ডা. গুলজার হোসেন উজ্জল

ডা. গুলজার হোসেন উজ্জল

হেমাটোলজি বিশেষজ্ঞ।


০২ জানুয়ারী, ২০২০ ১০:৫২ এএম

চিকিৎসায় ভুলকে ক্রিমিনাল এক্ট হিসেবে দেখা উচিত নয়

চিকিৎসায় ভুলকে ক্রিমিনাল এক্ট হিসেবে দেখা উচিত নয়
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চিকিৎসক ডা. ডিউক চৌধুরীকে কারাগারে নিয়ে যাওয়ার দৃশ্য। ছবি: ইত্তেফাক

আমার বন্ধু স্থানীয় বড় ভাই ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চিকিৎসক ডা. ডিউক চৌধুরীকে জেলে ভরা হয়েছে। উনার বিরুদ্ধে অভিযোগ উনি ভুল চিকিৎসা দিয়ে রোগী মেরে ফেলেছেন।

উনার নামে মামলা করেছে রোগীপক্ষ। মামলায় উনি কোর্টে গিয়ে জামিন চেয়েছেন। মাননীয় আদালত উনার জামিন নামঞ্জুর করে উনি সহ উনার হাসপাতালের আরো দুইজন সহকর্মীকে জেলহাজতে পাঠিয়েছে।

ভুল চিকিৎসার শাস্তি হওয়া উচিত। কিন্তু সেটার একটা সুনির্দিষ্ট নীতিমালা থাকা উচিত। প্রতিটি মানুষের সীমাবদ্ধতা থাকে। চিকিৎসা একটি বিজ্ঞান। এটি সম্ভাবনা নিয়ে কাজ করে, নিশ্চয়তা দেয় না। সব রোগ সবসময় সময়মত ধরাও পড়ে না। এখানে ভুল হতে পারে। ভুল হলে জরিমানা, লাইসেন্স বাতিল এমনকি ভুলের মাত্রা অনুযায়ী জেলও হতে পারে। কিন্তু সেটা ভুল প্রমাণিত হবার পরই হওয়া উচিত। সেই ভুল যিনি নিরূপন করবেন তার সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ন্যুনতম বাস্তবজ্ঞান থাকার কথা।

একজন চিকিৎসক লেখাপড়া শেষ করে, ইন্টার্নশিপ শেষ করে লাইসেন্স নিয়ে তারপর চিকিৎসা পেশায় আসেন। চিকিৎসায় ভুলকে (ভুল যদি হয়েও থাকে) ক্রিমিনাল এক্ট হিসেবে দেখা উচিত নয়। তাহলে আর এত পড়ালেখা বা লাইসেন্সের প্রয়োজন কী? বিভাগীয় তদন্ত, পেশাদার তদন্ত ছাড়া শুধু মাত্র সাংবাদিক আর রোগীর লোকের কথায় প্রভাবিত হয়ে একজন চিকিৎসককে জেলহাজতে ঢোকানো চিকিৎসা পেশাকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে। যার প্রভাব পড়বে রোগীদের ওপরই। কোন ডাক্তার আর ঝুঁকি নিতে চাইবে না।

কাপাসিয়ায় সরকারি হাসপাতালের ডাক্তার মার খেয়ে রক্তাক্ত হয়েছে। প্রশাসন, স্বাস্থ্যবিভাগ, গণমাধ্যম কোথাও কোন উদ্বেগ নেই। কারো কোন বিকার নেই। রেলে পুলিশ থাকে, সড়কে পুলিশ থাকে কিন্তু হাসপাতাল পুলিশ বলে কিছু থাকে না।

হাসপাতালগুলিতে নিরাপত্তার কোন বালাই নেই। কিন্তু ডাক্তারদের ছোট বড় সকল অপরাধের জন্য মিডিয়া ট্রায়াল, লিগ্যাল ট্রায়ালের কোন অভাব নেই।

ডা. ডিউক চৌধুরী ও তার সহকর্মীদের জেলে দেওয়া হয়েছে- আমি এর প্রতিবাদ জানাচ্ছি। আমি নিজেকেও নিরাপত্তাহীন মনে করছি। আমি আজ কোন প্রাইভেট রোগী দেখবো না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমি এদেশের নাগরিক। নিজের পেশার নিগ্রহ দেখলে আমারও ক্ষুব্ধ হবার অধিকার আছে৷ এই বিকারহীন সমাজে আমি শুধু সেবা দিয়ে যাব, আর কেউ ‘ভুল চিকিৎসা দিছেন’ বললেই জেলে যাব- এরকম তো মেনে নেওয়া যাবে না।

[লেখাটি একজন চিকিৎসকের নিজস্ব মতামত। এর জন্য মেডিভয়েস সম্পাদক দায়ী নয়।]

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা
পিতাকে নিয়ে ছেলে সাদি আব্দুল্লাহ’র আবেগঘন লেখা

তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না
জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের সিসিউতে ভয়ানক কয়েক ঘন্টা

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না