ঢাকা      সোমবার ২৬, অগাস্ট ২০১৯ - ১০, ভাদ্র, ১৪২৬ - হিজরী



ডা. শুভ প্রসাদ


লেখক, অর্থোপেডিক্স বিশেষজ্ঞ।


অ্যালান গ্রাহাম এপ্লি: এক কিংবদন্তী অর্থোপেডিশিয়ানের গল্প

পৃথিবী জুড়ে অর্থোপেডিক্স এর জনপ্রিয় বই Apley's System of orthopaedics and Fractures. এই বইয়ের একেকটা চ্যাপ্টারের শেষে একটা জিনিস লক্ষ্য করেছেন? একটা ফাকা পেইজ যেখানে কিছু লেখা নেই। এর পেছনের মজার কিছু গল্প আছে।

এলেন গ্রাহাম এপ্লি (ALAN GRAHAM APLEY) জনপ্রিয়তম অর্থোপেডিক বই লেখক দের মধ্যে অন্যতম। এপ্লি তার পড়াশোনাকালীন সময়ে অর্জিত জ্ঞানকে সুন্দর ভাবে লিপিবদ্ধ করে রাখতেন তার হাতে লেখা অর্থোপেডিক্স নোটে। তার লেখা এই নোট না পড়ে তখনকার সময় কেউ এফআরসিএস এর ফাইনাল পার্টে পরীক্ষা দিতে বসতেন না। ১৯৪৮ সালে তার লেখা নোট ও লেকচারগুলো নিয়ে একটা বেসিক কোর্সই শুরু হয় এফআরসিএস -এর।

এই নোটগুলো একটা সময় হাতে পরে রয়েল পোষ্টগ্রাজুয়েট হাসপাতালের প্রফেসর ইয়ান আয়ার্ড এর হাতে। উনিই প্রথম এপ্লিকে অনুরোধ করেন বই আকারে তার নোটগুলো ছাপাতে।

প্রথম এডিশন ছাপা হয় ১৯৫৯ এ। তখন সেই বইতে কোন ছবি ছিলোনা। প্রথম এডিশন থেকেই তার বইয়ের প্রতিটা চ্যাপ্টারের মাঝে মাঝে একটা পেইজ ব্লাংক রেখে দেয়া হয় যাতে যিনি পড়ছেন সে জরুরী নোট রেখে দিতে পারেন।

দ্বিতীয় এডিশনে পাবলিশার্স তাকে কিছু ছবি রাখার প্রস্তাব দিলেন। এপ্লি সবসময়ই উদ্যোগী ছিলেন। তিনি আরো পরিশ্রম করে বইটিকে আরো সুন্দর করে তুললেন৷ ষষ্ঠ এডিশনের সময় তিনি যখন লুইস সলোমন কে সহযোগী লেখক করলেন তখন বইটা আরো সমৃদ্ধ হলো।

বিশ্বব্যাপী এপ্লির বইয়ের জনপ্রিয়তা বাড়তে থাকলে পাইরেটেড কপিও বের হতে থাকল বিশ্বজুড়ে। এটাকে এপ্লি আরো ইতিবাচক হিসেবে দেখলেন। এটা নিয়ে তার কোন আক্ষেপও ছিলোনা। Apley FRCS course ও চলমান এখনো।

এলান এপ্লি নানান সময় নানান পদ অলংকৃত করেছেন তার জীবদ্দশায়। এর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় অর্থোপেডিক জার্নাল The journal of Bone and Joint Surgery (JBJS) এ এডিটর হন ১৯৮৪ সালে, ৭০ বছর বয়সে।

তিনি অনেক যত্নের সাথে সেই বয়সেও প্রত্যেকটা জার্নাল সিলেক্ট ও রিজেক্ট করতেন। তার রিজেক্ট করা disappointed লেখকদের তিনি নিজ হাতে পেন্সিল দিয়ে একখানা চিঠি লিখিতেন ৷ তার লেখা ছিলো সবসময় উৎসাহ দিয়ে৷ তিনি কখনোই সেই সব চিঠিতে রূঢ় কোন ভাষা ব্যাবহার করতেন না বরং তার লেখার পরে সংশ্লিষ্ট লেখক দ্বিতীয় বার পড়লেই নিজেদের লেখা ত্রুটি গুলো খুজে পেত এবং আনন্দের সাথে তাদের সেই ত্রুটিগুলো সমাধানের চেস্টা করতো। ফলে তার সময়ে জার্নাল সাবমিশনের পরিমান বাড়তেই থাকল।

৭৫ বছর বয়সে অবসরের পরেও তার শিক্ষকতার এবং লেখালেখি চলতেই থাকলো। যেমন তিনি ১৯৯০ সালেই ১১ টি দেশে বিভিন্ন মেজর কোর্স পরিচালনা ও লেকচার দিয়েছিলেন। তার ঈশ্বর প্রদত্ত আশীর্বাদ ছিলো কঠিন বিষয়কে সুন্দর ও সাবলীল ভাবে বোধগম্য করে উপস্থাপনার।

এলেন গ্রাহাম এপ্লি ছিলেন বিংশ শতাব্দীর সবচেয়ে করিৎকর্মা, জনপ্রিয় এবং শ্রদ্ধেয় অর্থোপেডিকস শিক্ষক।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


এডু কর্নার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আজও সমাদৃত এনাটমি বই ‘পার্নকপ্ফ টোপোগ্রাফিক এনাটমি অব ম্যান’

আজও সমাদৃত এনাটমি বই ‘পার্নকপ্ফ টোপোগ্রাফিক এনাটমি অব ম্যান’

মেডিভয়েস ডেস্ক: অপারেশন করতে গিয়ে জরুরি মুহূর্তে বিংশ শতকের একটি এনাটমি গ্রন্থের…



জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর