১০ জুলাই, ২০২১ ০১:৫৫ পিএম

গোপালগঞ্জে চিকিৎসকের উপর হামলা: প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

গোপালগঞ্জে চিকিৎসকের উপর হামলা: প্রধান আসামি গ্রেপ্তার
ছবি: সংগৃহীত

মেডিভয়েস রিপোর্ট: গোপালগঞ্জ শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজ এবং ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে কর্মরত দুই ইন্টার্ন চিকিৎসকের উপর অর্তকিত হামলার ঘটনার প্রধান আসামি আমিনুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আজ শনিবার (১০ জুলাই) দুপুরে মেডিভয়েসকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন গোপালগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার আয়েশা সিদ্দিকা।

তিনি বলেন, ‘হামলার ঘটনার প্রধান আসামি আমিনুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আরও বাকি আসামি যারা রয়েছে, তাদেরকে গ্রেপ্তারের বিষয়ে আমাদের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। আসামিদেরকে গ্রেপ্তারের বিষয়ে আমরা শতভাগ আন্তরিক।’

প্রসঙ্গত, গত ৯ জুলাই রাতে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের মূল ফটকের সামনে কর্মরত দুই ইন্টার্ন চিকিৎসকের উপর অর্তকিত হামলা চালিয়েছে রোগী ও তার স্বজনরা। এতে আহত হয়েছেন, ওই হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসক পরিষদের (ইচিপ) সাধারণ সম্পাদক ডা. তাহমিদ আঞ্জুম আবির ও শিক্ষানবিশ চিকিৎসক ডা. আলমগীর হোসেন।

আজ শনিবার (১০ জুলাই) সকালে বিষয়টি মেডিভয়েসকে নিশ্চিত করেছেন চিকিৎসকদের জাতীয় সংগঠন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন গোপালগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি ডা. এম এম মহিউদ্দিন আহমেদ।

ইচিপের সভাপতি ডা. নুর মোহাম্মদ মেডিভয়েসকে বলেন, গত ৭ জুলাই ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে সদর উপজেলার বাজুনিয়া গ্রামের আমিনুল ইসলাম বুলবুল ও হৃদয় শেখ আহত হন। ওইদিন তাদের জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে বুলবুলকে তার ভাগ্নে তানভির দেখাশোনা করছিল।

তিনি বলেন, বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দায়িত্বরত ইন্টার্ন চিকিৎসক ডা. আলমগীর হোসেন হাসপাতালের একই ফ্লোরে তার অফিস কক্ষে ওয়াশ রুমে যান। এ সময় ওই রোগীর ভাগিনা পরিচয়ে এক যুবক ইন্টার্ন চিকিৎসকের কক্ষে এসে দরজায় ধাক্কাধাক্কি করেন। ডা. আলমগীর হোসেন ওয়াশ রুম থেকে বের হয়ে কি হয়েছে জানতে চাইলে ওই যুবক তার ওপর চড়াও হয়। এ সময় তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়।এক পর্যায় ওই যুবক সেখান থেকে চলে যায়।

তিনি আরও বলেন, শুক্রবার রাত সাড়ে সাতটার দিকে দায়িত্ব পালন শেষে ডা. আলমগীর হাসপাতালের প্রধান ফটকের বাইরে খাবার খেতে গেলে রোগী ও তার স্বজনরা দেশীয় অস্ত্রসস্ত্রসহ তার ওপর হামলা করে। হামলাকালীরা তাকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে মাটিতে ফেলে রাখে। খবর পেয়ে ডা. আবির ছুটে গেলে তাকেও বেধড়ক মারপিট করেন।

ডা. মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র নবীন চিকিৎসকদেরকে মারধর করা খুবই নিন্দাজনক বিষয়। করোনার এই সময়ে চিকিৎসকরা সর্বাত্মক সার্ভিস দিয়েছেন, তাদের সাথে এমন আচরণ করা দুঃখজনক। আমরা এ ঘটনার সুবিচার চাই।’

গোপালগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নিহাদ আদনান তাইয়ান গণমাধ্যমকে বলেন, ‘এ বিষয়ে মামলা হয়েছে। পুলিশের একটি টিম মাঠে রয়েছে এবং আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছে।’

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  ঘটনা প্রবাহ : চিকিৎসক লাঞ্চিত
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি