২৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০৯:১৪ পিএম

প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক হলেন অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ

প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক হলেন অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ

মো. মনির উদ্দিন: সচিব পদমর্যাদায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত চিকিৎসক পদে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পেয়েছেন প্রখ্যাত মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ। 

আজ মঙ্গলবার (২৪ ডিসেম্বর) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের চুক্তি ও বৈদেশিক নিয়োগ শাখার উপসচিব মো. অলিউর রহমান স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এ কথা জানানো হয়েছে। 

এতে আরও বলা হয়েছে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) মেডিসিন অনুষদের সাবেক ডিন ও মেডিসিন বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহকে অন্যান্য প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের সঙ্গে কর্ম-সম্পর্ক পরিত্যাগের শর্তে যোগদানের তারিখ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মেয়াদকাল অথবা তাঁর সন্তুষ্টি সাপেক্ষে ইহার মধ্যে যেটি আগে ঘটে সেই সময় পর্যন্ত সরকারের সচিব পদমর্যাদায় ও আনুষঙ্গিক সুবিধাদিসহ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক পদে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ প্রদান করা হলো। 

এতে আরও বলা হয়েছে, নিয়োগের শর্তাবলী অনুমোদিত চুক্তিপত্র দ্বারা নির্ধারিত হবে। 

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে জনস্বার্থে এ আদেশ জারি করা হলো।

অনুভূতি জানতে চাইলে অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ মেডিভয়েসকে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত চিকিৎসক হওয়া নিঃসন্দেহে গৌরবের। আমাকে এত বড় মর্যাদা দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।’

তিনি বলেন, ‘এ রকম সুখকর মুহূর্তে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি অতল শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি। পিতা-মাতাসহ সকলের দোয়ায় আমি এতো দূর আসতে পেরেছি। অর্পিত দায়িত্ব সুন্দরভাবে পালনের জন্য সকলের দোয়া চাই।’

প্রসঙ্গত, এর আগে অধ্যাপক ডা. নুরুল ইসলাম প্রথমবারের মতো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ব্যক্তিগত চিকিৎসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। এরপর আর কোনও সরকারপ্রধানের ব্যক্তিগত চিকিৎসক ছিলেন না। সে হিসাবে দেশের দ্বিতীয় কোনও প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসকের স্থান পেলেন এবিএম আব্দুল্লাহ।

বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহকারী ব্যক্তিগত চিকিৎসকের দায়িত্ব পালন করছেন লে. কর্নেল তৌহিদা নওয়াজেশ রোজী।

অধ্যাপক এবিএম আবদুল্লাহর যত অর্জন

অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ গত আগস্টে দুই বছরের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের ‘ইউজিসি প্রফেসরশিপ’ সম্মানে ভূষিত হন। গবেষণায় অবদানের জন্য ২০১৬ সালে সরকার তাঁকে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা একুশে পদকে ভূষিত করে। ২০১৭ সালে বাংলা একাডেমি তাঁকে সম্মানসূচক ফেলোশিপ প্রদান করে।

দেশের চিকিৎসা শিক্ষা, চিকিৎসাসেবা ও গবেষণাসহ সামগ্রিক পেশার উন্নয়ন, মর্যাদা বৃদ্ধি ও সুনাম অক্ষুণ্ণ রাখতে অধ্যাপক এ বি এম আব্দুল্লাহর অসামান্য অবদান রয়েছে। 

গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর বিএসএমএমইউ থেকে অবসরে যান প্রখ্যাত এই চিকিৎসক।

►প্রজ্ঞাপনটি দেখতে ক্লিক করুন

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি