০৭ অগাস্ট, ২০১৯ ০৫:০১ পিএম

ঈদে ডেঙ্গু সেবা নিশ্চিতে সার্বক্ষণিক মনিটরিং ব্যবস্থা

ঈদে ডেঙ্গু সেবা নিশ্চিতে সার্বক্ষণিক মনিটরিং ব্যবস্থা

মেডিভয়েস রিপোর্ট: সারাদশে ডেঙ্গু এখন আতঙ্কের নাম। যার প্রকোপ ঢাকাতেই বেশি। তবে আসন্ন ঈদুল আযহায় ঢাকা ছাড়বেন হাজার হাজার মানুষ। ফলে ধারণা করা হচ্ছে এই বিপুল জনস্রোতের সাথে ছড়িয়ে পড়তে পারে ডেঙ্গু। এমন পরিস্থিতি সামাল দিতে নানা ধরনের উদ্যোগ নিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। 

এছাড়া ঈদে সরকারি-বেসরকারী হাসপাতালসহ ক্লিনিকগুলোর প্রতি কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। যাতে ডেঙ্গু রোগীর চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতকরণে মাঠ পর্যায়ে সার্বক্ষণিক মনিটরিং ব্যবস্থা চালু থাকবে বলে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। 

আজ বুধবার (৭ আগস্ট) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার আয়োজনে জাতীয় ম্যালেরিয়া নির্মূল ও এডিস বাহিত রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচীর আওতায় ডেঙ্গু জ্বরের প্রকোপ মোকাবেলার লক্ষ্যে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে এসব সিদ্ধান্তগুলো নেয়া হয়।

যার মধ্যে- ঈদের ছুটিতে সকল সরকারি-বেসরকারী হাসপাতালের হেল্প ডেস্ক খোলা রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এছাড়া ঈদের দিন কমিউনিটি ক্লিনিকের কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রভাইডারগণ (সি,এইচ,সি,পি) অন-কল এ চিকিৎসা কাজে দায়িত্বরত থাকবেন। স্থানীয় কোন রোগীর যে কোন সমস্যায় সি,এইচ,সি,পি-দের প্রদানকৃত মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করবেন।

এতে জনসাধারণের জন্য কিছু দিক নির্দেশনাসহ যারা ঢাকা ছেড়ে গ্রামের বাড়িতে ঈদ করতে যাবেন তাদের বিভিন্ন করণীয় সম্পর্কে কিছু সিদ্ধান্ত উঠে আসে সভায়।

এতে বলা হয়-বাড়ি, অফিস, সকল প্রতিষ্ঠানে বিশেষ করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহের টয়লেটের হাই এবং লো কমোড ঢেকে দিয়ে যেতে হবে, রেফ্রিজারেটরের ট্রে-এর পানি ফেলে শুকিয়ে রেখে যেতে হবে, এয়ার কন্ডিশনারের পাইপের পানি সহ যে কোন পানি পরিষ্কার করে রেখে যেতে হবে।

এছাড়া বালতি, বদনা, হাড়িপাতিল, ড্রাম, গামলা, ঘটি-বাটি ইত্যাদির পানি ফেলে পরিষ্কার করে উল্টিয়ে রেখে যেতে হবে, বারান্দা ও বাসার ছাদের উপর রাখা ফুলের টবের ট্রের পানি ফেলে পরিষ্কার করে উল্টিয়ে রেখে যেতে হবে এবং পানির ট্যাংকের ঢাকনা বন্ধ করে রেখে যেতে হবে।

অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. আবুল কালাম আজাদ, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক ডা. সানিয়া তহমিনা, ডা. সমীর কান্তি সরকার, ডা. সত্যকাম চক্রবর্তী, ডা. এমএম আকতারুজ্জামান প্রমুখ। 

এছাড়া জাতীয় ম্যালেরিয়া নির্মূল ও এডিস বাহিত রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচী এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। 
 

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত