২৬ জুন, ২০২১ ০৮:১৪ পিএম

করোনায় কর্মস্থলে যাতায়াতে পরিষ্কার দিকনির্দেশনা চান চিকিৎসকরা 

করোনায় কর্মস্থলে যাতায়াতে পরিষ্কার দিকনির্দেশনা চান চিকিৎসকরা 
ছবি: সংগৃহীত

মেডিভয়েস রিপোর্ট: করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সারাদেশে এক সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। এ সময় জরুরি পরিষেবা ছাড়া সব অফিস বন্ধ থাকলেও চিকিৎসক-স্বাস্থ্যকর্মীদের কাজের পরিধি বহুগুণে বেড়ে যাবে। এ অবস্থায় যেসব হাসপাতালের নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থা নেই সেখানে কর্মরত চিকিৎসকদের কর্মস্থলে উপস্থিত হওয়ার বিষয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তারা।

বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ জানানোর পাশাপাশি কর্মস্থলে যাওয়ার বিষয়ে পরিষ্কার দিকনির্দেশনা সংবলিত আদেশ জারি করার দাবি জানিয়েছে চিকিৎসকদের সংগঠন বাংলাদেশ ডক্টরস ফাউন্ডেশন (বিডিএফ)।

আজ শনিবার (২৬ জুন) সংগঠনটির চেয়ারম্যান ডা. মো. শাহেদ রফি পাভেল ও মহাসচিব ডা. শাহ মো. জাকির হোসেন সুমন স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই উদ্বেগ জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, কোভিড-১৯ সংক্রমণ রোধে সোমবার (২৮ জুন) থেকে সাত দিন সারাদেশে কঠোর লকডাউন পালন করা হবে। এ সময় জরুরি পরিষেবা ছাড়া সব সরকারি-বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকবে। জরুরি পণ্যবাহী ছাড়া সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। অ্যাম্বুলেন্স ও চিকিৎসা সংক্রান্ত কাজে যানবাহন শুধু চলাচল করতে পারবে। জরুরি কারণ ছাড়া বাড়ির বাইরে কেউ বের হতে পারবেন না। গণপরিবহন (বাস/অটোরিকশা/সিএনজি/রিকশা ইত্যাদি) বন্ধ থাকবে। সেক্ষেত্রে যেসব চিকিৎসকের নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থা নেই তারা কিভাবে কর্মস্থলে পৌঁছাবেন?

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, চিকিৎসকদের পরিবহনের বিষয়টির বরাবরই উপেক্ষিত হয়ে আসছে, যার ফলে ইতিপূর্বে আমরা দেখেছি চিকিৎসক-প্রশাসন ও পুলিশের মুখোমুখি অবস্থান। তাই যেকোনো ধরনের অনভিপ্রেত ও অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা রোধে চিকিৎসকদের কর্মস্থলে যাওয়ার জন্য নিরবচ্ছিন্ন এবং পরিষ্কার দিকনির্দেশনা সংবলিত আদেশ জারি করতে বিডিএফ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জোর দাবি জানাচ্ছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, লকডাউনে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল আউটডোর খোলা থাকবে কি না এবং চিকিৎসকরা তাদের প্রাইভেট প্রাকটিস করবেন কি না এটা নিয়ে পরিষ্কার দিকনির্দেশনা থাকা একান্ত জরুরি।

প্রসঙ্গত, করোনা সংক্রমণ রোধে আগামী সোমবার (২৮ জুন) থেকে এক সপ্তাহের জন্য সারাদেশে কঠোর লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। শুক্রবার (২৫ জুন) রাতে তথ্য অধিদপ্তরের জরুরি বিবরণীতে বলা হয়, এ সময়ে জরুরি পরিষেবা ছাড়া সব সরকারি-বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকবে।

বিবরণীতে আরও বলা হয়, কঠোর লকডাউনের সময় জরুরি পণ্যবাহী ব্যতীত সব প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। শুধু অ্যাম্বুলেন্স ও চিকিৎসা সংক্রান্ত কাজে যানবাহন চলাচল করতে পারবে। এছাড়া জরুরি কারণ ছাড়া বাড়ির বাইরে কেউ বের হতে পারবেন না। তবে গণমাধ্যম এর আওতামুক্ত থাকবে। 

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  ঘটনা প্রবাহ : লকডাউন
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত