২০ অক্টোবর, ২০১৯ ০৩:২৯ পিএম
আপডেট: ২০ অক্টোবর, ২০১৯ ০৩:৩৭ পিএম

বিএসএমএমইউতে দেশের প্রথম অসংক্রামক রোগের বৈজ্ঞানিক কংগ্রেসের উদ্বোধন

বিএসএমএমইউতে দেশের প্রথম অসংক্রামক রোগের বৈজ্ঞানিক কংগ্রেসের উদ্বোধন

তানভীর সিদ্দিকী: দেশে সংক্রামক ব্যাধির চেয়ে অসংক্রামক রোগের বিস্তার ক্রমেই বাড়ছে। ক্যান্সার, হৃদরোগ, ডায়াবেটিসসহ নানা অসংক্রামক রোগের কারণে পূর্বের যে কোনো সময়ের তুলনায় মানুষের অসুস্থতা ও মৃত্যুহার বেশী। এই পরিস্থিতিতে “ক্লিনিক্যাল রিসার্স প্ল্যাটফর্ম, বাংলাদেশ” দেশের অসংক্রামক রোগের কার্যকর নিয়ন্ত্রণে এবং দেশের চিকিৎসক, গবেষক ও জনস্বাস্থ্য গবেষকদের গবেষণা কাজে উৎসাহিত করতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) অসংক্রামক রোগসমূহ নিয়ে দেশে প্রথমবারের মতো বৈজ্ঞানিক কংগ্রেসের উদ্বোধন করা হয়েছে।

রোববার (২০অক্টোবর) সকালে বিএসএমএমইউ’র শহীদ ডা. মিলন হলে দেশের প্রথমবারের মতো দু’দিনব্যাপী বৈজ্ঞানিক এ কংগ্রেসের উদ্বোধন করা হয়।

বিএসএমএমইউ ও আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশের (আইসিডিডিআরবি) যৌথ উদ্যোগে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিএসএমএমইউ’র উপাচার্য অধ্যাপক কনক কান্তি বড়ুয়া। আইসিডিডিআরবির ভারপ্রাপ্ত এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মোঃ শহীদুল্লাহ সিকদার, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. সাহানা আখতার রহমান, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলম, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, কংগ্রেসের কনভেনর আইসিডিডিআরবির ইনেশিয়েটিভ ফর নন কমিউনিকেবল ডিজিজেস হেলথ সিসটেম এন্ড পপুলেশন স্টাডিস ডিভিশনের (এইচএসপিএসডি) হেড ডা. আলিয়া নাহিসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সরকারি অধিদফতরের কর্মকর্তা, সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞানী, শিক্ষক, চিকিৎসক ও গবেষকরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ আসাদুল ইসলাম বলেন, ‘বর্তমান সরকার বিজ্ঞানী, চিকিৎসক ও গবেষকদের গবেষণামুখী করে তোলার সব চেষ্টাই করে যাচ্ছে। স্বাস্থ্যখাতে গবেষণা বিষয়ে বিভিন্ন সময়োপযোগী উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। তরুণ গবেষকরা  যেন নানামাত্রায় দেশের সমস্যা বিবেচনা করে গবেষণায় আগ্রহী হয় সে প্রত্যাশাই করছি আমি। আগামী কয়েক দশকের মধ্যে আন্তর্জাতিক গবেষণা পরিমন্ডলে বাংলাদেশের অবস্থান আরও জোরালো হবে বলে আমি বিশ্বাস করি।’

সভাপতির বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, ‘চিকিৎসকরা এখন গবেষণামুখী হচ্ছে। আমাদের দেশের বাস্তবতায় অসংক্রামক রোগ নিয়ে আরও গবেষণায় চিকিৎসক ও গবেষকদের অংশগ্রহণ জরুরী।  টেকসই উন্নয়নের জন্য আমাদের গবেষণায় বহুমাত্রিকতা যুক্ত করতে হবে।’

আইসিডিডিআর,বির ভারপ্রাপ্ত এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, ‘আইসিডিডিআরবি সব সময়ই নানান মাত্রার গবেষণাকে গুরুত্ব দিয়ে আসছে। শুধু দেশের বিভিন্ন সমস্যাকে নয়, পৃথিবীর টেকসই উন্নয়নের জন্য আমাদের সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। দেশের চিকিৎসক, শিক্ষক, গবেষক, জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও বিজ্ঞানী সবাইকে দেশকে এগিয়ে নেয়ার জন্য গবেষণার দিকে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে।’

জানা য়ায়, ১৯৯০ সালে দেশে প্রতি ১০টি মৃত্যুর মধ্যে সাতটি হয় সংক্রামণ রোগের কারনে। আর দুই দশক পরে ১০ মৃত্যুর মধ্যে সাতটিই অসংক্রামক রোগের কারণে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুসারে ২০১৬ সালে দেশে অসংক্রাক রোগে ৫ লাখ ৭২ হাজার ৬০০ জন ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। যা মোট মৃত্যুর ৬৭ শতাংশ। এর মধ্যে ৩০ শতাংশ মৃত্যুই হৃদরোগে, ১২ শতাংশ ক্যানসার, অন্যান্য অসংক্রাম রোগে ১২শতাংশ, শ্বাসতন্ত্রের দীর্ঘমেয়াদি রোগে ১০ শতাংশ, ডায়াবেটিসে ৩ শতাংশ। ৩০ থেকে ৭০ বছর বয়সের মানুষ এ অসংক্রামক রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। দেশে পরিবারের মোট চিকিৎসার ব্যয়ের ৭১ শতাংশ খরচ হচ্ছে অসংক্রামক রোগে।

সোমবার (২১ অক্টোবর) সন্ধ্যায় সমাপনী অনুষ্ঠানে মাধ্যমে এ বৈজ্ঞানিক কংগ্রেস শেষ হবে।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত