ঢাকা      শনিবার ১৭, অগাস্ট ২০১৯ - ২, ভাদ্র, ১৪২৬ - হিজরী



শাহনাজ গাজী


ব্যাংককে বাংলাদেশ দূতাবাসের মিনিস্টার (রাজনৈতিক)


‘অনেক দেশে টাকা দিয়েও ডেঙ্গু রোগীদের মতো সেবা মিলে না’

ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত মেয়েকে নিয়ে হাসপাতালে গত মাসে (জুলাই) অবস্থান করছিলাম। আলহামদুলিল্লাহ, মহান আল্লাহর অসীম দয়ায় আট দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর তার প্লেটিলেট একটু একটু করে বাড়া শুরু করে, এবং শঙ্কামুক্ত হয়। অবস্থার আরেকটু উন্নতি হলে বাড়ি নিয়ে যাই।

এই আটটি দিন আমাদের উপর দিয়ে কি গেছে তা বলে বোঝানো যাবে না। জ্বরের তৃতীয় দিন থেকে তার ব্লাড প্রেশার আশঙ্কাজনকভাবে কমে যায়। ওই দিন দুপুরে তার ব্লাড প্রেশার ৫০/৩০-এ নেমে যায়, রানিং আইভি স্যালাইন দিয়েও ঠিক হচ্ছিল না। রাতে সে একবার অজ্ঞান হয়ে গিয়েছিল। আমি ভেবেছিলাম, এই শেষ। আল্লাহর অশেষ রহমতে জ্ঞান ফিরে আসলেও অবস্থা বেশ খারাপ ছিল। মা হয়ে সন্তানের এই কষ্ট চোখে দেখা যায় না। 

আল্লাহর কাছে সে কতবার মাফ চেয়েছে, আত্মীয়-স্বজনদের কাছে একজন একজন করে মাফ চেয়েছে, আরো কত কথা যে বলেছে!কোনো মা-বাবাকে যেন কখনো সম্তানের এতো কষ্ট দেখতে না হয়, সন্তানের জীবন নিয়ে আশা-নিরাশার দোলাচলে এমন কঠিন মুহূর্ত যেন পার করতে না হয়।

ভাবছি, আমার সন্তান তো ভাল চিকিৎসা পেলো। দেশে কোথায় কে কি অসহায় অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে কে জানে। আল্লাহ রাব্বুল আলামীন সবাইকে সুস্থ রাখুক, রোগাক্রান্তরা যেন সময় মতো চিকিৎসা পায়। 

যদি আপনার অধঃস্তন কোনো ব্যক্তি বা তার পরিবারের কেউ ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়, বা এই রোগ হয়েছে বলে মনে হয়; তবে তাকে ছুটি দিন, যাতে সে হাসপাতালে রক্ত পরীক্ষা করতে যেতে পারে ও নিজে বা পরিবারের কেউ রোগাক্রান্ত হলে চিকিৎসা ও পরিচর্যা করতে পারে। চাকরির চেয়ে জীবন বড় এটা মনে রাখতে হবে। আমি নিজে কয়েক ঘণ্টার নোটিসে বিদেশ থেকে দেশে চলে আসতে পেরেছি, আপনারাও রোগকে অবহেলা না করে সময়মতো চিকিৎসা করান।

আমি ডাক্তার নই, তবে একজন অভিভাবক হিসাবে যা দেখলাম, এখনকার ডেঙ্গুতে খুব বেশি জ্বর ওঠে না। প্রথম দিকে মনে হয়, এমনি সাধারণ জ্বর। এরপর হঠাৎ ব্লাড প্রেশার কমে যায়, যাকে বলা হয় ডেঙ্গু শক সিনড্রোম। এই সময়টা ভয়ঙ্কর, মুহূর্তের মধ্যে চরম দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। এ সময়ে ফ্লুইড ম্যানেজমেন্টই আসল। শরীরের ওজন ও প্রয়োজন অনুযায়ী স্যালাইন দিতে হয়। মনিটর করতে হয়। বারবার ব্লাড প্রেশার মাপতে হয়। এটা কেবল ডাক্তাররাই পারবেন। টোটকা ওষুধ বা এই পাতা সেই পাতার রস খেয়ে তা সম্ভব না। 

আবার জ্বর হলে রক্তের প্লেটলেট কমে যেতে থাকে, শেষের দিকে অতি দ্রুত কমতে থাকে। এজন্য ঘন ঘন রক্ত পরীক্ষা করতে হয়। বেশি কমে গেলে শরীরে প্লেটলেট দিতে হয়। ষষ্ঠ ও সপ্তম দিন থেকে প্লাজমা থেকে ফ্লুইড বেড়িয়ে শরীরে দ্রুত পানি জমতে থাকে, ফুসফুসে পানি জমে শ্বাসকষ্ট ও অর্গান ফেলিউর হতে পারে। কাজেই ডেঙ্গু মোটেই হেলাফেলা করবার মতো রোগ নয়।

শেষ কথা হল, আমাদের দেশে ডাক্তাররা মোটেই তাদের যথাযথ মূল্যায়ন ও সন্মান পান না। আমার সন্তান যে ক্রমে সুস্থ হয়ে উঠছে, সেজন্য আল্লাহর পরেই আমি ডাক্তার, নার্স ও হাসপাতালের কর্মীদের অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই। তাঁদের ঋণ আমরা শোধ করতে পারবো না। পৃথিবীর অনেক দেশে টাকা দিয়েও এমন সেবা পাওয়া যায় না। দু-একটা অবহেলার ঘটনা হয়তো ঘটেছে, তবে সেজন্য দেশের সব হাসপাতাল বা ডাক্তারদের দায়ী করবেন না। 

দেশে এখন একটা জাতীয় সংকট চলছে। প্রতিটি হাসপাতাল রোগীতে সয়লাব। আমার একজন ভাই—যিনি ডাক্তার, রাত দুটো পর্যন্ত রোগী দেখছেন। তিনি বললেন সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল (যেখানে তিনি কাজ করেন) ও অন্য হাসপাতালগুলোতে তিল ধরণের ঠাঁই নেই। এরই মধ্যে ডাক্তার, নার্স, আয়া ও হাসপাতালের অন্যান্য কর্মীরা দিন-রাত কঠোর পরিশ্রম করে রোগীদের সারিয়ে তোলার চেষ্টা করছেন। 

এর আগে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে যখন আগুন লেগেছিল তখন নিজেদের জীবন বাজি রেখে তারা রোগীদের রক্ষা করেছিলেন। এইসব ঘটনা ফলাও করে মিডিয়ায় আসেনি। এতো নিবেদিতপ্রাণ ডাক্তার, নার্স ও হাসপাতালকর্মী—যারা যেকোন দুর্যোগে এতো রোগীকে এভাবে ঝাঁপিয়ে পড়ে চিকিৎসাসেবা দেয়—এ রকম দৃষ্টান্ত পৃথিবীর আর কয়টি দেশে আছে, জানি না। 

২০১১ সালে একবার আমেরিকার একটি টপ হাসপাতালের ইমার্জেন্সিতে আমার মেয়েকে সাত ঘণ্টা বসে থাকতে হয়েছিল, তারপর ডাক্তার দেখেছে। ২০০৫ সালে স্টকহোমের পৃথিবীখ্যাত একটি হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চার ঘণ্টা ব্যথায় কাতরাতে হয়েছে, ডাক্তার তো দূরের কথা একজন নার্সও আসেনি।

সবাই ভাল থাকুন। আমার মেয়েটাসহ দেশের সব ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর আরোগ্যের জন্য দোয়া করবেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


পাঠক কর্নার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

ঈদে চিকিৎসকদের ছুটি বাতিল প্রসঙ্গে আবেদন

ঈদে চিকিৎসকদের ছুটি বাতিল প্রসঙ্গে আবেদন

‘‘এবারের পবিত্র ঈদুল আজহায় ছুটি না নিয়ে ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসার্থে আপনারা স্বাস্থ্য…

শুকরের চর্বিতে উৎপাদিত তেলে আক্রান্ত হচ্ছে আমাদের হৃদপিণ্ড! 

শুকরের চর্বিতে উৎপাদিত তেলে আক্রান্ত হচ্ছে আমাদের হৃদপিণ্ড! 

এতো এতো হার্টের রোগী এদেশে! হতাশ হয়ে যাই। কারণ খুঁজতে গিয়ে গলদঘর্ম হয়ে…

বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থোপেডিক হাসপাতাল নিটোরের গল্প

বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থোপেডিক হাসপাতাল নিটোরের গল্প

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় নিটোর নিয়ে কিছু কথা উঠেছে। বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থোপেডিক হাসপাতালটির…

মৃত্যুর আগে কথোপকথন

মৃত্যুর আগে কথোপকথন

হাতির মতন বিশাল মেশিনটি আমার বুকের উপর দিয়ে বার কয়েক চক্কর দিয়ে…

সরকারি হাসপাতালে নানা অনিয়মই যখন নিয়ম!

সরকারি হাসপাতালে নানা অনিয়মই যখন নিয়ম!

একজন কনসালটেন্ট তার মামাতো ভাইকে দেখাতে এসেছে। রোগীর সাথে কথা বলছি, এই…

শুধুমাত্র চিকিৎসকদের ঈদ ছুটি বাতিল কেন?

শুধুমাত্র চিকিৎসকদের ঈদ ছুটি বাতিল কেন?

দুপুর আড়াই টা, বৃহস্পতিবার, ৮ আগষ্ট ২০১৯। ব্যাংকে গিয়ে চেক জমা দিলাম।…



জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর