ডা. তাইফুর রহমান

ডা. তাইফুর রহমান

কনসালটেন্ট কার্ডিওলজি

জেনারেল হাসপাতাল, কুমিল্লা।


০৭ নভেম্বর, ২০১৯ ১০:১৪ এএম

হার্টে রিং: বেশি নড়াচড়ায় খুলে যেতে পারে!

হার্টে রিং: বেশি নড়াচড়ায় খুলে যেতে পারে!

মনসুর সাহেব পার্কে ব্যায়ামের প্রভাতি আসরের ট্রেইনার। প্রায় মাস খানেক হলো হার্টে একটা রিং লাগিয়েছেন। এখন ভয়ে ভয়ে ব্যায়াম করেন। কখন না জানি আবার রিংটা খুলে অন্য জায়গায় চলে যায়। আমাকে জিজ্ঞেস করেন কতদিন পর্যন্ত খুলে যাবার ভয় থাকবে?

আমি তখন মুচকি হাসি...।

প্রথমত কথা হলো, এটা ষ্টেন্ট, তথাকথিত রিং না। মানুষ রিং তথা আংটি আঙ্গুলের উপরে পড়ে। হাত জোরে নাড়াচাড়া করলে খুলে যেতেও পারে। বিয়ের রিং তো কতজনই খুলে ফেলে। অস্থির এই সমাজে একটু মনোমালিন্য হলেই এনগেজমেন্টের রিংটা খুলে ফেলতে কসুর করে না।

ষ্টেন্ট নামক রিংটা যে চিরজীবনের বন্ধন। জীবন বাঁচিয়ে রাখার লাইফ লাইন। ষ্টেন্ট হলো বলপেনের স্প্রিং এর মতো। এটা পেঁচানো অবস্থায় চুপসে থাকে। ভিতরে জন্মগতভাবেই একটা চুপসানো বেলুন থাকে।

হার্টে ব্লক থাকলে করোনারী রক্তনালির সরু হয়ে যায়। সরু অংশের ভিতরে একটি গাইড তারের উপর দিয়ে বেলুন সমৃদ্ধ ষ্টেন্টটা নিয়ে যাওয়া হয়। সরু হয়ে যাওয়া পুরো অংশটা কাভার করে বেলুনটা ফুলিয়ে দেয়া হয়। এতে করে মেটাল দিয়ে তৈরি স্প্রিং সদৃশ ষ্টেন্টটা রক্তনালির ভিতরের গাত্রের সাথে আঁটকে যায়। রক্তনালি ইলাস্টিক হওয়ায় এটা নিজেই চাঁপ দিয়ে ধরে। তারপরও ভিতরদিক দিয়ে বেলুন ফুলিয়ে ফুলিয়ে ষ্টেন্টটাকে নালীগাত্রের সাথে ভালোভাবে আটকে দেয়া হয়।

আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থায় যোগ হয়েছে আইভাস, মানে নালীর ভিতরের আলট্রাসাউন্ড। এটা দিয়ে দেখে দেখে খুব ভালোভাবে নালী গোত্রের সাথে মিশিয়ে দেয়া হয়। সুতরাং ষ্টেন্ট খুলে যাওয়ার প্রশ্নই আসে না।

আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থায় হার্ট এটাকের প্রথম চিকিৎসাই ষ্টেন্টিং করে ব্লক খুলে দেয়া, যাকে বলে প্রাইমারি পিটিসিএ। শুরুতে সুযোগ না থাকলেও ওষুধ প্রয়োগের পর যত দ্রুত সম্ভব ষ্টেন্টিং করিয়ে নেয়া উচিত।

অনেকে মনে করেন ব্লক তো খুলেই ফেললাম আর ওষুধ কেন?

না, ওষুধ সারাজীবনের জন্য। বরং আপনার রক্তনালীতে ফরেন বডি ঢুকিয়েছেন। তাই রক্ত জমাট বাঁধার প্রবণতা বেড়ে যাবে। তাই কিছুদিন ডাবল ডোজে রক্ত তরল করার ওষুধ খেতে হবে।

ষ্টেন্ট হার্ট ব্লক বা হার্ট অ্যাটাকের খুলে দেয়া লাইফ লাইন।

নতুন শনাক্ত দেড় সহস্রাধিক

ঈদের আগে করোনায় একদিনে ২৮ জনের মৃত্যু

দাবি পেশাজীবী সংগঠনের, রিট পিটিশন দায়ের

‘বেসরকারি মেডিকেলের ৮২ ভাগের বোনাস ও ৬১ ভাগের বেতন হয়নি’

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা
পিতাকে নিয়ে ছেলে সাদি আব্দুল্লাহ’র আবেগঘন লেখা

তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না
জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের সিসিউতে ভয়ানক কয়েক ঘন্টা

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না