ঢাকা বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৬,    আপডেট ১ ঘন্টা আগে
১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১১:৪৩

জোর কদমে এগিয়ে চলছে পুলিশের মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠার কাজ

জোর কদমে এগিয়ে চলছে পুলিশের মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠার কাজ

মেডিভয়েস রিপোর্ট: দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত পুলিশ বাহিনীর দুই লাখ সদস্যের জন্য রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইনে ২৫০ শয্যার হাসপাতাল থাকলেও এবার তাদের জন্য প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে নিজস্ব মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল। এ বিষয়ে পুলিশের শীর্ষ পর্যায়ের সঙ্গে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একাধিক বৈঠক হয়েছে। পুরো প্রক্রিয়া শেষে খুব দ্রুতই পুলিশের দীর্ঘ  দিনের এ দাবিটি বাস্তবায়ন করা হবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

গত ৪ ফেব্রুয়ারি পুলিশ সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে বেশকিছু দাবি উত্থাপন করা হলে প্রধানমন্ত্রী তাদের সব দাবিই পূরণের আশ্বাস দেন।

বাহিনীর পক্ষে আলাদা মেডিকেল ইউনিট ও মেডিক্যাল কলেজ করার দাবি জানিয়েছিলেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) সহকারি পুলিশ সুপার (এএসপি) সুমন কান্তি চৌধুরী। এছাড়াও দেশের বিভাগীয় শহরের পুলিশ হাসপাতালগুলোতে কমপক্ষে ৫টি আইসিইউ বেড স্থাপন এবং জেলা হাসপাতালগুলোতে ন্যূনতম চিকিৎসা সরঞ্জাম নিশ্চিতেরও দাবি জানান তিনি।

পুলিশের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা বলছেন, বর্তমান সরকারের আমলে পুলিশের সংখ্যা বড়ানোসহ সুযোগ-সুবিধাও বৃদ্ধি করা হয়েছে। তবে দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত পুলিশ বাহিনীর দুই লাখ সদস্যের জন্য রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইনে ২৫০ শয্যার হাসপাতাল থাকলেও নেই মেডিকেল কলেজ। পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের চিকিৎসাসেবা বৃদ্ধির জন্য একটি মেডিকেল কলেজ এখন সময়ের দাবি।

জানা গেছে, পুলিশের দাবির প্রেক্ষিতে তাদের জন্য স্বতন্ত্র মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার জন্য ঢাকার আশুলিয়া এলাকায় জায়গা দেখা হয়েছে। মেডিকেল কলেজের সঙ্গে কেন্দ্রীয় হাসপাতাল হবে ৩০০ শয্যার। রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের কার্যক্রমও সেখানে স্থানান্তর করা হবে। আধুনিক সুযোগ-সুবিধার এ হাসপাতাল পুলিশ সদস্যদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের জন্যও উন্মুক্ত থাকবে।

এ বিষয়ে ঢাকা কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের পরিচালক ডিআইজি ড. হাসান উল হায়দার সাংবাদিকদের বলেন, পুলিশের এ প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে একটি কমিটি করা হয়েছে। এ ব্যাপারে করণীয় নির্ধারণে ওই কমিটি একাধিকবার বৈঠকও করেছে। তবে কবে নাগাদ এটি বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে সেটি বলতে পারেননি তিনি।

জানতে চাইলে পুলিশের অ্যাডিশনাল আইজি (ফিন্যান্স) মো. শাহাব উদ্দিন কোরেশী বলেন, বিষয়টি বাস্তবায়নে পুলিশ সদর দফতর থেকে প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে মন্ত্রণালয়ে। সেখানে একটি কমিটি করা হয়েছে। সেই কমিটি এটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছে। তবে এই মুহূর্তে বিস্তারিত বলা যাচ্ছে না।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত