ঢাকা বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৬,    আপডেট ২ ঘন্টা আগে
১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৫:১৪

মশা নিয়ে জরিপ শুরু ২১ সেপ্টেম্বর 

মশা নিয়ে জরিপ শুরু ২১ সেপ্টেম্বর 

মেডিভয়েস রিপোর্ট: মশাবাহিত রোগ থেকে নগরবাসীর সুরক্ষায় ঢাকা শহরে বর্ষা মৌসুমে তিনবার জরিপ কার্যক্রম পরিচালনা করতো স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা। চলতি মৌসুমে ডেঙ্গুর প্রকোপ ঢাকা শহর ছাড়িয়ে ছড়িয়ে পড়েছে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে। এ অবস্থায় ঢাকার বাইরে দেশের চার বিভাগে মশা জরিপ কার্যক্রম পরিচালনার উদ্যোগ নিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা। প্রাথমিকভাবে ঢাকা, বরিশাল, খুলনা ও চট্টগ্রাম বিভাগে এ জরিপ চালানো হবে। ২১ সেপ্টেম্বর বরিশাল বিভাগের মাধ্যমে শুরু হতে যাওয়া এ কার্যক্রম পর্যায়ক্রমে সারাদেশে পরিচালিত হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক সানিয়া তহমিনা গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, রাজধানী ঢাকাসহ অন্যান্য বিভাগে মশার প্রজাতি শনাক্ত করতে এবং দেশব্যাপী মশক নিয়ন্ত্রণে সুষ্ঠু পরিকল্পনা প্রণয়নের লক্ষ্যে এ জরিপ কার্যক্রম পরিচালিত হবে। রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার কীটতত্ত্ব বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে গঠিত মোট আটটি দল এ জরিপ কার্যক্রম পরিচালনা করবে। বিভিন্ন জেলার কোথায় কোথায় জরিপ পরিচালিত হবে তা চূড়ান্ত করতে বর্তমানে কার্যক্রম চলছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্র মতে, গত বছর পর্যন্ত রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা মূলত ঢাকা শহরে বর্ষা মৌসুম শুরুর আগে ও পরে এবং বর্ষা মৌসুমে মোট তিনটি জরিপ কার্যক্রম পরিচালনা করতো। তবে এ বছর ডেঙ্গুর প্রকোপ বেশি হওয়ায় আগেভাগেই জুলাই মাসে ঢাকা শহরে দ্রুত একটি জরিপ করে রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ডেঙ্গুর প্রকোপ ছড়িয়ে পড়ায় মশক নিধন কার্যক্রম সারাদেশেই পরিচালনা করতে হবে। কিন্তু তার আগে দেশের কোনো  এলাকায় মশার প্রকোপ বেশি, কী কী ধরনের মশা রয়েছে—এসব বিষয়ে সুস্পষ্ট ও সঠিক পরিসংখ্যান থাকলে মশক নিধন কার্যক্রম পরিচালনা করা সহজ ও সুষ্ঠু হবে।

প্রসঙ্গত, চলতি বছর দেশের ৬৪ জেলায় ডেঙ্গু রোগী পাওয়া গেছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেল্থ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের সহকারী পরিচালক ডা. আয়শা আক্তার স্বাক্ষরিত সর্বশেষ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এখন পর্যন্ত চলতি বছর প্রায় ৮১ হাজার ৮৩৯ জন নারী-পুরুষ ও শিশু ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হিসাবে ডেঙ্গুতে ৬৮ জন মারা গেছেন। তবে বেসরকারি হিসেবে দুইশোর অধিক।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত