২৮ জুলাই, ২০২১ ১১:৫৯ এএম

স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের নতুন অতিরিক্ত সচিব শাহাদাৎ হোসাইন

স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের নতুন অতিরিক্ত সচিব শাহাদাৎ হোসাইন
মো. শাহাদাৎ হোসাইন। ছবি: সংগৃহীত

মেডিভয়েস রিপোর্ট: স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন মো. শাহাদাৎ হোসাইন। এর আগে তিনি এনজিও বিষয়ক ব্যুরোর পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) ছিলেন।

মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) মেডিভয়েসকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তিনি।

স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগে দায়িত্ব পাওয়ার প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে শাহাদাৎ হোসাইন মেডিভয়েসকে বলেন, ‘আমি চার বছর এনজিওর দায়িত্ব পালন করেছি, আমার পদোন্নতি ও বদলি ছিল কাঙ্খিত। মন্ত্রণালয় থেকে আমার অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করবো। আমি একজন অতিরিক্ত সচিব হিসেবে রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি সামাজিক দায়িত্বও রয়েছে, সবখানেই ভূমিকা পালন করবো।’

তিনি আরও বলেন, ‘আগে যখন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেছি, তখন ছিল এক রকম অনুভূতি। নতুন পরিবেশে দায়িত্ব পালন করবো, এখন আরেক ধরনের নতুন অনুভূতি ও অভিজ্ঞতা তৈরি হবে। সবচেয়ে বড় কথা হলো নিজের অর্পিত দায়িত্ব কতটুকু সফলতার সঙ্গে পালন করতে পারি? কাজ করার মধ্যে আনন্দ ও তৃপ্তি রয়েছে। মন্ত্রণালয় থেকে যে দায়িত্ব দেওয়া হবে সফলভাবে পালনের সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো, এজন্য সবার কাছে দোয়া চাই।’

শাহাদাৎ হোসাইনের বেড়ে ওঠা

তিনি ১৯৬৪ সালে ১ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম জেলার সন্দ্বীপ উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন। চট্টগ্রাম কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েট পাস করেন তিনি। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগ থেকে অনার্স ও মার্স্টাস সম্পন্ন করেন। ১৯৯১ সালে নবম বিসিএসে (প্রশাসন) ক্যাডার হিসেবে সরকারি চাকরিতে যোগদান করেন।

মো. শাহাদাৎ হোসাইন সরকারি চাকরি জীবনে স্থানীয় প্রশাসনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। একাধারে তিনি ম্যাজিস্ট্রেট, এ্যাসিলেন্ট, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হিসেবে সফলতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন। মিশুক ও উদারপ্রকৃতির এ কর্মকর্তা ব্যক্তিজীবনে দুই ছেলে ও এক কন্যা সন্তানের জনক। তাঁর স্ত্রী বিয়াম ল্যাবরেটরি স্কুলে শিক্ষকতা করেছেন, সেচ্ছায় তিনি চাকরি ছেড়ে দিয়েছেন।

চাকরি জীবনের অভিজ্ঞতা

দেশের বিভিন্ন জায়গায় দায়িত্ব পালনের বর্ণনা করতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার প্রথম পদায়ন ছিল ভোলা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে। দায়িত্বপালনকালে ভোলা জেলার সব স্থানেই ঘুরে বেড়িয়েছি। দ্বীপাঞ্চলে দায়িত্ব পালনের অনুভূতিই ছিল অন্যরকম। ১৯৯১ সালে ভোলায় দায়িত্ব পালন করলেও এখনও আমার কাছে মনে হয়, এইমাত্র আমি ভোলা থেকে এসেছি। ভোলার মানুষের আথিতেয়তা আমি কখনও ভুলতে পারবো না। ভোলার প্রত্যেক উপজেলায় আমি দায়িত্ব পালন করেছি। আমার চাকরি জীবনে ভোলা অনুভূতি অন্যরকম। ভোলার মানুষ অনেক উদার মনের।’

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি