ডা. শিরীন সাবিহা তন্বী

ডা. শিরীন সাবিহা তন্বী

মেডিকেল অফিসার, রেডিওলোজি এন্ড ইমেজিং ডিপার্টমেন্ট,

শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বরিশাল।


৩০ এপ্রিল, ২০২০ ০৮:০৩ পিএম

‘চিকিৎসকদের বাড়িতে যারা ঢিল ছুড়ছেন, তারা কি অমরত্ব পেয়েছেন?’

‘চিকিৎসকদের বাড়িতে যারা ঢিল ছুড়ছেন, তারা কি অমরত্ব পেয়েছেন?’

চিকিৎসকরা সরকারের নির্দেশে হাসপাতালে যাচ্ছেন। সরকারের নির্দেশে বা তার দায়িত্ববোধের জায়গা থেকে চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।

সাধারণ মানুষ লকডাউন মানছে না। শুরুর দিকে প্রবাসীরা আত্মীয়-স্বজন বন্ধুদের সাথে আড্ডা, ফুর্তি, লম্বা ভ্রমণে ঘুরে বেড়িয়েছেন। যখন তারা নিজেরা আক্রান্ত হয়েছেন তখন রোগী হয়ে হাসপাতালে গেছেন।

প্রতিটি হাসপাতালে ফ্লু-কর্নার থাকা সত্ত্বেও আপনি দুর্নীতি করে করোনার উপসর্গ, প্রবাসী আত্মীয় দের সাথে সময় কাটানো কিংবা ভ্রমণের ইতিহাস গোপন করেছেন।

শুরুর দিকে সরকার হাসপাতালে করোনা চিকিৎসা,নমুনা সংগ্রহের মতো স্পর্শকাতর ক্ষেত্রেও  পিপিই, এন-৯৫ মাস্ক এবং চশমাসহ নিরাপত্তা সামগ্রী চিকিৎসকদের দিতে পারেনি। মানবতার কান্ডারী দুঃসাহসী চিকিৎসকগন আধা নিরাপত্তা অবস্থাতেই করোনা রোগীদের চিকিৎসা দিয়েছে। আর তথ্য গোপনকারী অপরাধী রোগীদের একেবারে নিরাপত্তা ছাড়াই চিকিৎসা দিয়েছেন।

লটারির খেলার মতো আপনার অপরাধে অরক্ষিত চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীরা। যারা ঘরে বুড়ো বাবা-মা, পরিবার পরিজন, ছোট বাচ্চা রেখে লকডাউনের সময় পুলিশের ধাওয়া খেয়ে দ্বিগুণ তিনগুণ ভাড়া দিয়ে হাসপাতালে আসে তাদের করোনা সংক্রমিত করে দিলেন।

ডাক্তার হাসপাতালের কাজ করে বাড়িতে যাচ্ছেন। তাদেরও পরিবার আছে। আপনি শুরুতে মিথ্যা বলেছেন। পরে আপনার পরীক্ষার ফল দেখে বা অন্যভাবে করোনা নিশ্চিত হতে হতে ডাক্তার এর সাথে সাথে তার পরিবার ও আক্রান্ত হয়ে গেল।

আবার এই আপনারাই বাড়িওয়ালা, এলাকাবাসী হয়ে ওই চিকিৎসা দেয়া চিকিৎসককে বাড়ি থেকে বের করে দিচ্ছেন।

আপনি হয়তো এলাকার তাগড়া জোয়ান, জন প্রতিনিধি, ত্রান চোর, ছুটি প্রাপ্ত ঘুষখোর, আপনি যে কেউ। কিন্তু আপনারা একত্রে একদল পিশাচ। আপনারা চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে আক্রান্ত পরিবার কে এলাকা ছাড়া করবার জন্য বাড়িতে ঢিল ছোড়েন।

এই বাঙালিদের জন্য এক দলা থু থু।

যেখানে উচিত ছিল ওই পরিবারের জন্য পুরো শহরের সবার বাড়ি থেকে খাবার আসা, শুভকামনাসহ কার্ড আসা,সবাই দোয়া করা। সেখানে আপনারা তাকে এবং তার পরিবারকে লাঞ্চিত করছেন, এলাকা ছাড়া করছেন।

আপনারা দু লাইন বাংলা লিখতে পেরে উচ্চ শিক্ষিত চিকিৎসকদের কসাই বলেন? আপনারা কি? অমানবিক পশু? চামার?

এই ধরনের অন্যায়ের প্রতিবাদে সারাদেশের চিকিৎসকরা যদি এক বেলা চিকিৎসা সেবা বন্ধ রাখে, তখন আপনাদের কি হবে ভেবে দেখেছেন?

সময় আছে, ভাবুন!

আপনাকে চিকিৎসা দেয়া যেমন ডাক্তার স্বাস্থ্যকর্মীদের দায়িত্ব তেমনই তার এবং তাদের পরিবারের কেউ আক্রান্ত হলে তাদের প্রতি সহানুভূতিশীল হওয়াও আপনার দায়িত্ব।

আমি আমার দায়িত্ব পালন করছি। আপনি আপনারটা করুন,নয়তো গার্মেন্টস কেবল খুলেছে। সংক্রমনের কঠিন দিন সামনে আসছে। আজ আপনি সুস্থ বলে কাল অসুস্থ হবেন না কে বলেছে?
 

করোনা ভাইরাস থেকে সুরক্ষিত থাকতে গুরুত্বপূর্ণ নিয়ম গুলো মেনে চলুন। সর্দি কাশি জ্বর হলে হাসপাতালে না গিয়ে স্বাস্থ্য সেবা দানকারী হটলাইন গুলোতে ফোন করুন। আইইডিসিআর হটলাইন- 10655, email: [email protected]
  ঘটনা প্রবাহ : করোনাভাইরাস
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি