৩১ অক্টোবর, ২০১৬ ০৬:৫৩ পিএম

কুমিল্লার সেন্ট্রাল মেডিকেলে আন্দোলনরত ইন্টার্নদের ওপর হামলা

কুমিল্লার সেন্ট্রাল মেডিকেলে আন্দোলনরত ইন্টার্নদের ওপর হামলা

সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ১৫ হাজার টাকা ভাতার দাবিতে কুমিল্লার সেন্ট্রাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আন্দোলনকারী ইন্টার্ন চিকিৎসকদের উপর হামলা চালিয়েছে বহিরাগতরা। এতে শিক্ষানবিশ চিকিত্সক জাকির হোসেন, হোসাইন মো. ইব্রাহীম, শাহ মো. ফারুক হোসেন, নাঈমুল ইসলাম, অসীম পারভেজ, সিফাত মালেকসহ সাতজন আহত হন। তাঁদের সেন্ট্রাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সোমবার বেলা ১১টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের লাগোয়া পদুয়ার বাজার এলাকায় অবস্থিত ক্যাম্পাসে এ ঘটনা ঘটে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে শিক্ষানবিশ চিকিৎসকেরা সব ধরনের চিকিত্সা কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছেন।

আন্দোলনরত ইন্টার্ন চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, চলতি বছরের ৪ আগস্ট স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বিভিন্ন মেডিকেল কলেজে কর্মরত শিক্ষানবিশ চিকিৎসকদের মাসিক ভাতা ১০ হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা পুনর্নির্ধারণ করে।

মন্ত্রণালয়ের ওই আদেশের পরিপ্রেক্ষিতে ১৭ আগস্ট এই হাসপাতালের ৬৯ জন চিকিৎসক ভাতা বাড়ানোর জন্য হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কের কাছে আবেদন জানান। কিন্তু দীর্ঘদিনেও ওই দাবি পূরণ হয়নি।

এর প্রেক্ষিতে দুই দফা আন্দোলন করেন ইন্টার্ন চিকিৎসকেরা। এতেও কোনো কাজ হয়নি। উল্টো চিকিৎসকদের যাতায়াতের বাস বন্ধ করে দেওয়া হয়।

এরপর সোমবার সকালে চিকিৎসকেরা জরুরি বিভাগ ছাড়া সব ধরনের চিকিৎসা কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়ে হাসপাতাল এলাকায় অবস্থান নেন।

চিকিৎসকদের ভাষ্য, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের ইন্ধনে পদুয়ার বাজার এলাকার বহিরাগত আবদুল মান্নান আন্দোলনরত চিকিৎসকদের সঙ্গে বাগ্বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন। একপর্যায়ে চিকিৎসক শাহ মো. ফারুক
হোসেনের সঙ্গে তাঁর হাতাহাতি হয়। এর আধা ঘণ্টা পর হাসপাতালের সামনে এসে অতর্কিত আন্দোলনরত চিকিৎসকদের ওপর হামলা চালায় ১৫-২০ জন বহিরাগত।

আন্দোলনকারীদের পক্ষে মো. ফখরুল আবেদীন দাবি করেন, দেশের সব কটি সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মাসিক ভাতা বাড়ানো হয়েছে।

কিন্তু এখানে ভাতা বাড়ানো হয়নি। উল্টো বহিরাগতদের ডেকে এনে হামলা চালানো হয়েছে। হামলার প্রতিবাদে তাঁদের কর্মবিরতি অব্যাহত থাকবে।
যোগাযোগ করলে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক শফিকুল হায়দার চৌধুরী বলেন, বেসরকারি মেডিকেল কলেজের অ্যাসোসিয়েশন এখনো শিক্ষানবিশ চিকিৎসকদের ভাতা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়নি। সেখান থেকে সিদ্ধান্ত হলে এ
ব্যাপারে পদক্ষেপ নেওয়া হবে। যাঁরা আন্দোলন করছেন তাঁদের কাছ থেকে ভর্তির সময় ইন্টার্নি ফি নেওয়া হয়নি। তবু তাঁদের ১০ হাজার টাকা করে দেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘কারা চিকিৎসকদের ওপর হামলা করেছে, জানি না। মান্নান নামের কেউ এখানে আছেন কি না, তা আমার জানা নেই।’ 

 

সিন্ডিকেট মিটিংয়ে প্রস্তাব গৃহীত

ভাতা পাবেন ডিপ্লোমা-এমফিল কোর্সের চিকিৎসকরা

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা উপেক্ষা

অতিরিক্ত বেতন নিচ্ছে একাধিক বেসরকারি মেডিকেল

প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

অক্টোবর-নভেম্বরে ২য় ধাপে করোনা সংক্রমণের শঙ্কা

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত