ঢাকা শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ৩ কার্তিক ১৪২৬,    আপডেট ৪৮ মিনিট আগে
০৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৫:১১

বিশ্ব ফিজিওথেরাপি দিবস আজ

বিশ্ব ফিজিওথেরাপি দিবস আজ

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বিশ্ব ফিজিওথেরাপি দিবস আজ (৮ সেপ্টেম্বর)। বিশ্বজুড়ে পালিত হচ্ছে দিবসটি। চিকিৎসা ব্যবস্থায় ফিজিওথেরাপি গুরুত্ব, ফিজিক্যাল থেরাপিস্টদের ভূমিকা ও অবদান চিকিৎসা সংশ্লিষ্ট ও সাধারণ মানুষের মাঝে পৌঁছানোর লক্ষ্যে ১৯৫১ সালে থেকে প্রতি বছর ৮ সেপ্টেম্বর বিশ্ব ফিজিওথেরাপি দিবস পালিত হচ্ছে। ১৯৬৬ সালে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়ায় দিবসটির ব্যাপকতা ও গুরুত্ব বৃদ্ধি পায়।

শরীরকে সুস্থ রাখার জন্য ফিজিওথেরাপির গুরুত্ব অনেক। বলা হয়ে থাকে অনেক রোগের আসল মেডিসিন এই থেরাপি। অনেক সময় সঠিক ফিজিও থেরাপি দেয়া হলে অস্ত্রোপচারও লাগে না। অর্থোপেডিক্স, কার্ডিও পালমোনারি, নিউরোলজি, নিউরো সার্জারি, গাইনোকলজির মতো বহু রোগের ক্ষেত্রে ফিজিও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত স্বতন্ত্র চিকিৎসা পদ্ধতি। একজন ফিজিওথেরাপি চিকিৎসক রোগীর বাত-ব্যথা বা আঘাতজনিত ব্যথার মতো স্বাস্থ্যসমস্যা নির্ণয় করে পরিপূর্ণ চিকিৎসাসেবা দেন। দীর্ঘমেয়াদি রোগ, বিশেষ করে বাত-ব্যথা ও পক্ষাঘাতের রোগীদের সমস্যা ওষুধ দিয়ে নিরাময় সম্ভব নয়। এর জন্য প্রয়োজন ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা।

মাংসপেশি ও হাড়ের সমস্যা, পোড়া রোগী, জন্মগতভাবে যেসব শিশু প্যারালাইসিস বা সেরিব্রাল পালসি ও মেরুদণ্ডের সমস্যায় আক্রান্ত বা ঘাড়, হাত, পা বেঁকে যাওয়া ঠিক করতে পারে না, হৃদরোগ ও ফুসফুসের সমস্যা, শল্যচিকিৎসা, বার্ধক্যজনিত সমস্যা ও পঙ্গু পুনর্বাসনে ফিজিওথেরাপির বিকল্প নেই।

বাংলাদেশে ১৯৬০ সাল থেকে চিকিৎসাটি শুরু। ব্যাপক প্রচলন আছে বর্তমান সময়েও। দীর্ঘমেয়াদি ব্যথায় ফিজিওথেরাপি পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াহীন চিকিৎসা। কিন্তু চিকিৎসাটি চলছে নিয়ন্ত্রণহীনভাবে। অর্ধ শতাব্দী অতিক্রান্ত হলেও দেশে নেই কোনো ফিজিওথেরাপি কলেজ, কাউন্সিল। পদ সৃষ্টি না হওয়ায় দেশের জনমানুষ ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত। পড়াশোনার জন্য পঙ্গু হাসপাতালে ব্যবস্থা থাকলেও পাস করার পর চাকরির নেই নিশ্চয়তা। ফলে অনেক মেধাবী চলে যাচ্ছেন বিদেশে। সেখানেই স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। এর মধ্যেই আজ পালিত হচ্ছে বিশ্ব ফিজিওথেরাপি দিবস।

বাংলাদেশে জনসংখ্যার প্রায় ১০ শতাংশ নানা ধরনের প্রতিবন্ধিতায় ভুগছেন। জনসংখ্যার ২০ শতাংশের বয়স ৬০ বছরের ওপরে। বাত-ব্যথা, কোমর, মেরুদণ্ড ও ঘাড়ে ব্যথা, ক্রীড়াঘাত, পক্ষাঘাতগ্রস্ততা (প্যারালাইসিস), মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত (স্ট্রোক) সমস্যায় ভুগছেন। এসব রোগের অন্যতম চিকিৎসা ফিজিওথেরাপি। এ ছাড়া সড়ক দুর্ঘটনাসহ বিভিন্ন দুর্ঘটনায় প্রতিনিয়ত মানুষ পঙ্গুত্বের শিকার হচ্ছে। তাদেরও ফিজিওথেরাপি জরুরি। এই বিশাল জনগোষ্ঠীকে ফিজিওথেরাপি চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ ও কর্মক্ষম করা না গেলে দেশের টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্য (এসডিজি) অর্জনে বিশাল বাধা হয়ে দাঁড়াবে বলে মনে করছেন চিকিৎসকেরা।

পরিসংখ্যান অনুসারে, বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ দীর্ঘমেয়াদি ব্যথায় ব্যয় করছে বিলিয়ন ডলার। বয়স্ক জন গোষ্ঠীর প্রতি পাঁচজনের একজন দীর্ঘমেয়াদি ব্যথায় ভুগছেন। ব্যথায় আক্রান্ত ৪৯ শতাংশ মানুষকে বেঁচে থাকার জন্য ইচ্ছার বিরুদ্ধে কাজে অংশ নিতে হচ্ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে ৫০ থেকে ৮০ শতাংশ ব্যথায় আক্রান্তরা ব্যথার সঠিক চিকিৎসা পাচ্ছেন না। চিকিৎসা মানেই ওষুধ নয় আর ওষুধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছেই। ২০১৬ সালে শুধু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অতিরিক্ত ওষুধ সেবনে ৬৩ হাজার ৬৩২ জনের মৃত্যু হয়।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত