১২ নভেম্বর, ২০১৬ ১২:১০ পিএম
ল্যানসেটের তথ্য

শিশুমৃত্যুর শীর্ষ দশ দেশের তালিকায় বাংলাদেশ

শিশুমৃত্যুর শীর্ষ দশ দেশের তালিকায় বাংলাদেশ

দেশে গত বছর বিভিন্ন রোগ এবং নানা কারণে ১ লাখ ১৯ হাজারের বেশি শিশুর মৃত্যু হয়েছে। পৃথিবীর যে ১০টি দেশে পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুমৃত্যুর সংখ্যা বেশি, বাংলাদেশ তার একটি। যুক্তরাজ্যভিত্তিক জনস্বাস্থ্য ও চিকিৎসা সাময়িকী ল্যানসেট-এর ১০ নভেম্বরের সংখ্যায় এ তথ্য দেওয়া হয়েছে।

শিশুমৃত্যুর তালিকার শীর্ষে আছে ভারত। দেশটিতে ২০১৫ সালে ১২ লাখের বেশি শিশুর মৃত্যু হয়। তালিকায় অন্য দেশগুলোর মধ্যে (বেশি থেকে কমের ক্রম) আছে নাইজেরিয়া, পাকিস্তান, কঙ্গো, ইথিওপিয়া, চীন, অ্যাঙ্গোলা, ইন্দোনেশিয়া ও তানজানিয়া। তানজানিয়ার অবস্থান বাংলাদেশের পরে।

বাংলাদেশের অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে স্বাস্থ্যসচিব মো. সিরাজুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ল্যানসেট-এর এ তথ্য যাচাইযোগ্য। তিনি বলেন, বাংলাদেশ মাতৃ ও শিশুমৃত্যু কমানোর ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জন করেছে এবং লক্ষ্য পূরণ করেছে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যে (এসডিজি) এ বিষয়ে নতুন যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে, তা পূরণের উদ্যোগ ইতিমধ্যে নেওয়া হয়েছে।

ল্যানসেট-এর তথ্যে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে শিশুমৃত্যুর প্রধান কারণ সময়ের আগে জন্মানোর জটিলতা (২০ শতাংশ)। এরপর বেশি শিশু মারা যায় নিউমোনিয়ায় (১৫ শতাংশ)। একই সংখ্যক শিশু মারা যায় জন্মকালীন বা প্রসবকালে নানা জটিলতায় (১৫ শতাংশ)। ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব কমে গেছে, এমন কথা বলা হলেও ৬ শতাংশ শিশু মারা যাচ্ছে ডায়রিয়ায়।

১৪ শতাংশ শিশুর মৃত্যু হচ্ছে সেপসিস ও মেনিনজাইটিসে। জন্মগত ত্রুটির কারণে ৯ শতাংশ শিশুর মৃত্যু হচ্ছে। পাঁচ বছর বয়স পূর্ণ হওয়ার আগেই ৬ শতাংশ শিশু মারা যায় নানা আঘাতজনিত কারণে। আরও কিছু কারণে শিশুরা মারা যায়।

ল্যানসেট বলছে, ২০১৫ সালে বিশ্বে পাঁচ বছরের কম বয়সী ৫৯ লাখ শিশুর মৃত্যু হয়। এর মধ্যে ২৭ লাখ শিশুর মৃত্যু হয় বয়স ১৮ দিন হওয়ার আগেই। বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে বেশি শিশুর মৃত্যু হয় সময়ের আগে জন্ম নেওয়ার জটিলতায় (১৫ দশমিক ৯ শতাংশ)। দ্বিতীয় বৃহত্তম কারণ নিউমোনিয়া (১২ দশমিক ৮ শতাংশ)। এরপর বেশি শিশু মারা যায় প্রসবকালে নানা কারণে।

অন্য প্রধান কারণগুলোর মধ্যে আছে সেপসিস, জন্মগত ত্রুটি, ডায়রিয়া, ম্যালেরিয়া, আঘাত, টিটেনাস ইত্যাদি। ল্যানসেট-এর এই গবেষণায় আর্থিক সহায়তা দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও যুক্তরাষ্ট্রের বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন।

ল্যানসেট বলছে, এ দেশগুলোকে শিশুস্বাস্থ্যকেন্দ্রিক কর্মসূচি নিতে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। শিশুর স্বাস্থ্য ও জীবনরক্ষায় সফল প্রমাণিত উদ্যোগগুলোর প্রসার ঘটাতে পারলে এ দেশগুলো এসডিজির লক্ষ্য অর্জন করতে সক্ষম হবে।সৌজন্যে: প্রথম আলো

দাবি পেশাজীবী সংগঠনের, রিট পিটিশন দায়ের

‘বেসরকারি মেডিকেলের ৮২ ভাগের বোনাস ও ৬১ ভাগের বেতন হয়নি’

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি