০৪ অগাস্ট, ২০১৯ ১২:১১ পিএম

সব সরকারি হাসপাতালে ৫০ হাজার টেস্ট কিট দেয়া হবে

সব সরকারি হাসপাতালে ৫০ হাজার টেস্ট কিট দেয়া হবে

মুন্নাফ রশিদ: আগামী সপ্তাহের মধ্যে ৩ লাখ ডেঙ্গু পরীক্ষার কিট আনা হবে। সেখান থেকে বিশেষায়িত হাসপাতালসহ সব সরকারি হাসপাতালে ৫০ হাজার টেস্ট কিট সরবরাহ করা হবে।

মেডিভয়েসকে দেয়া এক সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকারে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল ক্লিনিক শাখার পরিচালক ডা. আমিনুল হাসান এ তথ্য নিশ্চিত করেন। 

মেডিভয়েসকে তিনি আরও বলেন, ডেঙ্গু আক্রান্তদের পরীক্ষা ও সেবায় বৃহস্পতিবার (১ আগস্ট) মিডফোর্ড হাসপাতালে ১০০ বেড চালু করা হয়েছে। এছাড়া ঢাকা মেডিকেলের বার্ণ ইউনিট ও গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালে রোগী ভর্তি করা হবে। আশা করছি দ্রুত সমস্যার সমাধান হবে।

এদিকে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর গতকাল এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, কিট আমদানির জন্য যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। গতকাল রাতেই কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের আমদানি করা ১ লাখ ৮০ হাজার কিট দেশে পৌঁছানোর কথা। এ ছাড়া প্রতিদিন ২ লাখ করে কিট দেশে পৌঁছাবে বলে আশা করা হচ্ছে। 

বৈশ্বিক ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান আলিবাবার ওয়েবসাইটে দেখা যায়, সরবরাহকারীরা প্রতিটি কিট ৪০ সেন্ট থেকে শুরু করে দেড় ডলার (৩৪ থেকে ১২৮ টাকা) দরে সরবরাহ করেন।

বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, শতভাগ ডেঙ্গু নিশ্চিত হতে রোগীর শরীর থেকে রক্ত নিয়ে এনএস১, আইজিএম ও আইজিজি নামের পরীক্ষাগুলোও সহজে নির্ণয় করা যায়।

কিন্তু ডেঙ্গু টেস্ট কিট সংকট থাকায় নানা দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সংশ্লিষ্টদের। 

এ বিষয়ে রাজধানীর জাতীয় বাতজ্বর ইনস্টিটিউটের মেডিকেল টেকনোলজিস্ট (ল্যাব) একেএম আনিসুর রহমান মেডিভয়েসকে বলেন, এখানে প্রতিদিন গড়ে ১২০ জনের মত রোগী আসছে। যাদের অর্ধেকই ডেঙ্গু রোগী। কিন্তু ডেঙ্গু পরীক্ষার জন্য বিএমএ ভবনে টেস্ট কিট কিনতে গিয়েও পাওয়া যায়নি। ফলে রোগীদের সিবিসি পরীক্ষা ছাড়া এনএস১, আইজিজি ও আইজিএম পরীক্ষার জন্য পার্শ্ববর্তী সোহরাওয়ার্দী মেডিকেলে পাঠানো হচ্ছে।

জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের ব্লাড ব্যাংকে দায়িত্বরত ডা. হুমায়রা আলিম মেডিভয়েসকে বলেন, তাদের হাসপাতালে রক্তের প্লাজমা ও প্লাটিলেট সেপারেশন ব্যবস্থা আছে। তবে এর জন্য টেকনিশিয়ান নেই। ডেঙ্গুর প্রকোপ শুরু হওয়ায় বিভিন্ন জায়গা থেকে রক্তের প্রয়োজনে আসা রিকুইজেশন পেপারে হৌল ব্লাডের চাহিদা বেড়েছে। এমনকি শুধু জুলাই মাসেই ৫০৬ ব্যাগ হৌল ব্লাড দেওয়া হয়েছে। তাছাড়া হাসপাতাল ল্যাবে পরীক্ষার ব্যবস্থা আছে। এখন বিষয়টি কর্তৃপক্ষের ওপর নির্ভর করছে। 

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত