০৫ অক্টোবর, ২০১৬ ১০:৪৩ এএম

বিপ্লবের মৃত্যুতে চিকিৎসকের অবহেলা ছিল না

বিপ্লবের মৃত্যুতে চিকিৎসকের অবহেলা ছিল না

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিপ্লব মণ্ডলের মৃত্যুতে চিকিৎসকের অবহেলারও প্রমাণ পায়নি কলেজ কর্তৃপক্ষ। বিপ্লবের মৃত্যুর ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে মঙ্গলবার এ তথ্য জানানো হয়েছে। হাসপাতালের সভাকক্ষে প্রতিবেদনটি আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করেন হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। চিকিৎসক ও নার্সের দায়িত্বে অবহেলার বিষয়ে তিনি বলেন, অবহেলার প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিপ্লব মণ্ডলের শরীরে কোনো ইনজেকশন পুশ করা হয়নি। সুমন ইনজেকশন পুশ করেছে বলে যে অভিযোগ উঠেছে, তা ভিত্তিহীন। রোগীর মৃত্যুর কারণ ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন হাতে আসার পর জানা যাবে। 

মিজানুর রহমান বলেন, প্রাথমিক তদন্তে তাঁরা জেনেছেন, বিপ্লব মণ্ডল মাথায় আঘাত পেয়েছিলেন। ঘটনার দিন বিপ্লবের শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। স্বজনেরা চিকিৎসকের কাছে গেলে শ্বাসকষ্টের জন্য একটা ইনজেকশন লিখে দেওয়া হয়। ইনজেকশন নিয়ে এলে একজন নার্স নেবুলাইজার মেশিনে ইনজেকশনটি পুশ করেন। তখন সুমনকে অক্সিজেনের মাস্কটি ধরতে দেওয়া হয়েছিল। এরপর বিপ্লবের মৃত্যু হয়।

প্রতিবেদনে দায়িত্বরত চিকিৎসক ও নার্স সম্পর্কে বলা হয়েছে, চিকিৎসককে রোগীর কাছে সশরীরের উপস্থিত হয়ে চিকিৎসা দেওয়া উচিত ছিল। নার্সেরও নিজে অথবা অন্য কোনো নার্সকে নেবুলাইজার মাস্কটি ধরতেও দেওয়া উচিত ছিল।

গত ২৩ সেপ্টেম্বর শুক্রবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিপ্লবের মৃত্যু হয়। চিকিৎসক সেজে ঝাড়ুদার সুমনের দেওয়া চিকিৎসার কারণে বিপ্লব মারা যান বলে অভিযোগ ওঠে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মুখপাত্র উপপরিচালক খাজা আবদুল গফুর বলেন, এ ঘটনায় ২৫ সেপ্টেম্বর চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল। ২৮ সেপ্টেম্বর কমিটি প্রতিবেদন দেয়।

তিনি বলেন, বিপ্লব যে ওয়ার্ডে চিকিৎসারত ছিলেন, সেই ওয়ার্ডের দায়িত্বরত এক চিকিৎসক ও এক নার্সকে কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে। তাঁদের কাছে জবাব পেলে সে অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি