০২ নভেম্বর, ২০১৯ ০৯:৩৮ পিএম
আপডেট: ০৩ নভেম্বর, ২০১৯ ০৮:২৪ এএম

ডেন্টালে জাতীয় মেধায় প্রথম মুবিন

ডেন্টালে জাতীয় মেধায় প্রথম মুবিন

মো. মনির উদ্দিন: ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষায় এবার জাতীয় মেধায় প্রথম হয়েছেন মুবিন ইবনে মকবুল। তার সর্বমোট স্কোর ২৯২.৫। এটি ডেন্টালে এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ স্কোর। তার রোল নম্বর ৫৪০৪৬১। 

মুবিন ইবনে মকবুল এ বছর এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় ১১০তম হয়েছেন। পাশাপাশি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিপরীক্ষায় ঘ ইউনিটে হয়েছেন প্রথম। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ক ইউনিটে ৭১তম ও ঘ ইউনিটে ২৩তম স্থান অর্জন করেন। এছাড়া প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় ও আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন তিনি।   

মুবিন গভর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি হাইস্কুল থেকে এসএসসি ও নটরডেম কলেজ থেকে কৃতিত্বের সঙ্গে এইচএসসি পাস করেন। তার গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার ভাটিয়াপাড়ায়। 

তার বাবা হাজী মো. মকবুল হোসাইন ও মা ইসমত জাহান। তারা দুজনই রাজধানীর মিরপুরে শাহ আলী কলেজে প্রভাষক হিসেবে কর্মরত করছেন।

এমন চমৎকার ফলাফলের অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে মুবিন ইবনে মকবুল মেডিভয়েসকে বলেন, ‘আমি খুবই খুশি। আমার সাফল্যের জন্য সর্বপ্রথম আল্লাহ তায়ালার কাছে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। আমার বাবা-মা, শিক্ষকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি।’

এ ফলাফলের জন্য আশাবাদী ছিলেন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এটা খুব বড় কিছু না। আল্লাহ যেভাবে চাইবেন সেভাবেই হবে। আশাবাদী হওয়া না হওয়ার ওপর এটি নির্ভরশীল না। পরীক্ষা ভালো হয়েছিল, তখন ভেবেছিলাম—ইনশাল্লাহ ভালো কিছুই হবে।’

ডেন্টালে প্রথম হলেও ভবিষ্যতে একজন নিউরোসার্জন হতে আগ্রহী ঢাকা মেডিকেল কলেজে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হওয়া এ শিক্ষার্থী। তিনি বলেন, ‘ডেন্টালে নয়, ঢাকা মেডিকেলেই পড়াশোনা করবো আমি।’

মেডিভয়েসের পক্ষ থেকে মুবিন ইবনে মকবুলকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন!

মুবিনের যত মেধাবী স্বজন 

মুবিন ইবনে মকবুলের সর্বকনিষ্ঠ চাচা ডা. আরিফ হোসেন এবার জাপানের সেরা তরুণ বিজ্ঞানী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। ৬১ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম কোন নন-জাপানিজ হিসেবে এ গৌরবময় পুরস্কার অর্জন করেন তিনি।

জাপান মেডিকেল সায়েন্সের ইতিহাসে অবিস্মরণীয় এ ঘটনার জন্ম দেওয়া ডা. আরিফ বর্তমানে দেশটিতে একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের জ্যেষ্ঠ গবেষক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।  

Lysosomal diseases এর mechanisms এবং treatment আবিষ্কারের জন্য তাকে এ সম্মান দেয় জাপানিজ সোসাইটি অব ইনহেরিটেড ম্যাটাবলিক ডিজঅর্ডার্স। 

তার আরেক চাচা ডা. সিদ্দিকুর রহমান ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করছেন। নিজ পেশায় গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য তিনি তিনবার রাষ্ট্রপতি ও একবার প্রধানমন্ত্রীর পুরস্কারে ভূষিত হন। গবেষণা কর্ম চালিয়ে যেতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর হাতে আড়াই লাখ টাকার চেক তুলে দেন। 

অধ্যাপক ডা. সিদ্দিকুর রহমান গবাদি পশুর রোগের চিকিৎসার ভ্যাকসিন ব্রুসেলোসিস আবিষ্কার করেছেন, যা বিশ্বে প্রথম।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত