২৬ এপ্রিল, ২০২০ ০৭:২৯ পিএম

‘বেসরকারি চিকিৎসক, নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রণোদনা দেওয়া উচিত’

‘বেসরকারি চিকিৎসক, নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রণোদনা দেওয়া উচিত’

বিল্লাল হোসেন রাজু:  ‘দেশের এই চরম স্বাস্থ্য সংকটে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যে সব স্বাস্থ্যকর্মী সেবা দিচ্ছেন এদের সবার জন্যই সমান সুযোগ থাকা উচিত। এমন মহামারি সংকটের সময় সরকারি- বেসরকারি আলাদা না করে করোনা যোদ্ধা সকল চিকিৎসক, নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মীদের সব ধরণের সহযোগিতা নিশ্চিত করা জরুরি’ 

২৬ এপ্রিল (রবিবার) একুশে পদক প্রাপ্ত ও প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক এ বি এম আব্দুল্লাহ মেডিভয়েসকে এসব কথা বলেন। 

আশা করি দ্রুত সময়ের মধ্যে বেসরকারি পর্যায়ে কর্মরত চিকিৎসক, নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রণোদনাসহ সব ধরণের সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত হবে, এমন আশা ব্যক্ত করেন বিএসএমএমইউর মেডিসিন বিভাগের সাবেক এ ডিন ও চেয়ারম্যান।

উল্লেখ্য, করোনা যোদ্ধাদের প্রণোদনা নিয়ে গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সরকারের অর্থমন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ (অনুবিভাগ-১, অধিশাখা-৪) থেকে একটি পরিপত্র জারি করা হয়।

পরিপত্রে বলা হয়, সরকারি চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের সেবা দিতে গিয়ে যারা এ ভাইরাসে আক্রান্ত হবে সরকারি বিধি অনুযায়ী গ্রেড-ভিত্তিতে তারা ঘোষিত প্রণোদনা পাবেন। কিন্তু বেসরকারি হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য তেমন কোন ঘোষণা আসেনি। কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তকে বৈষম্য মনে করছেন বেসরকারি পর্যায়ের সব চিকিৎসক, নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মীরা। 

এরই মধ্যে সেবা দিতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন ৩২৪ জনের বেশি চিকিৎসক। প্রতিদিনই চিকিৎসক আক্রান্তের ঘটনা ঘটছে। ফলে সরকারের এসব উদ্যোগে হতাশা কাটছে না চিকিৎসকদের। আক্রান্তদের মধ্যে বিএসএমএমইউ, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতাল, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালের বহির্বিভাগ, অন্তঃবিভাগ, অপারেশন থিয়েটার, আইসিইউ ও ফিভার ক্লিনিকে দায়িত্ব পালন করা চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীর সংখ্যাই বেশি। 

  ঘটনা প্রবাহ : করোনাভাইরাস
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি