতা প্রদানের দাবি

২০১৯ সেশনের নন-রেসিডেন্টদের ভাতা প্রদানের দাবি
প্রতীকী ছবি

মেডিভয়েস রিপোর্ট: ভাতা প্রদানের দাবি জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) ও এর অধিভুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর ডিপ্লোমা-এমফিল (নন-রেসিডেন্সি) কোর্সে অধ্যয়নরত ২০১৯-২০২০ সেশনের নন-রেসিডেন্ট চিকিৎসকরা। গত ৩১ আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর (ভিসি) কাছে দেওয়া এক আবেদনপত্রে এ দাবি জানান তারা।

ভাতা চালুর হওয়ার প্রেক্ষাপট তুলে ধরে ওই আবেদনে বলা হয়েছে, নন-রেসিডেন্ট চিকিৎসকদের কোনো সম্মানি না পাওয়ার বিষয়টি গত বছর জানতে পারেন তৎকালীন স্বাস্থ্য সেবা সচিব মো. আব্দুল মান্নান। এর পর ওই বছরের মে/জুন মাসের দিকে বিসএমএমইউ কর্তৃপক্ষকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে জমা দিতে বলেন তিনি। 

এর পর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সদিচ্ছা এবং চেষ্টায় একই বছরের ২১ সেপ্টেম্বর সিন্ডিকেট মিটিংয়ে নন-রেসিডেন্সি কোর্সে অধ্যয়নরত চিকিৎসকদের ভাতা প্রদানের প্রস্তাব গৃহীত হয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ওই সময় অধ্যয়নরত সকল নতুন ও পুরাতন (২০২০-২০২১ ও ২০১৯-২০২০ সেশন) নন-রেসিডেন্ট চিকিৎসকদের ভাতা পাওয়ার কথা। কিন্তু কোনো কারণে ওই ভাতা প্রদানে দীর্ঘসূত্রতা দেখা দেয়।

গত ১৯ আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল হান্নান স্বাক্ষরিত এক আদেশে নন-রেসিডেন্সি কোর্সে অধ্যয়নরত চিকিৎসকদের ভাতা প্রদানের ঘোষণা আসে।

পরে জানা যায়, এ ভাতা ২০২০ সালের জুলাই থেকে দেওয়া হবে। তাই ২০২০-২০২১ সেশনের নন-রেসিডেন্ট চিকিৎসকদের এক বছরের বকেয়া ভাতা দিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়, যা খুবই ভালো ও প্রশংসনীয় পদক্ষেপ। এ খবরে আমরা খুশি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে হতাশও হয়েছি, কারণ গত বছর জুলাই থেকে ভাতা দেওয়া হলেও ২০১৯-২০২০ সেশনের নন-রেসিডেন্টদের ওই তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। অথচ ২০২০ সালে জুলাই থেকে ২০২১ সালের জুলাই পর্যন্ত ২০২০-২০২১ সেশনের চিকিৎসকদের সঙ্গে আমরাও অধ্যয়নরত ছিলাম। গত এক বছর জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পরিবারের সদস্যদের ঝুঁকিতে ফেলে করোনাকালীনও নিয়মিত দায়িত্ব পালন করেছি।

এতে আরও বলা হয়, ২০২০ সাল থেকেই আমাদের ভাতা দেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হলেও তা প্রদান করা হয়নি। আজ যখন দেওয়া হচ্ছে, তখন আমাদেরকে তালিকায় রাখা হয়নি। এটা আমাদের জন্য খুবই দুঃখজনক। 

অতএব, মহোদয়ের নিকট সবিনয় আদেন এই যে, উপর্যুক্ত কথাগুলো বিবেচনা করে আমাদেরকে অন্তত শেষের এক বছরের ভাতা দেওয়ার ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে বাধিত করবেন।

এ প্রসঙ্গে ২০১৯-২০২০ সেশনের একজন নন-রেসিডেন্ট চিকিৎসক মেডিভয়েসকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের আন্তরিকতা ও প্রচেষ্টার ফলে অল্প সময়ের ব্যবধানে ভাতা চালু হওয়ার জট খুলে গেছে। আমাদের বিশ্বাস, তাঁরা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে করোনায় ত্যাগ ও শ্রমের কথা স্মরণ করিয়ে দিলে আমাদের দাবিটুকু আলোর মুখ দেখবে। এটা রাষ্ট্রের জন্য উল্লেখযোগ্য কোনো খরচই না। কিন্তু নবীন চিকিৎসকদের উৎসাহের প্রশ্নে ব্যাপক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। 

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  ঘটনা প্রবাহ : ডিপ্লোমা-এমফিল
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি