০৪ মে, ২০২০ ০৭:২০ পিএম

বিপিএমসিএর সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার, বেতন-বোনাস পাচ্ছেন বেসরকারি চিকিৎসকরা 

বিপিএমসিএর সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার, বেতন-বোনাস পাচ্ছেন বেসরকারি চিকিৎসকরা 

মো. মনির উদ্দিন: চিকিৎসক-নার্সদের প্রতিবাদের মুখে ঈদ বোনাস বন্ধ ও অর্ধেক বেতন দেওয়ার ঘোষণা থেকে সরে এসেছে প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ অ্যাসোসিয়েশন (বিপিএমসিএ)।আজ সোমবার (৪ মে) দুপুরে এ সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়। 

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ডা. এনামুর রহমান এমপি বলেন, বেতন বোনাস সংক্রান্ত যে বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে। মানবিক কারণে তা প্রত্যাহার করা হলো। 

তবে করোনাভাইরাসের কারণে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার অজুহাতে সরকারের কাছে প্রণোদনার দাবি জানিয়েছে বিপিএমসিএ। 

গত শনিবার (২ এপ্রিল) প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ অ্যাসোসিয়েশন (বিপিএমসিএ) জানায়, বেসরকারি হাসপাতালের শিক্ষক-চিকৎসকদের উৎসব বোনাস না দেওয়া এবং এপ্রিল মাসের বেতন ষাট ভাগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।   

সদস্যভুক্ত সকল বেসরকারি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো এক চিঠিতে সংগঠনটি জানায়, করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারী চলাকালে বাংলাদেশের সকল মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল গভীর সংকটের সম্মুখীন হয়ে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। তাই সংগঠনের সদস্যভুক্ত মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের শিক্ষক, চিকিৎসক ও কর্মচারীদের উৎসব বোনাস প্রদান করা হবে না। 

এপ্রিল মাসের বেতন যা মে মাসে প্রদান করার কথা তা সকল অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক, সহকারী অধ্যাপক ও প্রভাষকদের মোট বেতনের ষাট ভাগ প্রদান করা হবে। তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর সকল কর্মচারী শতভাগ বেতন পাবেন। কলেজের অনুপস্থিত স্টাফরা পাবেন বেতনের ষাট ভাগ। 

এছাড়া যে সকল চিকিৎসক ও অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মী হাসপাতালে ২৪ ঘণ্টা কাজ করেছেন তাদেরকে শতভাগ বেতন প্রদান করা হবে। 

চিকিৎসক নেতাদের প্রতিবাদ 

তবে স্বাস্থ্য খাতের এ সংকটময় মুহূর্তে করোনা যোদ্ধাদের বেতন বোনাস দিতে গড়িমসির ঘটনায় ক্ষোভ জানিয়েছেন পেশাজীবী সংগঠনের নেতারা। তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা ঘোষণার বিপরীতে বেসরকারি চিকিৎসকদের বেতন-বোনাস না দেওয়ার সিদ্ধান্ত অত্যন্ত অমানবিক।  

জানতে চাইলে চিকিৎসকদের সংগঠন ফাউন্ডেশন ফর ডক্টরস সেফটি এন্ড রাইটসের (এফডিএসআর) মহাসচিব ডা. শেখ আব্দুল্লাহ আল মামুন মেডিভয়েসকে বলেন, ‘গতকাল যখন বিষয়টি জানতে পারি। তখন আমরা বিবৃতি দিয়ে বলেছি, এটা শ্রম আইনের চরম লঙ্ঘন। এটা তারা করতে পারেন না। স্বাস্থ্যকর্মীদের সম্পূর্ণ বেতন ও বোনাস দিতে হবে। যারা বেসরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কাজ করছে, তারা অনলাইনে ক্লাস নিচ্ছেন। সারা বছর তারা ক্লাস নিয়েছেন। বোনাসটা তো হয় সারা বছরের শ্রমের ভিত্তিতে। কোভিড সংকটের কথা বলে তারা তো টিউশন ফি বন্ধ রাখেনি। সুতরাং বেতন ও বোনাস না দেওয়ার চিন্তাটা চরম অমানবিক। এটা আমরা মেনে নেবো না। প্রয়োজনে আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

এ প্রসঙ্গে এফডিএসআর’র উপদেষ্টা বিশিষ্ট মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ডা. আব্দুন নূর তূষার বলেন, ‘বাংলাদেশের শ্রম আইনে যার উৎসব ভাতা প্রাপ্য হয়েছে—তাকে সেটা না দেয়ার কোন আইন নাই। হাসপাতাল লাভ না করলে সেটা বেতন কম দেয়ার কোন অজুহাত হতে পারে না, এ কারণে যে যখন তারা লাভ করেছেন তখন কি লাভের ভাগ বেতনের সাথে দিয়েছিলেন? লাভের সময় লবডংকা, ক্ষতি হলে সেটা পোষাবেন বেতন বোনাস না দিয়ে?

এটা বাংলাদেশের শ্রম আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। সেখানে পরিষ্কার বলা আছে, আগের বারো মাসে কমপক্ষে ২৪০ দিন কাজ করলে তার এক বছরের বোনাস প্রাপ্য হবে।

দেশে আইন আছে। আইন মানতে হবে। অবিলম্বে সকল চিকিৎসকসহ স্বাস্থ্যকর্মীকে তার প্রাপ্য বেতন ভাতা দিতে হবে।

সরকার যে কোভিড ফাইটার চিকিৎসকদের প্রণোদনা দিয়েছেন সেখানে বেসরকারি ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীরা কিছুই পাবেন না। অথচ এই প্রাইভেট মেডিকেল ও হাসপাতালগুলোর মধ্যে কেউ কেউ কোভিড রোগীকে সেবা দিতেও সম্মত হয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে চিকিৎসকদের অন্যতম বড় সংগঠন বাংলাদেশ ডক্টরস ফাউন্ডেশনের (বিডিএফ)  প্রধান সমন্বয়ক ডা. নিরুপম দাশ মেডিভয়েসকে বলেন, ‘এ বিষয়ে দুটি বক্তব্য এসেছে। একটি বক্তব্য হলো: বেতন-বোনাস দুটি দেওয়া হবে। আরেকটি বক্তব্য হলো: বেতন দেওয়া হবে, বোনাস হবে না। এ নিয়ে আমরা বিভ্রান্তিতে আছি। আমাদেরকে বলা হয়েছে, বেতন-বোনাস দুটিই দেওয়া হবে। এজন্য আমরা অপেক্ষা করছি।’

করোনা ভাইরাস থেকে সুরক্ষিত থাকতে গুরুত্বপূর্ণ নিয়ম গুলো মেনে চলুন। সর্দি কাশি জ্বর হলে হাসপাতালে না গিয়ে স্বাস্থ্য সেবা দানকারী হটলাইন গুলোতে ফোন করুন। আইইডিসিআর হটলাইন- 10655, email: [email protected]
  ঘটনা প্রবাহ : করোনাভাইরাস
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত