ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯, ৮ কার্তিক ১৪২৬,    আপডেট ৫ ঘন্টা আগে
১০ অক্টোবর, ২০১৯ ১৯:৪৯ আপডেট: ১০ অক্টোবর, ২০১৯ ২২:২০

মেডিকেল ভর্তিতে কারসাজির অভিযোগে কোচিং পরিচালক আটক

মেডিকেল ভর্তিতে কারসাজির অভিযোগে কোচিং পরিচালক আটক

মেডিভয়েস রিপোর্ট: এমবিবিএস কোর্সে ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসসহ কারসাজির অভিযোগে খুলনার একটি কোচিং সেন্টারের পরিচালককে আটক করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) দুপুরে নগরীর ফুলমার্কেট এলাকায় মেডিকেল ভর্তি কোচিং সেন্টার ‘থ্রি ডক্টরস’ এ অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইমরান হোসেন জানান, মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধসহ সকল প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা প্রতিরোধে খুলনা জেলা প্রশাসন এই অভিযান পরিচালনা করেছে। নগরীর ফুলমার্কেট এলাকায় ‘থ্রি ডক্টরস’ কোচিং সেন্টারটির বিরুদ্ধেও সে ধরনের অভিযোগ রয়েছে।

ড. তারিমকে আটকের প্রসঙ্গে খুলনার এক গোয়েন্দা কর্মকর্তা জানিয়েছেন, তাদের কাছে তথ্য আছে-থ্রি ডক্টরস কোচিং-এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষার উত্তরপত্রে কারসাজি করে কয়েক বছর ধরে শিক্ষার্থী ভর্তি করে আসছে। এর মালিক ইউনুস খান তারিম খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার।

গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তা জানান, ‘জনপ্রতি ৩৫ থেকে ৪০ লাখ টাকার’ বিনিময়ে কারসাজি করে শিক্ষার্থী ভর্তি করার ব্যাপারে এ কোচিং সেন্টারটি জড়িত।

এই ভর্তি-বাণিজ্যের মাধ্যমে বছরে ‘শতকোটি টাকার বেশি’ অবৈধ লেনদেন চলছে।’

এর আগে গত সোমবার ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএসের ভর্তি পরীক্ষাকে সামনে রেখে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং গোয়েন্দা সংস্থা তাদের তৎপরতা ও নজরদারি জোরদার করার কথা সচিবালয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

এছাড়া এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের আকার আট পৃষ্ঠা থেকে কমে দুই পৃষ্ঠা করার কথাও জানায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

এ বছর প্রশ্নপত্র প্রণয়নে প্রযুক্তিগত পরিবর্তন আনার এবং প্রশ্নপত্র পাঠানোর জন্য ট্রাঙ্কের সাথে সংযুক্ত ট্র্যাকিং ডিভাইস থাকার কথা। সাইবার-ক্রাইম প্রতিরোধ এবং পরীক্ষার আগের দিন রাত ১০টা থেকে পরীক্ষার দিন সকাল ১১টা পর্যন্ত ইন্টারনেটের গতি সীমিত রাখার জন্য সংশ্লিষ্টদের অনুরোধও করা হয়েছে বলে ওই সংবাদ সম্মেলনে।

এবার ১৯টি কেন্দ্রের ৩২টি ভেন্যুতে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। সরকারি চার হাজার ৬৮টি এবং বেসরকারি ৬ হাজার ৩৩৬টি আসনে মেডিকেল কলেজে ১০ হাজার ৪০৪টি আসনের বিপরীতে মোট ৭২ হাজার ৯২৮ জন ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে। 

গত সোমবার (৭ অক্টোবর) স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, সড়কে নিরাপত্তা নিশ্চিত এবং নির্বিঘ্ন চলাচলের জন্য সড়ক পরিবহন মহাসড়ক বিভাগ, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে সভা করে সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ বলেন, এ বছর ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র এক পাতায় আনা হয়েছে। আগে প্রশ্নপত্র ছিল পাঁচ পাতার। সরকারি ৩৬টি ও বেসরকারি ৭০টি মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীরা ভর্তির সুযোগ পাবে। তবে বেসরকারি ৯টি কলেজের ভর্তির বিষয়ে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুসরণ করা হবে।

অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ বলেন, বৃষ্টি ও ট্র্যাফিক জ্যামসহ নানাবিধ জটিলতা এড়াতে প্রত্যেক পরীক্ষার্থীকে সকাল ৯টার আগেই পরীক্ষা কেন্দ্রে সশরীরে হাজির হওয়ার জন্য ভর্তি পরীক্ষা কমিটি ও সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের অনুরোধ জানানো হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ভর্তি পরীক্ষার সময় পরীক্ষার্থীরা ভর্তি পরীক্ষার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী, পরিদশর্নকারী টিম ও ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা কেন্দ্রে মোবাইল ফোন, ইলেকট্রনিক ডিভাইস, ক্যালকুলেটর, ঘড়ি, হেড ফোন ও ব্লুটুথসহ অন্যান্য ইলেকট্রনিক ডিভাইস পরীক্ষা কেন্দ্রে আনা, বহন করা এবং ব্যবহার করা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘এবার ৭২ হাজার ৯২৮ জন ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের জন্য প্রশ্নপত্র একই রাখা হলেও প্রশ্নের সিরিয়াল নম্বর একজনের সঙ্গে আরেকজনের মিল থাকছে না।’

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত