০৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০৬:৫৩ পিএম
আপডেট: ০৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০৭:০০ পিএম

ডা. বুলবুল সরওয়ারের স্বাস্থ্যের অগ্রগতি নেই, অর্থাভাবে হচ্ছে না উন্নত চিকিৎসা

ডা. বুলবুল সরওয়ারের স্বাস্থ্যের অগ্রগতি নেই, অর্থাভাবে হচ্ছে না উন্নত চিকিৎসা

মো. মনির উদ্দিন: কথাসাহিত্যিক ডা. বুলবুল সরওয়ারের শারীরিক অবস্থার উল্লেখযোগ্য কোনো অগ্রগতি হয়নি। আগের মতোই কথা বলতে পারেন না। খাওয়া-দাওয়া কিংবা প্রাকৃতিক কাজের বিষয়েও ইশারা করতে পারেন না জনপ্রিয় এ চিকিৎসক। স্বজনদের দিকে ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে থাকেন। উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশের নেওয়ার পরিকল্পনা থাকলেও বিপুল ব্যয়সাপেক্ষ হওয়ায় পরিবারের সদস্যদের পক্ষে তা সম্ভবপর হয়নি।   

তাঁর স্ত্রী দিলরুবা সরওয়ার মেডিভয়েসকে বলেন, ‘তার অবস্থা আগের চেয়ে একটু ভালো। তবে উল্লেখযোগ্য কোনো অগ্রগতি নেই। আগের মতোই কথা বলতে পারেন না। ডান পাশটা প্যারালাইজড অবস্থায় আছে। স্বজনদের কোনো কথা বা ইশারা-ইঙ্গিত বুঝতে পারেন না কিংবা নিজের প্রয়োজনগুলোও প্রকাশ করতে পারেন না। সাভারের পক্ষাঘাতগ্রস্ত ব্যক্তিদের পুনর্বাসন কেন্দ্রে (সিআরপি) চার মাস ধরে চিকিৎসা করানো হয়েছে। এর পর থেকে মাঝে মাঝে প্রস্রাব করার বিষয়ে ইশারা দিয়ে জানান। আবার কখনো পারেনও না।’

‘এছাড়া খাওয়া-দাওয়ার বিষয়ে কখনো কোনো ইশারা করেন না। তাই ঘড়ি ধরে সময় মতো তাঁকে খাবার সরবরাহ করা হয়’, যোগ করেন তিনি। 

সন্তান-সন্ততি ও স্বজনরা মিলে ডা. বুলবুল সরওয়ারকে সার্বক্ষণিক সেবা দিয়ে যাচ্ছেন বলে জানান তার স্ত্রী।    

দীর্ঘমেয়াদী এ চিকিৎসার ব্যয়ভার কিভাবে বহন করছেন জানতে চাইলে দিলরুবা সরওয়ার বলেন, ‘তাঁর শুভাকাঙ্ক্ষী, বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজন ও পরিচিতজন বিভিন্ন সময় টাকা পাঠিয়ে সহযোগিতা করছেন।’

স্বামীর অচলাবস্থায় নিজেদের অসহায়ত্ব তুলে ধরে তিনি বলেন, সবাই মিলে চেষ্টা করছেন, দিন-রাত সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। একটু যদি তার স্বাস্থ্যের অগ্রগতি হয়! যদি তাঁকে হাঁটানো যায়! যদি একটু সচল করা যায়! কিন্তু কোনোভাবেই অগ্রগতি আসছে না!

অর্থাভাবে নেওয়া যায়নি বিদেশে

পরিকল্পনা থাকলেও অর্থসংকটের কারণে ডা. বুলবুল সরওয়ারকে দেশের বাইরে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়নি। এ প্রসঙ্গে দিলরুবা সরওয়ার বলেন, ‘অসুস্থতার শুরুর দিকে ভারতে যোগাযোগ করেছিলাম। তারা চিকিৎসার জন্য ৬০ লাখ টাকা চেয়েছিল, সিঙ্গাপুর চেয়েছিল দেড় কোটি। এত টাকা পরিবারের একার পক্ষে বহন সম্ভব না। কেউ এগিয়ে আসেনি। সে কারণে দেশের বাইরে যাওয়া হয়নি।’

তিনি আরও জানান, ‘বর্তমানে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে ভারতের একজন চিকিৎসককে দেখানো হয়েছে। তিনি এমআরআই করতে চেয়েছেন। এর পর তিনি মূল চিকিৎসায় হাত দেবেন। চলতি মাসের ১৫/২০ তারিখের দিকে সেটা করার জন্য ইচ্ছা আছে। এজন্য তিনি ৩০ হাজার টাকা চেয়েছেন।’

ছাড়লেন ভাড়া বাসা 

বরেণ্য চিকিৎসকের অসুস্থতার কারণে সাংসারিক ব্যয় বহন করতে অপরাগ হওয়ায় রাজধানীর মোহাম্মদপুরের ভাড়া বাসাটি গত মাসে ছেড়ে দিয়েছেন তাঁর স্ত্রী দিলরুবা সরওয়ার। বর্তমানে গুলশানে মায়ের বাসায় স্বামীকে নিয়ে থাকছেন তিনি।

অসুস্থতার ইতিহাস

গত বছরের ২৮ অক্টোবর ইশকেমিক স্ট্রোকে আক্রান্ত হন জনপ্রিয় এ চিকিৎসক। পরে তাঁকে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

ওই বছরের ৩০ নভেম্বর ডা. বুলবুল সরওয়ারের টাইমলাইনে একটি পোস্টে বলা হয়, ডাক্তার বুলবুল সরওয়ার এর দীর্ঘমেয়াদি চিকিৎসার প্রয়োজন। কিন্তু তার জন্যে অনেক বড় অংকের টাকা প্রয়োজন।

তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ভারতের চেন্নাই নেয়ার সিদ্ধান্তের কথা উল্লেখ করে তার পরিবার জানায়, চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন প্রায় ৭০ লক্ষ টাকা।

বুলবুল সরওয়ারের বেড়ে ওঠা

১৯৬২ সালে গোপালগঞ্জ জেলায় জন্মগ্রহণ করেন ডা. বুলবুল সরওয়ার। গ্রামের স্কুল থেকে মেট্রিক ও ঢাকা কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষা কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হন। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাস করেন তিনি। পরবর্তীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন করেছেন। বাংলাদেশের একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি মিশরের কায়রো থেকে উচ্চশিক্ষা, পিএইচডি করেছেন। 

সাহিত্য চর্চা

ডা. বুলবুল সরওয়ার ৫৫টি বই লিখেছেন। তার মধ্যে ঝিলাম নদীর দেশ, ইস্তাম্বুল, রাজকন্যা কংকাবতী, মীর ত্বকী মীর, মহানগরী, রুবাইয়াতে বুলবুল, পত্র নয় প্রেম উল্লেখযোগ্য।

আরও পড়ুন: কথাসাহিত্যিক ডা. বুলবুল সরওয়ারের চিকিৎসায় এগিয়ে আসুন

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত