২৩ অক্টোবর, ২০১৯ ০৯:০৩ পিএম
আপডেট: ২৩ অক্টোবর, ২০১৯ ০৯:০৪ পিএম

নার্সিং সমস্যা সমাধানে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে দায়িত্ব দিলেন প্রধানমন্ত্রী

নার্সিং সমস্যা সমাধানে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে দায়িত্ব দিলেন প্রধানমন্ত্রী

মেডিভয়েস রিপোর্ট: স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে নার্সিং পাস করা শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিরাজমান সমস্যা সমাধানের উপায় খুঁজে বের করতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে দায়িত্ব দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বুধবার দুপুরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক ও স্বাস্থ্য সচিব (স্বাস্থ্য শিক্ষা) শেখ ইউসুফ হারুন নার্সিং সেক্টরের বিরাজমান সমস্যা অবহিত করতে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এ কথা জানান।

সাক্ষাৎকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য সচিব প্রধানমন্ত্রীকে জানান, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের রুল অব বিজনেস অনুসরণ না করে এবং বাংলাদেশ নার্সিং ও মিডওয়াইফারি কাউন্সিল আইন ভঙ্গ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি বোর্ড পেশেন্টকে টেকনোলজিস্ট ডিপ্লোমা ইন নার্সিং সায়েন্স অ্যান্ড মিডওয়াইফারি কোর্স পরিচালনা করছে।

তারা জানান, নার্সিংয়ের বিভিন্ন কোর্স স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে পরিচালিত হয়। এক্ষেত্রে নার্সদের ন্যূনতম শিক্ষাগত যোগ্যতা এইচএসসি পাস। এর বিভিন্ন কোর্স, কারিকুলাম ও নীতিমালা ভিন্ন। ব্যবহারিক শিক্ষার জন্য কারিগরি বোর্ডের মাধ্যমে পরিচালিত নার্সিং কোর্সের শিক্ষার্থীদের হাতে-কলমে শিক্ষার জন্য কোনো রোগী ও হাসপাতাল নেই। তদুপরি এখন কারিগরি বোর্ড থেকে পাস করা নার্সিং অ্যান্ড মিডওয়াইফারি কাউন্সিল থেকে রেজিস্ট্রেশন চাইছে। এ নিয়ে আদালতে স্বাস্থ্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পাল্টাপাল্টি মামলা চলছে।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ইতোমধ্যেই কারিগরি বোর্ডের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে যে সকল শিক্ষার্থী নার্সিং কোর্স পাস করে বের হয়েছে তাদেরকে একেবারে অস্বীকার করা যাবে না। তারা সরকারি বিয়ার একটি মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে পড়াশোনা করে পাস করেছে এবং সার্টিফিকেট লাভ করেছে। এখন তাদেরকে কীভাবে স্বীকৃতি দেয়া যায়, কীভাবে তাদেরকে কাজে লাগানো যায় সে উপায় বের করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব (স্বাস্থ্য শিক্ষা) শেখ ইউসুফ হারুন গণমাধ্যমকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমস্যা সমাধানের দায়িত্ব জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ওপর ন্যস্ত করেছেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রী শিগগিরই জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের সঙ্গে বসে এর গ্রহণযোগ্য সমাধান খুঁজে বের করবেন।

এর আগে মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সম্প্রসারিত আধুনিক কার্ডিয়াক আইসিইউ এবং অপারেশন থিয়েটার (ওটি) কমপ্লেক্সের উদ্বোধন, ফলক উন্মোচন করে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, নার্সদের সমস্যার সমাধানে উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। অচিরেই এর সমাধান হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, লাইসেন্সিং পরীক্ষা নেয়াসহ বিভিন্ন দাবি-দাওয়া আদায়ের জন্য নার্সদের আন্দোলন ও ধর্মঘটকে আন্তঃমন্ত্রণালয়ের সমস্যা। আমরাও নার্স তৈরি করি, শিক্ষামন্ত্রণালয়ও কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের আওতায় নার্স তৈরি করে থাকে। আমার মনে হয় এটা স্বাস্থ্যের অধীনে থাকাই ভালো।

বিষয়টি নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর আলোচনা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, নার্সরা যদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে প্রশিক্ষণ নেয় সেটাই মনে হয় ভালো হয়। আমরা আলাপ করছি। এর একটা সমাধানের উদ্যোগ ইতোমধ্যে গ্রহণ করেছি। খুব অচিরেই এর সমাধান হয়ে যাবে।

প্রসঙ্গত, অবিলম্বে লাইসেন্সিং পরীক্ষা নেয়াসহ বিভিন্ন দাবি-দাওয়া আদায়ের জন্য আন্দোলনরত নার্সরা পূর্বঘোষণা অনুযায়ী মঙ্গলবার (২২ অক্টোবর) অবস্থান ধর্মঘট পালন করেন। সকাল ১০টা থেকে বাংলাদেশ নার্সিং ও মিডওয়াইফারি কাউন্সিল দপ্তরে এ অবস্থান ধর্মঘট করেন তারা।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত