ঢাকা      রবিবার ১৫, সেপ্টেম্বর ২০১৯ - ৩১, ভাদ্র, ১৪২৬ - হিজরী

মেধাবী নিউরন

সাবাহ হক

সাবাহ হক। ২০১৪ সালে জানুয়ারিতে চূড়ান্ত পেশাগত পরীক্ষায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ১ম স্থান অধিকার করেন। এই অসাধারণ অর্জনের জন্য লাভ করেছেন স্বর্ণপদক। এই অর্জনের অনুভূতি জানতে তার মুখোমুখি হয়েছিল মেডিভয়েস। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন ডাঃ তুহিন মুশফিক
 

প্রোফাইল
নাম: সাবাহ হক
পিতা ঃ  জালালউদ্দীন আশরাফুল হক
স্কুল ঃ Kelantan International School, Malaysia
কলেজ ঃ Methodist College Kualalampur, Malaysia
মেডিকেল কলেজ ঃ ঢাকা মেডিকেল কলেজ, ব্যাচ কে-৬৬
বিশেষ অর্জন ঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে চুড়ান্ত পেশাগত পরীক্ষা’২০১৪ তে প্রথম স্থান অধিকারে সম্মাননা স্বরুপ স্বর্ণপদক লাভ।
প্রিয় লেখক  ঃ আগাথা ক্রিস্টি
প্রিয় বই  ঃ প্রথম প্রতিশ্রুতি
প্রিয় ব্যক্তিত্ব  ঃ নেলসন ম্যান্ডেলা
প্রিয় রং  ঃ সবুজ
প্রিয় শখ  ঃ গীটার বাজানো

মেডি ভয়েসঃ আপনার অসাধারন এই সাফল্যের পেছনের রহস্য কি ?
সাবাহ হক ঃ নিয়মিত লেখাপড়া করা, ক্লাসে মনযোগী হওয়া, প্রতিদিনের লেকচার ও ওয়ার্ডের পড়া প্রতিদিন পড়া এবং সবসময় চেষ্টা করেছি সব বিষয়ে স্পষ্ট ধারনা রাখার।

মেডিভয়েস ঃ সাফল্যের পেছনে কাদের অবদান বড় করে দেখছেন?
সাবাহ হক  ঃ প্রথমেই সৃষ্টিকর্তাকে ধন্যবাদ। তারপর আমার বড় বোনের কথা বলতেই হয়। আপু সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ থেকে তিনটি পেশাগত পরীক্ষায়  প্রথম স্থান অর্জন করেছিলেন। তিনি আমার সাফল্যের পেছনে অনুপ্রেরণা যুগিয়েছেন। বাবা-মা সবসময় আমার পাশে ছিলেন। ঢাকা মেডিকেল কলেজের শিক্ষকবৃন্দ এবং বন্ধুদের সাহায্য ছাড়া আমি কখনোই এ সাফল্য অর্জন করতে পারতাম না। তাদের প্রতিও আমি কৃতজ্ঞ।

মেডিভয়েস ঃ পেশাগত পরীক্ষার জন্য কিভাবে প্রস্তুতি নিলে ফলাফল ভাল করা সম্ভব বলে আপনি মনে করেন?
সাবাহ হক ঃ পেশাগত পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য  বিষয়গুলো রুটিন করে পড়তে হবে। যে বিষয়ের সিলেবাস সবচেয়ে বড় সে বিষয়ে বেশী সময় দিতে হবে। টেক্সট বই পড়ার পাশাপাশি ক্লাসের লেকচার ও আগের বছরগুলোর প্রফের প্রশ্ন সলভ করতে হবে। ভাইভার জন্য গ্রুপ ডিসকাশন খুবই গুরুত্বপূর্ন।

মেডিভয়েস ঃ ভাল ফলাফল করতে এছাড়া আর কি কি দক্ষতা থাকা প্রয়োজন বলে আপনি মনে করেন?
সাবাহ হক ঃ সব পেশাগত পরীক্ষার তিনটি অংশ থাকে ঃ লিখিত, ভাইভা ও প্রাকটিক্যাল। লিখিত পরীক্ষায় ভাল করার জন্য স্পষ্ট হাতের লেখা; ভাইভার জন্য ভালভাবে কথা বলার ক্ষমতা আর প্রাকটিক্যালের জন্য কম সময়ে গুছিয়ে উত্তর দেবার দক্ষতার প্রয়োজন আছে। এসব দক্ষতা অর্জন করার জন্য লেখাপড়ার বাইরেও অন্যান্য বিষয়ে চর্চা থাকা দরকার।

মেডিভয়েস ঃ বর্তমান মেডিকেল শিক্ষা ব্যবস্থাকে কিভাবে মূল্যায়ন করছেন?
সাবাহ হক ঃ আমাদের দেশের মেডিকেল শিক্ষা ব্যবস্থা খুবই ভাল। প্রতি বছর অনেক নবীন চিকিৎসক মেডিকেল কলেজগুলো থেকে পাশ করছে। তারা দেশের জনগনকে স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছেন। বাংলাদেশের চিকিৎসকরা বিদেশেও অনেক অবদান রাখছেন। তবে আমাদের মেডিকেল শিক্ষায় গবেষণার ওপর জোর দেওয়া উচিত। প্রতি বছর নতুন সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠা হচ্ছে। তবে কথা হল মেডিকেল কলেজের সংখ্যার সাথে  এর গুনগত মানও বাাড়াতে হবে। 

মেডিভয়েস ঃ ভবিষ্যতে কিসে ক্যারিয়ার করতে চান?
সাবাহ হক ঃ গবেষনা করার আমার ইচ্ছা আছে। ক্যান্সার এখনো একটি দূরারোগ্য রোগ। তাই ক্যান্সার নিয়েই গবেষণামূলক কাজ করতে চাই।

মেডিভয়েস  ঃ ক্লিনিক্যাল সেক্টরে আপনার আদর্শ কে?
সাবাহ হক  ঃ আমাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজের প্রাক্তন অধ্যক্ষ ও অধ্যাপক ডা. কাজী দীন মোহাম্মদ স্যার। স্যারের ব্যবহার ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতি স্নেহ-মায়া মমতা এবং ক্লিনিক্যাল দূরদর্শীতা সবকিছু আমাকে মুগ্ধ করে।

মেডিভয়েস  ঃ কোন কোন ক্ষেত্রে আশু পরিবর্তন আনা জরুরী বলে আপনি মনে করেন ? 
সাবাহ হক  ঃ আমাদের এম বি বি এস কোর্সের কিছু অপ্রাসঙ্গিক বিষয় বাদ দিয়ে সৃজনশীল ও গবেষণামূলক লেখাপড়ার উপর গুরুত্ব দেয়া দরকার। উন্নত দেশগুলোতে গবেষণামূলক কাজ এবং প্রকাশনার উপর যেমন জোর দেওয়া হয় আমাদের দেশেও আমি মনে করি এ দিকে মনোযোগ দেওয়া দরকার। বি সি এস পরীক্ষা দিয়ে যখন চিকিৎসকদের উপজেলা পর্যায়ে নিয়োগ দেয়া হয় তখন তাদেরকে আধুনিক জীবন যাপনের সুযোগ সুবিধা, সেবা দেয়ার উপযুক্ত পরিবেশ ও যথাযথ নিরাপত্তা নিশ্চিত করা জরুরী।

মেডিভয়েস  ঃ আপনার বাবা ডা. জালালউদ্দিন আশরাফুল হক মেডিভয়েসে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন আগে এবার একই পত্রিকায় নিজের যোগ্যতা বলে মেধাবী নিউরনে জায়গা করে নিলেন আপনি। কেমন লাগছে আপনার? 
সাবাহ হক  ঃ আমি তার কন্যা হিসেবে আনন্দিত এবং গর্বিত।

মেডিভয়েস  ঃ মেডিভয়েস সম্পর্কে কিছু বলুন।
সাবাহ হক  ঃ চিকিৎসকের কথা বলার ও জানানোর একটি অত্যন্ত ভাল প্লাটফর্ম হল মেডিভয়েস। আমাদের সুবিধা-অসুবিধা ও দাবী তুলে ধরার একটি সুন্দর সুযোগ এই পত্রিকাটি। মেডিভয়েসের মাধ্যমে আমরা পোস্টগ্র্যাজুয়েশন এর পড়াশোনা সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য ও টিপস পেয়ে থাকি।  তাছাড়া অনেকেই তাদের সৃজনশীল প্রতিভা প্রকাশের সুযোগ পাচ্ছে। এটি একটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ। আগামীদিনে মেডিভয়েস যেন আরও উন্নতি করতে পারে এই শুভ কামনা রইল।

 

(মেডিভয়েস : সংখ্যা ৫, বর্ষ ২, জুন-জুলাই ২০১৫ তে প্রকাশিত)

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর