০৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০২:১১ এএম
আপডেট: ০৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০২:১৬ এএম

বেঁচে থাকার শক্তি ও সাহস যোগায় প্যালিয়েটিভ কেয়ার

বেঁচে থাকার শক্তি ও  সাহস যোগায় প্যালিয়েটিভ কেয়ার

মেডিভয়েস রিপোর্ট: দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত রোগীদের নিরাময় অনেকটা সম্ভব হয়ে উঠে না। কিন্তু প্যালিয়েটিভ কেয়ারের মাধ্যমে মৃত্যু পথযাত্রী রোগীদের কষ্ট, যন্ত্রণা ও দুর্ভোগ অনেকাংশেই লাঘব করা সম্ভব। 

সোমবার (২ ডিসেম্বর) বিকালে রাজধানীর বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর এর নলিনীকান্ত ভট্টশালী প্রদর্শনী গ্যালারিতে 'বিশ্ব হসপিস অ্যান্ড প্যালিয়েটিভ কেয়ার দিবস' উপলক্ষে প্যালিয়েটিভ কেয়ার সোসাইটি অব বাংলাদেশ আয়োজিত তিন দিনব্যাপী জনসচেতনতামূলক আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, নিরাময় অযোগ্য রোগীদের মানসিক প্রশান্তি দেয়ার জন্যই এ প্যালিয়েটিভ কেয়ার সিস্টেম। বেঁচে থাকার সাহস, শক্তি ও উৎসাহ যোগায় প্যালিয়েটিভ কেয়ার।

২ ডিসেম্বর শুরু হওয়া এ প্রদর্শনী ৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত  চলবে।

প্যালিয়েটিভ কেয়ার সোসাইটি অব বাংলাদেশের সভাপতি সৈয়দ সাদেক মো. আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় এর উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া। স্বাগত বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর প্যালিয়েটিভ কেয়ারের প্যালিয়েটিভ মেডিসিনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রফেসর নিজাম উদ্দিন আহমদ।

পরে প্রতিমন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে রাজধানীর টিএসসি'র শহিদ মুনীর চৌধুরী সম্মেলন কক্ষে 'মানিকগঞ্জ সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক পরিষদ ঢাকা' আয়োজিত বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক মো. আজহারুল ইসলাম রচিত "উপমহাদেশের চলচ্চিত্রের জনক হীরালাল সেন" শীর্ষক গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত