০৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০৩:১৪ পিএম
আপডেট: ০৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০৩:৩০ পিএম

ভারতে চিকিৎসককে ধর্ষণ ও হত্যা: ৪ অভিযুক্ত বন্দুকযুদ্ধে নিহত

ভারতে চিকিৎসককে ধর্ষণ ও হত্যা: ৪ অভিযুক্ত বন্দুকযুদ্ধে নিহত

মেডিভয়েস ডেস্ক: ভারতের হায়দারাবাদে এক তরুণী চিকিৎসককে ধর্ষণের পর আগুনে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত চার আসামির সবাই 'ক্রসফায়ারে' নিহত হয়েছে।

শুক্রবার (৬ ডিসেম্বর) সকালে আটক চারজনকে 'তদন্তের স্বার্থে' ঘটনাস্থলে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখানে পুলিশের অস্ত্র ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলে দুপক্ষের সংঘর্ষের এক পর্যায়ে গুলিতে আসামিরা নিহত হয়, দাবি পুলিশের।

হায়দ্রাবাদের পুলিশ কমিনশনার জানিছেন, অস্ত্র ছিনিয়ে নিয়ে পালানোর চেষ্টা করতে গিয়ে পুলিশের গুলিতে চিকিৎসক ধর্ষণ ও খুনের ঘটনার চার অভিযুক্ত নিহত হয়েছে। ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা প্রকাশ রেড্ডি বলেছেন, 'আমরা অ্যাম্বুলেন্স ডেকেছিলাম। তবে কোনও রকমের চিকিৎসা সহায়তা পৌঁছানোর আগেই তাদের মৃত্যু হয়'। 

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে, ঘটনার দিন ঠিক কী ঘটেছিল তার পুঙ্খানুপুঙ্খ তথ্য জোগাড় করতে শুক্রবার ভোররাতে অভিযুক্তদের  চাতনপল্লিতে নিয়ে যাওয়া হয়। ওই জায়গাতে ধর্ষিতা চিকিৎসকের দগ্ধ মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছিল। ঘটনাস্থলে হেফাজত থেকে পালানোর চেষ্টা করলে পুলিশের গুলিতে অভিযুক্তদের মৃত্যু হয়।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার (২৮ নভেম্বর) রাতে এ দগ্ধ তরুণীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পুলিশ জানিয়েছে, দুজন মিলে তরুণীকে ধর্ষণ করে খুন করার পর আগুনে পুড়িয়ে ফেলা হয়। স্কুটারের টায়ার ফেটে যাওয়ায় ওই তরুণী চিকিৎসক যাদের সাহায্য চেয়েছিলেন তারাই তাকে হত্যা করেছে।

প্রাথমিক তদন্ত শেষে স্থানীয় পুলিশ বলেছে, ধর্ষণের শিকার ২২ বছর বয়সী ওই তরুণী পশু চিকিৎসককে গতকাল হায়দরাবাদের অদূরের মফস্বল এলাকা শামশাবাদের তন্দুপল্লি টোল প্লাজার কাছে খুন করা হয়। তারপর ২৫ কিলোমিটার দূরে শাদনগরর নামক এলাকার চাতানপল্লি সেতুর কাছে তরুণীর মরদেহ পুড়িয়ে ফেলে ধর্ষকরা।

উল্লেখ্য, বাড়ি থেকে গত বুধবার পশু হাসপাতালে যান ওই তরুণী। সন্ধ্যায় সেখান থেকে ফিরে টোল প্লাজার কাছে তার স্কুটি দাঁড় করিয়ে ক্যাব নিয়ে গোচিবাওলিতে এক চিকিৎসকের সঙ্গে দেখা করতে যান। রাত নয়টায় টোল প্লাজায় ফিরে দেখেন তার স্কুটির টায়ার ফেটে গেছে। তখন দুই ট্রাকচালক তাকে সাহায্যের আশ্বাস দেন।

তরুণী যে টোল প্লাজার কাছে গাড়ি রেখেছিলেন সেখান থেকে তার জুতা, জামাকাপড় ও একটি মদের বোতল উদ্ধার করেছে পুলিশ। টোল প্লাজার কাছে একটি দোকানের মালিক বলেন, সকাল সাড়ে নয়টার দিকে ওই তরুণী তার অচল স্কুটি নিয়ে আসেন দোকানে। তখন তিনি জানতে পারেন স্কুটিটির টায়া ফেটে গেছে।

তিনি আরও বলেন, পৌনে দশটা নাগাদ ওই তরুণীকে ফোনে তার বোনের সঙ্গে কথা বলতে শুনেছেন তিনি। তিনি তার বোনকে স্কুটির টায়ার ফেটে যাওয়ার কথা জানাচ্ছিলেন। তবে বোনকে তিনি এও বলেন, স্কুটিটা একটু দূরে সড়ানো হলেও তার আশপাশে দুই ট্রাকচালক ঘোরাফেরা করছে। তাকে এ সময় আতঙ্কিত দেখাচ্ছিল।

তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, তরুণীর বোন পরামর্শ দিয়েছিলেন স্কুটি ছেড়ে টোল প্লাজার কাছে গিয়ে একটি ক্যাব ভাড়া করে বাড়ি ফিরতে। পরে যখন তরুণীর বোন তাকে আবার ফোন করেন, তখন তার মোবাইলটি বন্ধ ছিল। সকাল ১১টার দিকে তরুণীর পরিবার নিখোঁজ ডায়েরি করে।

সাইবারাবাদের পুলিশ কমিশনার ভি সি সজ্জনার জানিয়েছেন, টোল প্লাজার সিসিটিভি ফুটেজ পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। ঘটনার পূর্নাহঙ্গ তদন্ত শেষে বোঝা যাবে, ঘটনাটি আসলে কি ছিল। আমরা আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। আপনাদের জানানো হবে।

আরও পড়ুন: 

► ভারতে চিকিৎসক তরুণীকে ধর্ষণ করে পুড়িয়ে হত্যা

Add
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত