১৫ অক্টোবর, ২০১৯ ০১:২৮ পিএম

ক্যারিয়ার গড়তে অর্থোপেডিক্স বেস্ট সাবজেক্ট: অধ্যাপক ডা. শহীদুল ইসলাম

ক্যারিয়ার গড়তে অর্থোপেডিক্স বেস্ট সাবজেক্ট: অধ্যাপক ডা. শহীদুল ইসলাম
অধ্যাপক ডা. সৈয়দ শহীদুল ইসলাম। ছবি: মেডিভয়েস

মেভিয়েস রিপোর্ট: দেশের প্রেক্ষাপট ও সুপার স্পেশালিটির দিক থেকে ক্যারিয়ার করার জন্য অর্থোপেডিক্স একটি বেস্ট সাবজেক্ট বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানের (নিটোর) সদ্য সাবেক একাডেমিক পরিচালক অধ্যাপক ডা. সৈয়দ শহীদুল ইসলাম। সম্প্রতি মেডিভয়েসকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেন তিনি।

অর্থোপেডিক্সে ক্যারিয়ার করতে আগ্রহীদের উদ্দেশে অধ্যাপক ডা. শহীদুল ইসলাম বলেন, সারা দেশে দুর্ঘটনাজনিত কারণে মৃত্যুর হার পরিসংখ্যানের দিকে থেকে তৃতীয় নম্বরে রয়েছে। প্রথম স্থানে রয়েছে কার্ডিওভাসকুলার বা হৃদরোগ সংক্রান্ত আর দুই নম্বরে ক্যান্সার। কিন্তু আগামী কয়েক বছরের মধ্যে আমাদের দেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে এটি দ্বিতীয় কারণে পরিণত হবে।

অর্থোপেডিক্সের ব্যাপ্তি অনেক বেশি উল্লেখ করে বাংলাদেশ অর্থোপেডিক সোসাইটির সাবেক এ মহাসচিব বলেন, এই সাবজেক্টে আসলে প্রাইভেট প্র্যাক্টিসও সুন্দরভাবে করতে পারবেন। হাসপাতালগুলোতে অর্থোপেডিক্স বিভাগের শয্যাগুলো তো কখনও খালি থাকে না, বরং অনেক সময় ফ্লোরেও চিকিৎসা দিতে হয়।

মানবসেবায় আগ্রহীদের অর্থোপেডিক্সে আসার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আপনি যদি আর্থিকভাবে সফল হতে চান তাও আপনি অর্থোপেডিক্সে আসতে পারেন। এখানে সেবা করার সুযোগ আছে। আমি স্পাইনাল সার্জারি করি। ইনজুরি হয়ে প্যারালাইজড হয়ে আছে পা নাড়াতে পারছে না। এমন রোগী যখন আমার অপারেশনের পর হেঁটে যায়, এর চেয়ে আনন্দের আর কী আছে একজন চিকিৎসকের কাছে? এটা টাকা দিয়ে পরিমাপ করা যায় না।

স্পাইন সার্জারি, আর্থোস্কোপি ও আর্থোপ্লাস্টি বিষয়গুলোতে এদেশে ফেলোশিপ চালুর বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেয়া যায় কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এই জায়গাতে আমাদের একটু দুর্বলতা আছে। সারা বাংলাদেশে এটা আমরা দাঁড় করাতে পারিনি। কারণ আমাদের অবকাঠামো অতোটা ভালো না। এই কথা চিন্তা করে আমাদের অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত নিয়ে আমরা নিটোরে ছয়টি সুপার স্পেশালিটি করেছি। স্পাইন সার্জারি, আর্থোস্কোপি, আর্থোপ্লাস্টি, ইলিজারেবন ডিকনস্ট্রাকশন, পেডিয়াট্রিক অর্থোপেডিক্স এবং প্রিকনস্ট্র্যাক্টিভ সার্জারি এই সুপার স্পেশালিটিগুলো আমাদের এখানে চালু করেছি।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের অপারেশন থিয়েটারের (ওটি) সুযোগ-সুবিধা কম। ফলে এই স্পেশালিটিগুলোর জন্য বিশেষ ডেডিকেটেড টিম গড়তে পারছি না। আমি স্পাইনাল সার্জারিতে একদিনে আটটা অপারেশনের বেশি করতে পারছি না। আমার রোগী তো অনেক ভর্তি হয়ে আছে।  রোগীর ভর্তির পর সঠিক সময়ে অপারেশন করতে পারছি না। এখনই অপারেশন করা দরকার, কিন্তু করতে হচ্ছে ১০ থেকে ২০ দিন পর। এই দেরিতে অপারেশনের ফলে ফলাফলটাও কিন্তু ভিন্ন হচ্ছে। এটার যেমন উন্নয়ন করা দরকার। একই সাথে এই সাবজেক্টে ফেলোশিপ চালু করা দরকার।'

বাংলাদেশ অর্থোপেডিক্স সোসাইটির মহাসচিব থাকাকালীন অর্থোপেডিক্সের গুরুত্ব বাড়ানোর জন্য অনেক সেমিনার করেছেন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বাইরে থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এনে নিটোরে তৎকালীন সরকারের সহায়তায় আমরা প্রশিক্ষণ নিয়েছি। সম্প্রতি একাডেকি কাউন্সিল মিটিংয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে, এই সুপার স্পেশালিটির ফেলোশিপ চালু করবো। আমাদের যে সীমিত লোকবল আছে এই দিয়ে আমরা তাদেরকে প্রশিক্ষণ দিয়ে সারাদেশে ছড়িয়ে দেবো, যাতে এই সুপার স্পেশালিটিতে সবাই দক্ষ হতে পারে।’

এজন্য সরকারের সাথে আলোচনা হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ছুটিতে এসে যাতে একজন এই ফেলোশিপ প্রশিক্ষণটা নিতে পারে। এটা অবশ্যই করা হবে। যদিও আমি থাকবো না, তবে এটা করা হবে। কেননা আমাদের বর্তমান পরিচালক এ বিষয়ে যথেষ্ট আগ্রহী। এছাড়াও এর জন্য আমাদের ডেডিকেটেড টিম রয়েছে।’

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি