০৬ নভেম্বর, ২০১৯ ০৬:৩৯ পিএম
আপডেট: ০৬ নভেম্বর, ২০১৯ ০৬:৪২ পিএম

চমেকের নতুন অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. শামীম হাসান

চমেকের নতুন অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. শামীম হাসান

মেডিভয়েস রিপোর্ট: চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (চমেক) নতুন অধ্যক্ষ হিসাবে নিয়োগ পেয়েছেন অধ্যাপক ডা. শামীম হাসান। এর আগে তিনি একই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের অধ্যাপক হিসাবে কর্মরত ছিলেন। একই সাথে বর্তমান অধ্যক্ষ ডা. সেলিম মোহাম্মদ জাহাঙ্গীরকে একই কলেজের ফার্মাকোলজি বিভাগে বদলি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মোহাম্মদ মোহসীন উদ্দিন স্বাক্ষরিত পৃথক দুটো প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, বিসিএস (স্বাস্থ্য) ক্যাডার সার্ভিসের কর্মকর্তা অধ্যাপক ডা. শামীম হাসানকে পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত তাঁর নামের পাশে বর্ণিত কর্মস্থলে (চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ) বদলি/পদায়ন করা হলো। জারিকৃত এ আদেশ অবিলম্বে কার্যকর করা হবে।

এদিকে, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. সেলিম মোহাম্মদ জাহাঙ্গীরের বদলির আদেশ প্রত্যাহার এবং তাকে স্বপদে বহালের দাবিতে ক্লাস বর্জন করে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা। বুধবার (৬ নভেম্বর) সকাল ১০টা থেকে কলেজের প্রধান ভবনের সামনে এ কর্মসূচি পালন করেছে শিক্ষার্থীরা। কর্মসূচিতে সমর্থন জানিয়েছে কলেজ ছাত্রসংসদ এবং ছাত্রলীগ।

চমেক অধ্যক্ষকে স্বপদে বহালের দাবিতে শিক্ষার্থীদের অবস্থান কর্মসূচি

শিক্ষার্থীদের দাবি, একজন সফল প্রতিষ্ঠান প্রধানকে কোনো কারণ ছাড়াই অন্যত্র বদলি মেনে নেওয়া যায় না। গত ১০ বছর ধরে তিনি অক্লান্ত পরিশ্রম করে শিক্ষার্থীদেরকে পড়া লেখায় ধরে রাখার পাশাপাশি চিকিৎসা সেবার মানোন্নয়নে কাজ করে গেছেন। তিনি অধিক গ্রহণযোগ্য এবং স্বচ্ছ প্রতিষ্ঠান প্রধান বলেই শিক্ষার্থীরা আজ তাকে বহালের দাবিতে রাস্তায় নেমে এসেছে।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান বলেন, সারাদেশে যখন বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রতিষ্ঠান প্রধানকে সরানোর জন্য শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করে যাচ্ছে। সেখানে আমাদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীরা অধ্যক্ষ সেলিম মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর স্যারকে স্বপদে বহাল রাখার জন্য অবস্থান কর্মসূচি পালন করতেছে সাধারণ শিক্ষার্থী। এতে বুঝা যাচ্ছে স্যার শিক্ষার্থীদের কাছে কতটুকু জনপ্রিয় ছিল এবং প্রতিষ্ঠান প্রধান হিসেবে কতটুকু সফল। ষড়যন্ত্রমূলকভাবে আমাদের স্যারের এভাবে অপসারণ করা সাধারণত শিক্ষার্থীরা মেনে নিতে পারেনি।

তিনি আরো বলেন, সৎ, যোগ্য, সফল এবং জনপ্রিয় আমাদের অধ্যক্ষ স্যারকে কোনো কারণ ছাড়া, অসম্মানজনকভাবে বদলির আদেশ (পদায়ন) করাটা গভীর ষড়যন্ত্র অংশ। কলেজকে সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে পরিচালনায় বর্তমানে অধ্যক্ষ স্যারের কোনো বিকল্প নেই। অনতিবিলম্বে অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. সেলিম মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর স্যারের বদলির আদেশ প্রত্যাহার ও পুনরায় স্বপদে বহালের জোর দাবি জানাচ্ছি।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ সাধারণ শিক্ষার্থী হোসাইন আহমেদ ফাহিদ বলেন, আমাদের অধ্যক্ষ ডা. সেলিম মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর স্যার দীর্ঘ দশ বছর যাবৎ সুন্দরভাবে কলেজ পরিচালনা করে আসছেন। হঠাৎ করে কোনো ধরনের ঘোষণা ছাড়াই তাকে ফার্মাকোলজি বিভাগে বদলি করা হয়েছে। স্যারের বদলির আদেশ প্রত্যাহার ও স্বপদে পুনর্বহালের দাবিতে ক্লাস বর্জন করে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীরা আরও বলেন, যেখানে সারাদেশে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিষ্ঠান প্রধানকে অপসারণের আন্দোলনে রয়েছে, সেখানে আমাদের স্যারকে রাখার আন্দোলনই প্রমাণ করে তিনি শিক্ষার্থীদের কাছে কতটা জনপ্রিয়।

চমেক হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জহিরুল হক ভূঁইয়া বলেন, সাধারণ শিক্ষার্থীরা চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. সেলিম মোহাম্মদ জাহাঙ্গীরের বদলির আদেশ প্রত্যাহার ও স্বপদে পুনর্বহালের দাবিতে ক্লাস বর্জন করে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে। কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা হয়নি। শান্তিপূর্ণভাবে অবস্থান কর্মসূচি শেষ হয়েছে।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত