০৪ মার্চ, ২০২০ ১০:৪১ এএম

করোনাভাইরাসের উচ্চঝুঁকিতে বাংলাদেশ: যুক্তরাষ্ট্র

করোনাভাইরাসের উচ্চঝুঁকিতে বাংলাদেশ: যুক্তরাষ্ট্র

মেডিভয়েস রিপোর্ট: প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণে বাংলাদেশ উচ্চঝুঁকিতে রয়েছে বলে সতর্কতা জারি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। বাংলাদেশ ছাড়াও এ তালিকায় আরও ২৪টি দেশ রয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটি। এর পাশাপাশি এসব দেশের জন্য ৩ কোটি ৭০ লাখ ডলারের জরুরি তহবিলের অঙ্গীকার প্রকাশ করেছে।

মঙ্গলবার (৪ মার্চ) ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন দূতাবাসের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ইউএসএআইডির সংক্রামক রোগবিষয়ক জরুরি রিজার্ভ তহবিল থেকে নভেল করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) সংক্রমণের উচ্চঝুঁকিতে থাকা ২৫টি দেশের জন্য ৩ কোটি ৭০ লাখ ডলার অর্থায়নের অঙ্গীকার ঘোষণা করেছে মার্কিন সরকার। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও), অন্যান্য বহুপক্ষীয় প্রতিষ্ঠান এবং ইউএসএআইডির কর্মসূচি বাস্তবায়নকারী অংশীদারদের পরিচালিত প্রকল্পের জন্য এ তহবিল দেয়া হচ্ছে। এটি মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রতিশ্রুত ১০ কোটি ডলারের প্রথম কিস্তি।

বাংলাদেশ ছাড়া অন্য যে ২৪টি দেশ এ তালিকায় রয়েছে, সেগুলো হলো আফগানিস্তান, অ্যাঙ্গোলা, ইন্দোনেশিয়া, ইরাক, কাজাখস্তান, কেনিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, তাজিকিস্তান, ফিলিপাইন, তুর্কমেনিস্তান, উজবেকিস্তান, জাম্বিয়া, জিম্বাবুয়ে, মিয়ানমার, কম্বোডিয়া, ইথিওপিয়া, কিরগিজ প্রজাতন্ত্র, লাও, মঙ্গোলিয়া, নেপাল, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান, থাইল্যান্ড ও ভিয়েতনাম।

তবে, বাংলাদেশে করোনাভাইরাস শনাক্ত হলেও আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, করোনা মোকোবেলায় সব প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হয়েছে। বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। সেখানে ২০টি আইসিইউর ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এছাড়াও প্রতিটি জেলায় আইসোলেশন ওয়ার্ড করা হয়েছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিশ্বের ৬০টি দেশে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। বাংলাদেশেও যে আসবে না তা নিশ্চিত করে বলা যায় না। তাই আমরা নির্দেশ দিয়েছি যে দেশ থেকেই যিনি আসুন না কেনো, তারা যেখানেই থাকবেন সেলফ কোয়ারেন্টাইনে থাকবেন। প্রতিটি জেলা হাসপাতালে দুইটি করে আইসিইউ যাতে থাকে সেই ব্যবস্থাও নেওয়া হয়েছে।

জরুরী প্রয়োজন ছাড়া কাউকে বিদেশ না যাওয়ারও পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, আমরা চাই না বাংলাদেশ করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হোক। একইসঙ্গে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেশে না আসার অনুরোধ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, নিশ্চয়ই প্রবাসী বাংলাদেশিরাও চান না তাদের মাধ্যমে দেশের মানুষ কিংবা পরিবারের কেউ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হোন।

মন্ত্রী আরও বলেন, বিশ্বের আক্রান্ত দেশগুলো করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে শুরুতে যেসব অবহেলা করেছিল আমরা তা করিনি। সবদিক দিয়েই করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে পূর্ণাঙ্গ প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। সুতরাং দেশে কোনও কারণে করোনা ভাইরাস এলেও তা বড় কোনও ক্ষতি করতে পারবে না।

  ঘটনা প্রবাহ : করোনাভাইরাস
করোনা ও বার্ধক্যজনিত অসুস্থতা

এক দিনে চিরবিদায় পাঁচ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক

এক বছর প্রয়োগ হবে সেনা সদস্যদের দেহে

চীনে করোনার প্রথম ভ্যাকসিন অনুমোদন

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি