০৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১০:৩২ এএম

বিশ্বজয়ী নিউরোসার্জন ডা. রামপ্রসাদ রবিনকে চট্টগ্রামে সংবর্ধনা

বিশ্বজয়ী নিউরোসার্জন ডা. রামপ্রসাদ রবিনকে চট্টগ্রামে সংবর্ধনা

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত বিশ্বজয়ী নিউরো সায়েন্টিস্ট ও সার্জন প্রফেসর ড. রামপ্রসাদ সেনগুপ্ত রবিনকে চট্টগ্রামে সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) উদ্যোগে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। এসময় তিনি বলেন, নিজের দক্ষতায় বাংলাদেশের সন্তান নিউরো সায়েন্টিস্ট ও সার্জন প্রফেসর ড. রামপ্রসাদ সেনগুপ্ত রবিন বিশ্বকে জয় করেছেন।

বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জামালখানের চট্টগ্রাম সিনিয়র্স ক্লাব মিলনায়তনে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

মেয়র বলেন, ২০১২ সাল থেকে ড. রবিনকে চট্টগ্রামে আনার চেষ্টা করেছি আমরা। সর্বশেষ তাকে আমরা পেয়েছি। ৮৪ বছর বয়সে চশমা ছাড়া ল্যাপটপ থেকে দেখে বক্তব্য দিয়েছেন। তার কাছ থেকে মাটি, মানুষ ও দেশকে কীভাবে ভালোবাসতে হয় তা শিখতে পারবো। মানুষ যত বড় হয়, প্রতিষ্ঠিত হয় তখন শেকড় ভুলে যায়। অহংবোধ তৈরি হয়। ৬৪ বছর দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন। কিন্তু চট্টগ্রামের কথা ভুলে যাননি। শেকড় ভুলে যাওয়া উচিত নয়। নতুন প্রজন্ম তার কাছ থেকে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হবে।

প্রফেসর ড. রামপ্রসাদ সেনগুপ্ত রবিন বলেন, আমি চট্টগ্রামের ভূমিপুত্র। আমার প্রতিটি জিন এ মাটি থেকে পেয়েছি। ফতেয়াবাদ হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক ব্রজ সাহার স্মৃতি মনে পড়ে। একদিকে পাহাড়, অন্যদিকে কর্ণফুলী-এমন সৌন্দর্য বিশ্বের আর কোথাও দেখিনি। আমার জন্মস্থান, স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, সব বন্ধু, স্বজন, শুভাকাঙ্ক্ষী, ডোনার, সহকর্মীদের ঋণ আমি কখনো শোধ করতে পারবো না।

চমেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহসেন উদ্দিন আহমেদ বলেন, ড. রবিনের জ্ঞান ও মেধা বাংলাদেশের স্নায়ু রোগীদের কল্যাণে কাজে লাগাতে চাই সমন্বিত উদ্যোগ। তার মতো গুণীজনেরা সমগ্র বিশ্বের মানবকল্যাণ নিয়ে ভাবেন।

চমেক অধ্যক্ষ ডা. সেলিম মো. জাহাঙ্গীর বলেন, ড. রবিন বাংলাদেশের নাগরিক। তিনি শিক্ষক, লেখক, সার্জন, গবেষক। তার বই আমরা চমেকের গ্রন্থাগারে সংরক্ষণ করেছি। আশা করি কলকাতা নিউরোসায়েন্সের সঙ্গে চমেকের একটি চুক্তি হলে জ্ঞান আদান প্রদান সহজতর হবে। তার জ্ঞান আমাদের চিকিৎসক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে পারবো।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন সিডিএ চেয়ারম্যান জহিরুল আলম দোভাষ, ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক একেএম ফজলুল্লাহ। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চসিকের প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল মহিউদ্দিন আহমদ, চট্টগ্রাম কলেজ অধ্যক্ষ আবুল হাসান, প্রফেসর ডা. এল এ কাদেরী, ডা. বাসনা মুহুরী, ডা. প্রীতি বড়ুয়া প্রমুখ।

একনজরে ড. রবিন:

নগরের ১ নম্বর দক্ষিণ পাহাড়তলী ওয়ার্ডের উত্তর ফতেয়াবাদের নন্দীরহাট গ্রামে জন্ম ১৯৩৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর। ১৯৪৪ সালে নন্দীরহাট শৈলবালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষায় হাতেখড়ি। ১৯৫৩ সালে ফতেয়াবাদ স্কুল থেকে ম্যাট্রিকুলেশন, ১৯৫৫ সালে চট্টগ্রাম কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েট পাস করেন। ১৯৬১ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিবিএস, ১৯৬৭ সালে এডিনবরা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এফআরসিএস, ১৯৭৭ সালে নিউক্যাসল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমএসসি ডিগ্রি লাভ করেন। ২০০১ সালে ডারহ্যাম ইউনিভার্সিটি ও ২০০৯ সালে ভারতের ন্যাশনাল একাডেমি অব সায়েন্স থেকে ফেলোশিপ করেন।

১৯৭৩ সালে দিল্লির সফদরজং হাসপাতালে কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি যুক্তরাজ্যের নিউ ক্যাসেল জেনারেল হাসপাতালে ৭৫ বছর বয়স পর্যন্ত চিকিৎসা পেশায় নিয়োজিত ছিলেন।

২০০২ সালে নিউ ক্যাসল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাদের অপারেশন থিয়েটারের নাম রাখেন দ্য রবিন সেনগুপ্ত থিয়েটার। ২০১২ সালে ভারতের তৎকালীন রাষ্ট্রপতির হাত থেকে বিবেকানন্দ সম্মাননা গ্রহণ করেন। ২০১৬ সালে ‘নিউরো সার্জিক্যাল কনট্রিবিউশন অ্যান্ড নিউরো সার্জিক্যাল ডেভেলপমেন্ট’র জন্য ইংল্যান্ডের রানি কর্তৃক প্রিন্স চার্লিস থেকে অফিসার অব দ্য ব্রিটিশ এমপায়ার (ওবিই) গ্রহণ করেন। ২০১৭ সালে দ্য ওয়ার্ল্ড ফেডারেশন অব নিউরো সার্জিক্যাল সোসাইটি থেকে দ্য মেডেল অব অনার দেওয়া হয়। ২০০৫ সালে কলকাতার মল্লিক বাজারে ১৫০ শয্যার নিউরোলজি সেন্টার প্রতিষ্ঠা করেন ড. রবিন।

Add
একজন এফসিপিএস পরীক্ষা উত্তীর্ণ চিকিৎসকের অনুভুতি

পরীক্ষা প্রস্তুতির শেষের কয়েকদিন মেয়ের সাথে দেখা করতে পারিনি

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি