ঢাকা বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৬,    আপডেট ২ ঘন্টা আগে
১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৩:৪৮

হাসপাতালে রোগীদের দুরবস্থা দেখে ১২টি এসি পাঠালেন ইউএনও

হাসপাতালে রোগীদের দুরবস্থা দেখে ১২টি এসি পাঠালেন ইউএনও

মেডিভয়েস রিপোর্ট: সন্তানকে চিকিৎসা করাতে এসে হাসপাতালের পরিবেশ ও রোগীদের দুরবস্থা দেখে হাসপাতালে এসির ব্যবস্থা না করে নিজের রুমের এসি ব্যবহার করবেন না বলে ঘোষণা দেন সাতক্ষীরার তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইকবাল হোসেন। অবশেষে হাসপাতালে রোগীদের ব্যবহারের জন্য ১২ টি এসির ব্যবস্থা করেছেন তিনি।

সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকেই এসিগুলো হাসপাতালে লাগানোর কাজ চলছে বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মীর আবু মাউদ বলেন, ওয়ার্ডের রুমের মধ্যে থাইগ্লাস লাগানো ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। সকাল থেকেই এসিগুলো লাগানোর কাজ শুরু হবে। তিনি বলেন, চারটি এসি রোববার বিকেলে হাসপাতালে এসে পৌঁছেছে। সোমবার বাকিগুলোও চলে আসবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এগুলো পাঠিয়েছেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইকবাল হোসেন ও আমার উদ্যোগে এটি বাস্তবায়িত হচ্ছে।

গত বৃহস্পতিবার রাতে তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইকবাল হোসেন ফেসবুকে লিখেছেন, ‘নিজেকে অপরাধী মনে হচ্ছে। এই রুমের মধ্যে থাকতে ভালো লাগছে না। হাসপাতালে অপারেশনের রোগী গরমের সঙ্গে লড়ছে। রাতের তালা আমাকে বদলে দাও। কাল থেকে আমার এসি রুম বন্ধ থাকবে। রোগীদের এসির ব্যবস্থা না করে এই এসি রুম ব্যবহার করব না। দয়া করে রুমে ঢুকে কেউ এসি চালাতে বলবেন না। হাসপাতালে এসির ব্যবস্থা হবে। কোনো ময়লা থাকবে না। জুতা বাইরে থাকবে। আর বাথরুম থেকে গন্ধ নয়, ঘ্রাণ আসবে।’

এ বিষেয়ে তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইকবাল হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, আমার দুই সন্তান। একজন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ে। আমি ও আমার পরিবার সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিই। আমার সন্তানকে তালা হাসপাতালে নিয়ে যাই চিকিৎসার জন্য। সেখানে চিকিৎসক আন্তরিক হয়ে চিকিৎসা করেছেন। কিন্তু পরিবেশটা আমার ভালো মনে হয়নি। এরপর আমি দোতলায় ওয়ার্ডে গিয়ে দেখি, ডেঙ্গুর ভয়ে মা-বোনেরা প্রচণ্ড গরমে মশারির মধ্যে রয়েছেন। তাদের ঘামে চারপাশ দুর্গন্ধ হয়ে গেছে। বাথরুম নোংরা। হাসপাতালের জনবল কম তাদেরও কিছু করার নেই।

ইকবাল হোসেন আরও বলেন, হাসপাতালের দুটি ওয়ার্ডে টিভির ব্যবস্থা করা ও বাইরে একটি ওয়েটিং রুমের ব্যবস্থা করা হবে। রোগী বা রোগীর স্বজনরা পরিবেশ দেখে নিজেই জুতা বাইরে রেখে প্রবেশ করবেন। বাথরুমগুলো থাকবে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন। হাসপাতালের মধ্যে ফুলের টব দেয়া হবে। এককথায় এটা হবে আধুনিক হাসপাতাল। সবার সহযোগিতায় এ উদ্যোগ বাস্তবায়ন করতে চাই। পরবর্তীতে সরকার যদি কখনো এটাকে মডেল হিসেবে নেয়, তবে সারাদেশেই ছড়িয়ে পড়বে এই মডেল। উপকৃত হবে সাধারণ মানুষ। প্রাইভেট ক্লিনিক ছেড়ে সরকারি হাসপাতালে ভর্তি হবে রোগীরা।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত