ডা. কাওসার উদ্দিন

ডা. কাওসার উদ্দিন

সহকারী সার্জন

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়।


২৭ অক্টোবর, ২০১৯ ০৯:৫১ এএম
আপডেট: ২৭ অক্টোবর, ২০১৯ ১১:৪৯ এএম

মমেক হাসপাতাল: সীমিত বাজেটে রোগীর সেবায় যুগান্তকারী পদক্ষেপ

মমেক হাসপাতাল: সীমিত বাজেটে রোগীর সেবায় যুগান্তকারী পদক্ষেপ

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। সেবাদানে এ প্রতিষ্ঠানের আজ যেখানে অবস্থান তা একজন মানুষের সৎ, সাহসিকতা ও আন্তরিকতার এক বিস্ময়কর রূপ। একজন মানুষ কতটা নিবেদিত প্রাণ হতে পারেন, কতটা উজার করে দিতে পারেন নিজেকে, হতে পারেন কতটা মহৎ তার দৃশ্যমান নজির এ হাসপাতালের পরিচালক স্যার।

মেডিকেল জীবন থেকে শুরু করে ক্ষুদ্র চাকরী জীবন, যতটুকু যা দেখেছি তাতে অবিস্মৃত স্মৃতি হয়ে থাকবে এ ক্ষুদ্র সময়টুকু। আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি, একজন মানুষের যে স্বপ্ন, স্বদিচ্ছা, ডেডিকেশন, তা যদি যথাযথ পারিপার্শ্বিক সাপোর্ট পেত তবে এ প্রতিষ্ঠান বিশ্বমানের যে কোন হাসপাতালের চেয়ে কোন অংশে কম হত না।

রোগী অনুপাতে সীমিত বাজেটের কার্যকর ব্যবহারে রোগীর সেবা প্রদানে এখানে নেয়া হয়েছে অজস্র যুগান্তকারী পদক্ষেপ। ওষুধ, খাবার, টেস্ট, চিকিৎসা, ওয়ার্ডের পরিবেশ, শৃঙ্খলা, সবকিছু অন্য যে কোন জায়গার চেয়ে ঈর্ষনীয়। সেবাদানকারী চিকিৎসক, নার্স ও অন্যান্য বিভাগের কর্মচারীদের আচরণেও এসেছে আমূল পরিবর্তন। এটা বেশ দৃঢ়তার সাথেই বলতে হয়, গরীব রোগীরা ২০ টাকা দিয়ে ভর্তি হয়ে যে সেবা পাচ্ছে, বাইরের ২০ হাজার টাকায়ও এর সমান সেবা তারা পেত না। এ অর্জন নিঃসন্দেহে দেশের স্বাস্থ্য সেবার জন্য অনেক বড় প্রাপ্তি।

কোথায় কি প্রয়োজন, কোথায় কোন সমস্যা আছে, মনিটর করছেন প্রতিনিয়ত। সমস্যা সমাধানে কাজ করেন দিবারাত্র। রোগীদের কথা শুনছেন, সাধ্যমত চেষ্টা করছেন, সীমিত অবকাঠামো আর স্বল্প রিসোর্স দিয়ে প্রতিদিন শত সহস্র রোগীর চিকিৎসা সেবা প্রদানে তিনি পরিচালকের গুরুদায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন একাগ্রচিত্তে। দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে সততার সাথে নিজের শতভাগ দিয়ে কাজ করছেন শুধুমাত্র স্রষ্টার সন্তুষ্টি অর্জনে।

স্বপ্ন একটাই, এমন আদর্শের সৎ মানুষগুলো দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার পরিবর্তনে যুগযুগ ধরে কাজ করুক। বড় এই আদর্শ থেকে আদর্শ ছড়িয়ে পড়ুক দেশের প্রতিটা স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান ও এ ব্যবস্থায় কর্মরত সকল দায়িত্বশীল ব্যক্তির চিন্তা ও কর্মে। তাহলেই আসবে এই হাসপাতালের মত কাঙ্খিত পরিবর্তন দেশের সবর্ত্র। ভাল স্বাস্থ্য প্রশাসকদের সৎ সাহসিক কর্মে আমাদের স্বাস্থ্য সেবার মান বৃদ্ধি পাবে বহুগুন।

হাজারো কথা মনে। লিখতে লিখতে দীর্ঘায়িত হয় অনেক। আজ যে ক্ষুদ্র ক্ষণ, যে আন্তরিক অনুপ্রেরণাময় সাক্ষাৎ, তা আমাদের জন্য অনেক বড় প্রাপ্তি। এ আয়োজন, আতিথেয়তা, আন্তরিকতা, উপদেশ, সান্নিধ্য আমাদের মনে চির অম্লান হয়ে থাকবে। তার বিচক্ষণতা আমাদের সাহস যোগাবে, মূল্যবান দিক নির্দেশনাময় প্রতিটা শব্দ আমাদের সাহায্য করবে ভবিষ্যতের পথে চলতে। ক্ষুদ্র এ আমি আমরায় তার বৃহৎ মনের অবারিত ভালবাসার যে সরল প্রকাশ তা আজীবন আমাদের স্মৃতিতে গাঁথা থাকবে। এর কোন বিনিময় নেই, বিনিময় শুধু সৃষ্টির কল্যাণে যথাযথ দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে স্রষ্টার সন্তুষ্টি অর্জন।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত