৩১ অগাস্ট, ২০১৯ ০৩:৩২ পিএম

ডেঙ্গু: চিকিৎসক ও নার্সসহ সংশ্লিষ্টদের সংবর্ধনা দেবে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়

ডেঙ্গু: চিকিৎসক ও নার্সসহ সংশ্লিষ্টদের সংবর্ধনা দেবে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়

মেডিভয়েস ডেস্ক: ঢাকাসহ সারাদেশের হাজার হাজার মানুষ এবার ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে। ইতিমধ্যে প্রাণ গেছে অনেকের। সংকটকালীন এই মূহুর্তে অসুস্থ মানুষের সেবায় দিনরাত নিয়োজিত ছিলেন চিকিৎসক, নার্সসহ স্বাস্থ্যখাতের সংশ্লিষ্টরা। এই প্রথম তাদের ঈদের ছুটি পর্যন্ত বাতিল করা হয়েছিলো। দুঃখজনক বিষয়, ডেঙ্গু রোগীদের সেবায় নিয়োজিত সেই চিকিৎসক, নার্সদের অনেকেই ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েই মারা গেছেন।

দেশের আপদকালীন সময়ে চিকিৎসা সেবাদানকারী সেসব চিকিৎসক, নার্সসহ সংশ্লিষ্টদের নিয়ে ঢাকায় বড় ধরণের সম্মেলন করতে চায় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। ডেঙ্গু পরিস্থিতির আরো উন্নতি হলে এমন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকেও আমন্ত্রণ জানানো হবে। তবে পুরো বিষয়টি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর তথা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার রাতে এটিএন বাংলায় 'ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও প্রতিকারে করণীয়' শীর্ষক এক লাইভ টক শোতে অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ।

তিনি বলেন, ডেঙ্গুর আপদকালীন সময়ে যারা অনেক সেবা দিয়েছেন একটা বড় অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাদেরকে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন ও কাজের স্বীকৃতি দেয়া দরকার। সত্যিকার অর্থে ডেঙ্গু সেবা করতে গিয়ে যারা মৃত্যুবরণ করেছে তাদেরকে কোনভাবে ক্ষতিপূরণ দেয়া যায় কি না, সে বিষয়টিও আমাদের ভাবনায় রয়েছে। 

ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণের সঞ্চলনায় অনুষ্ঠানে আলোচক ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন অনুষদের সাবেক ডিন ও ইউজিসি অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম, ডিএনসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোমিনুর রহমান মামুন।

ঠিক কী ধরণের অনুষ্ঠান করার পরিকল্পনা করছেন- এমন প্রশ্নের জবাবে শুক্রবার স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক বলেন, 'হ্যাঁ, বড় ধরণের একটি অনুষ্ঠান আমরা ঢাকায় করতে চাচ্ছি তবে পুরো বিষয়টি এখনো পরিকল্পনাধীন। এটা নিয়ে আমরা এখনো কোনো প্রচারে যাইনি। অল্প সময়ের ব্যবধানে হাজার হাজার রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করা, তাদের যথাযথ চিকিৎসা দেয়া এটা বিরাট কাজ। আল্লাহর রহমতে সকলের প্রচেষ্টা ও সহযোগীতায় আমরা ডেঙ্গু পরিস্থিতিকে মোকাবেলা করতে পেরেছি।'

তিনি বলেন, 'ডেঙ্গুর চিকিৎসা দিতে গিয়ে চিকিৎসক, নার্স যারা ইতিমধ্যে মারা গেছেন তাদেরকে আমাদের মূল্যায়ন করতে হবে, তাদের পরিবারের পাশে দাড়াতে হবে। আমার মনের ভেতরে এমন একটা ইচ্ছা আছে। এ ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে শিগগিরই প্রস্তাব দেয়া হবে। উনি যেভাবে দিক নির্দেশনা দেবেন সেভাবেই করা হবে।

মন্ত্রী বলেন, আমরা অনুরোধ করবো, আমাদের সম্মেলনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যেন উপস্থিত থাকেন। উনি আসলে আমরা খুশি হবো। আমরা চাচ্ছি, অনুষ্ঠানটি একটি বড় পরিসরে করতে। এজন্য বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র বা বসুন্ধরা কনভেনশন সিটির মতো স্থানকে ভেন্যু বানাতে চাচ্ছি। আর যদি অনেক বেশি লোক হয় তাহলে আরো বড় স্থানকেই বেছে নেব।'

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক আরো বলেন, 'সারা বাংলাদেশের বড় হাসপাতাল বিশেষ করে ঢাকার হাসপাতালগুলোতে ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী ও মেডিক্যাল সংশ্লিষ্টদের বাছাই করে এই সম্মেলনে আনা হবে। তবে যারা সরাসরি সেবায় ছিলো বিশেষ করে মেডিসিন ও শিশু বিভাগের ডাক্তার, নার্স, তৃতীয় শ্রেণির কর্মকর্তা, কর্মচারি, মন্ত্রণালয়ের লোকজন, সংকটময় মূহুর্তে বিভিন্ন দ্রব্য সরবরাহকারী, ওষুধ প্রশাসনের লোকজন, সাংবাদিকসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের যারা সহযোগীতা করেছেন, তাদের সবাইকে আমন্ত্রণ জানানো হবে।'

'তাদেরকে অভিনন্দন জানানো, ধন্যবাদ জানিয়ে অনুপ্রাণিত করা, তাদের কাজের স্বীকৃতি দেয়াই আমাদের উদ্দেশ্য। এটা নিয়ে ইতিমধ্যে আমি কথা বার্তা বলতেছি। ডেঙ্গু পরিস্থিতির আরো উন্নতি হলে সুবিধাজনক সময়ে আমরা একটা ভালো সম্মেলন করব।' এটিএন বাংলা, কালের কন্ঠ

Add
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি