২৩ মার্চ, ২০২০ ০৩:৩৮ পিএম

সুরক্ষায় দেরি হলে বড় ক্ষতি হয়ে যাবে: আশঙ্কা বিএমএ-স্বাচিপের

সুরক্ষায় দেরি হলে বড় ক্ষতি হয়ে যাবে: আশঙ্কা বিএমএ-স্বাচিপের

মেডিভয়েস রিপোর্ট: করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সুরক্ষা নিতে দেরি হয়ে গেলে বড় ক্ষতির আশঙ্কা করেছেন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) ও স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) নেতারা। এ লক্ষে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে সরকারের প্রতি পর্যাপ্ত পরিমাণ নিরাপত্তা সরঞ্জামের ব্যবস্থা করার আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

সোমবার (২৩ মার্চ) বিএমএ ভবনের শহীদ শামসুল আলম খান মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ আহ্বান জানানো হয়। সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য রাখেন বিএমএ সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন।

চিকিৎসকদের উদ্দেশ্যে মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন বলেন, দেশ ও জাতির ভাগ্যোন্নয়নে দেশের চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা মহান মুক্তিযুদ্ধে, স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনসহ সব পর্যায়ে একসঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করে অনেক ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন। চলমান পরিস্থিতিতে পেশাগত কাজে আপনাদের নিরলস পরিশ্রম ভ্যাক্সিনেশন প্রোগাম, শিশুমৃত্যু ও মাতৃমৃত্যু হার কমানো ও গড় আয়ু বৃদ্ধি আন্তর্জাতিকভাবে সমাদৃত হয়েছে। স্বাস্থ্যখাতে এমডিজি বাস্তবায়নে আপনাদের ভূমিকা সর্বজনবিদিত। জাতিসংঘের মহাসচিব, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, আমাদের পথপ্রদর্শক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনাদের এসব কাজের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন।

তিনি বলেন, এছাড়াও বিগত বছর ডেঙ্গু জ্বরে জাতীয় জীবনে যে কঠিন সময় এসেছিল সেখানেও ডাক্তারদের আত্মত্যাগসহ নিরলস কাজের প্রশংসায় পঞ্চমুখ ছিলেন দেশের সংবাদমাধ্যম ও সাধারণ মানুষ। প্রধানমন্ত্রী তার স্বাস্থ্য সংক্রান্ত প্রতিটি বক্তব্যে আপনাদের এই মহৎ প্রয়াসের অতুলনীয় প্রশংসা করেন। আমরা অবগত আছি যে, করোনাভাইরাসে জাতি আজ দিশেহারা, আতঙ্কগ্রস্ত।

বিএমএ সভাপতি বলেন, করোনাভাইরাস মহামারির ধরণ অনুযায়ী এটা অনুমান করা যেতে পারে যে, এই রোগটি যেকোনো সময় আমাদের দেশে সংক্রমণের মাত্রা অনেক বেশি বাড়িয়ে দিতে পারে। তাই আতঙ্কিত ও ভীত না হয়ে সারাদেশের নাগরিকদের অনুরোধ করবো আপনারা শান্ত থাকুন। অযথা যত্রতত্র ঘোরাফেরা করবেন না, বিয়ে-বাড়ি, ধর্মীয় সমাবেশসহ জনসমাবেশ এড়িয়ে চলুন। পাশাপাশি স্বাস্থ্যসেবাকর্মীরা ভীত না হয়ে মানবতার কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আমরা পেশায় চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী, আমাদের অভিভাবকগণ নিশ্চিত ঝুঁকি জেনেও আমাদেরকে এই পেশায় কাজ করার উৎসাহ দিয়েছেন। রোগীরা আমাদের সম্পদ, সেই সম্পদ আগলে রাখার দায়িত্ব আমাদের। রোগীরা ভালো না থাকলে বেঁচে না থাকলে সমাজে বা পেশায় আমাদের উপস্থিতিও ম্লান হয়ে যাবে। আমরা সংশ্লিষ্ট সবার কাছে স্বাস্থ্য সেবা কর্মীদের ব্যক্তিগত সুরক্ষার বিষয়ে বিশেষ নজর দেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

নিরাপদ সরঞ্জামাদির অভাবে যশোরে ডাক্তাররা চিকিৎসা না দিয়ে কর্মবিরতি পালন করেছে- এমন প্রশ্নে বিএমএ মহাসচিব ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী বলেন, সেখানে কিছু সংখ্যক ইন্টার্ন ডাক্তার কর্মবিরতি পালন করেছেন। তারা ভিন্ন রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। অধিকাংশ ডাক্তারই কর্মবিরতি পালন করেননি বলেও জানান তিনি।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, স্বাচিপ মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এম এ আজিজ, বিএমএ মহাসচিব ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী প্রমুখ।

  ঘটনা প্রবাহ : করোনাভাইরাস
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি